এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে ক্ষমতা হারালেন উত্তরবঙ্গের দাপুটে মন্ত্রী, শোরগোল রাজ্য-রাজনীতিতে

গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে ক্ষমতা হারালেন উত্তরবঙ্গের দাপুটে মন্ত্রী, শোরগোল রাজ্য-রাজনীতিতে

Priyo Bandhu Media

দক্ষিণ দিনাজপুর তৃণমূল কংগ্রেসে বাচ্চু হাঁসদা ও বিপ্লব মিত্রের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কথা কারোর অজানা নয়। দলনেত্রী নিজে বারবার সতর্ক করার পরেও তা মেটে নি। আর এই গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরেই এবার ক্ষমতা হারালেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদা। দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল যুব কংগ্রেস সভাপতির পদ থেকে তাঁকে সরিয়ে দায়িত্ত্ব দেওয়া হল জেলা সভাপতি বিপ্লব মিত্রের অনুগামী হিসাবে পরিচিত উত্তম ঘোষকে। সামনেই পঞ্চায়েত নির্বাচন, আর তার আগেই এই বড় রদবদল রাজনৈতিক মহলে বড়সড় গুঞ্জন শুরু করে দিয়েছে। এই প্রসঙ্গে দক্ষিণ দিনাজপুর তৃণমূল কংগ্রেস জেলা সভাপতি বিপ্লব মিত্র জানিয়েছেন, রাজ্য নেতৃত্বর থেকে কয়েকদিন আগেই জেনেছি যুব কমিটি ভেঙে দেওয়া হবে। রাজ্য থেকেই উত্তম ঘোষকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ইদানিং বাচ্চুবাবুর কাজকর্মে শীর্ষ নেতৃত্ব অসন্তুষ্ট ছিলেন। সম্ভবত একারণেই তাঁকে যুব সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। এতে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কোনও বিষয় নেই।
অন্যদিকে বাচ্চুবাবু নিজে জানিয়েছেন, কে কী বলছেন তা নিয়ে আমি বিতর্কে যাব না। দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আমাকে কিছু দিন আগে যুব সভাপতির পদ থেকে সরে যেতে বলেছেন। তাই আমি সরে গিয়েছি। আরও গুরুত্বপূর্ণ পদের দায়িত্ব নেত্রী আমাকে দেবেন। ওই পদ পাওয়া এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। প্রসঙ্গত, বিপ্লব মিত্র ও বাচ্চু হাঁসদার গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে প্রায়শই শাসকদলকে অস্বস্তিতে পড়তে হয়। সম্প্রতি বাচ্চুবাবু দলের জেলা সভাপতি বিপ্লববাবুর বিরুদ্ধে গিয়ে তপন ব্লকের ১১টি অঞ্চলের সভাপতির নাম ঘোষণা করেন। এরপরে বিপ্লব মিত্র অনুগামীরা তপনে গিয়ে এক প্রকাশ্য সভার মধ্যেই বাচ্চুবাবুর বিরুদ্ধে সোচ্চার হন। আর তারপরেই বাচ্চুবাবুর যুব সভাপতির পদ চলে যাওয়ায় রীতিমত শোরগোল পরে গেছে রাজ্য-রাজনীতিতে। এবার কি তাহলে বড়সড় ভাঙন ধরতে চলেছে শাসকদলে? সেই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতেই ব্যস্ত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!