এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > বিজেপি যোগ নয়, খুনের পেছনে তোলাবাজি – নিমতা খুনে ক্রমে স্পষ্ট হচ্ছে পুলিশের কাছে

বিজেপি যোগ নয়, খুনের পেছনে তোলাবাজি – নিমতা খুনে ক্রমে স্পষ্ট হচ্ছে পুলিশের কাছে

Priyo Bandhu Media


লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশের পর এই রাজ্যে কোথাও কোনোও খুন হলেই তার সমস্ত দায় বিজেপির উপর চাপাতে বিন্দুমাত্র দ্বিধাবোধ দেখাচ্ছেন না তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রশাসনিক প্রধান হিসেবে রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব মুখ্যমন্ত্রীর ওপরই বর্তায়। কিন্তু দলের ঊর্ধ্বে উঠে সেই ভাবে কখনোই কোনো ঘটনায় প্রকৃত বিচার দেওয়া নিয়ে তার সুনাম শোনা যায়নি। এবারেও তার কোনো ব্যতিক্রম হল না।

সম্প্রতি নিমতার তৃণমূল নেতা নির্মল কুন্ডু খুনে গোটা ঘটনার দায় বিজেপির উপরই চাপিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এমনকি পুলিশের পক্ষ থেকেও এই ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে বিজেপি নেতা সুমন কুন্ডু, সুজয় দাস এবং সঞ্জয় দাসকে। কিন্তু সত্যিই কি বিজেপি এই খুনের সঙ্গে জড়িত! যত দিন যাচ্ছে, ততই এই নির্মল কুন্ডু খুনে বেরিয়ে পড়ছে অন্য তথ্য।

পুলিশ সূত্রের খবর, এখনও পর্যন্ত এই খুনের জন্য যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে, তাদেরকে জেরা করে জানা গেছে যে, এই এলাকার বাসিন্দা লাল্টু, বিল্টু সহ আরও বেশ কয়েকজন সেই তৃণমূলে নিহত নির্মল কুন্ডুর ঘোরশত্রু হিসেবে পরিচিত ছিলেন। এক সময় এলাকার ইমারতি দ্রব্য ও সিন্ডিকেটের সমস্ত কিছুই দেখাশোনা করত সেই লালটু এবং বিল্টু। পরবর্তীতে নির্মল কুন্ডু এবং তাদের এক আত্মীয় এই ব্যবসায় নামলে সেই লালটু, বিল্টুর সাথে নির্মলবাবুর চরম বিরোধ তৈরি হয়।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এদিকে তার পথের কাঁটা যাতে কেউ না থাকে, তার জন্য নিষিদ্ধ মাদক রাখার অভিযোগ এনে পুলিশকে দিয়ে সেই লালটু এবং বিল্টুকে গ্রেফতার করান নিহত তৃণমূল নেতা নির্মল কুন্ডু। আর এরপরই এলাকায় রীতিমতো সর্বেসর্বা হয়ে ওঠেন তিনি। এদিকে এইরকম পরিস্থিতি চলতে থাকলে সম্প্রতি তৃণমূলের এক গোষ্ঠী তথা সেই নির্মল কুন্ডুর শত্রুপক্ষ তরফে তাকে শাসিয়ে যাওয়া হয়। আর তারপরই খুন হতে হয় নিমতার এই তৃণমূল নেতা নির্মল কুন্ডুকে।

গোয়েন্দাদের মতে, লাল্টু এবং বিল্টুই এই নির্মল কুন্ডুর খুনের পেছনে রয়েছে কিনা তার খোঁজ খবর নিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে তৃণমূলের তরফে যেখানে এই নির্মল কুন্ডু খুনে বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হচ্ছে, সেখানে পুলিশ তদন্তে নেমে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বেই নির্মল কুন্ডু খুন হয়েছে, তার আভাস পাওয়ায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরোধীদের দিকে অভিযোগের তীর অনেকটাই ফিকে হয়ে গেল বলে দাবি একাংশের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!