এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > নিজের বিধানসভাতেই আক্রান্ত হেভিওয়েট বিজেপি বিধায়ক! উত্তাল উত্তরবঙ্গ

নিজের বিধানসভাতেই আক্রান্ত হেভিওয়েট বিজেপি বিধায়ক! উত্তাল উত্তরবঙ্গ



রাজনৈতিক মতবিরোধের ফলে এবার রাজনৈতিকভাবে আক্রান্ত হলেন হেভিওয়েট বিজেপি বিধায়ক। রাজ্যের বিরোধী দল বিজেপি এবং রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস এর সংঘাত আজকের নয়। বিভিন্নভাবে তাঁদের সংঘাত প্রকাশ পেয়েছে। কখনো তাঁরা রাজনৈতিক হানাহানিতে জড়িয়েছে, কখনো একে অপরের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে সামিল হয়েছে। কিন্তু এবার নিজের বিধানসভা কেন্দ্র থেকেই শাসক দলের কর্মী-সমর্থকদের হাতে বিক্ষোভ বন্দী অবস্থায় রইলেন বিজেপি বিধায়ক মনোজ টিগ্গা।

এদিন বিজেপি বিধায়ক মনোজ টিগ্গা মাদারিহাট বিধানসভায় নিজের কেন্দ্রেই আক্রান্ত হলেন। অভিযোগ তাঁর গাড়ি ঘিরে ধরে বিক্ষোভ দেখায় তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাঁকে উদ্ধার করে।

রবিবার সকালে মাদারিহাট বিধানসভার ইসলামাবাদ গ্রামে যাচ্ছিলেন মনোজ টিগ্গা। দুর্নীতির অভিযোগ পেয়ে তিনি গ্রামে যাচ্ছিলেন আর গ্রামে ঢোকার মুখেই তাঁকে আটকে দেয় তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকরা। শুধু তাই নয়, তাঁর গাড়িতে কালো পতাকা আটকে গো ব্যাক স্লোগান ওঠে। তাতেও যখন তিনি পিছপা হন না, তখন তাঁর গাড়িতে ইঁট পড়তে শুরু করে। প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে তিনি আটক থাকার পর পুলিশ এসে তাঁকে উদ্ধার করে। গোটা বিষয়টি নিয়ে মাদারিহাট থানায় অভিযোগ জানানো হয়েছে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

বিধায়ক মনোজ টিগ্গা জানিয়েছেন, ‘ওই গ্রামের এক পঞ্চায়েতে আর্থিক দুর্নীতির ছবি প্রকাশ্যে এসেছে। সেই বিষয়ে কথা বলতেই পঞ্চায়েতে যাচ্ছিলাম। সেখানেই তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকরা রাস্তা আটকায়। আমাকে মারধর করে।’ অন্যদিকে এলাকার তৃণমূল নেতা মোহন শর্মা সম্পূর্ণ অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে দাবি করেছেন, মনোজ বাবু এলাকার না বলেই হঠাৎ যাওয়াতে তাঁর ওপর বিক্ষোভ প্রকাশ করেছে গ্রামবাসীরা।

এতে তৃণমূলের কোনো যোগ নেই বলে দাবি জানিয়েছেন তিনি। প্রসঙ্গত গত মঙ্গলবার বিজেপির আরেক বিধায়ক রাজু বিস্তার ওপরেও একইভাবে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা হামলা চালায়। সেই ঘটনার থেকে এক সপ্তাহের মধ্যেই আবারও একই পরিস্থিতি সৃষ্টি হল।বিজেপি শিবিরে উত্তেজনা বাড়ছে।

বিজেপি বিধায়কের ওপর হামলার ঘটনায় ইতিমধ্যে রাজনৈতিক স্তরে উত্তেজনা দেখা গেছে। তবে এই হামলার ঘটনায় এখনো পর্যন্ত শাসক শিবির থেকে কোনো প্রতিক্রিয়া জানানো হয়নি। অন্যদিকে, বিধানসভা নির্বাচন যতই এগিয়ে আসছে ততই দুই রাজনৈতিক দলের মধ্যে বিরোধিতা ক্রমশ বেড়েই চলেছে।

এই ঘটনায় বিরোধী শিবিরের দাবি, মানুষের কাছে যাতে বিজেপি পৌঁছাতে না পারে তার জন্যই তৃণমূল কংগ্রেস নানানভাবে আটকানোর ব্যবস্থা করেছে। তবে এই ঘটনায় রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের দাবি, জনাদেশ নিতে গেলে দুই পক্ষরই সমানভাবে মানুষের কাছে পৌঁছানোর সুযোগ পাওয়া উচিত। আপাতত এই ঘটনায় এখনো পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি। তদন্ত চলছে। পুরো ঘটনার ওপর নজর রাখছে রাজনৈতিক মহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!