এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > সংবাদমাধ্যম টাকা খায় কাটমানি প্রসঙ্গে বড়সড় দাবি মুখ্যমন্ত্রীর

সংবাদমাধ্যম টাকা খায় কাটমানি প্রসঙ্গে বড়সড় দাবি মুখ্যমন্ত্রীর


কথায় আছে, যত দোষ নন্দ ঘোষ। বর্তমানে গণতান্ত্রিক রীতিনীতির অন্যতম স্তম্ভ বলে পরিচিত সংবাদমাধ্যমের দিকেই যেন কাটমানি ইস্যুতে সমস্ত তীর ছুঁড়তে শুরু করেছেন শাসক দল। বস্তুত, এবারের লোকসভা নির্বাচনে নিচুতলার দুর্নীতির জন্য শাসকদলের ফলাফল খারাপ হয়েছে বলে পর্যালোচনা বৈঠকে উঠে এসেছিল।

আর তারপরই কেউ কাটমানি খেলে তাকে রেয়াত করা হবে না বলে জানিয়ে দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তার পরেই দিকে দিকে দুর্নীতিগ্রস্ত তৃণমূল নেতাদের বাড়ি ঘেরাও করে টাকা ফেরতের দাবিতে বিক্ষোভ দেখান সাধারন মানুষ। আর এই ঘটনায় শাসক দলের একাধিক নেতার নাম জড়ানোয় তীব্র অস্বস্তিতে পড়ে ঘাসফুল শিবির।

এমনকি পরিস্থিতি মোকাবিলায় দলের 99.99 শতাংশ মানুষই সৎ বলেও ব্যাখ্যা দিতে দেখা যায় তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে। এই পরিস্থিতিতে এবার কাটমানি বিতর্কে সাংবাদিকদের টেনে আনলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর এদিন দলীয় মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের “99.99 শতাংশ দলীয় কর্মী সৎ” এই বক্তব্যকে সীলমোহর দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “প্রত্যেকটি পেশাতেই খারাপ লোক থাকে। সাংবাদিকদের একাংশও এতে জড়িত। টাকার মাধ্যমে তারা ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয়। তারাই আবার লেখেন এবং জ্ঞান দেন।”

আর এরপরই মুখ্যমন্ত্রী এই ব্যাপারে বেশ কিছু সাংবাদিকদের নাম নিতে উদ্যোগী হলে তাতে হাত নেড়ে বাধা দেন বিধানসভার কংগ্রেসের বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান। যার কারণ হিসেবে বিধানসভায় সাংবাদিকদের আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ নেই বলে জানান তিনি। কিন্তু কাটমানি ইস্যুতে হঠাৎ সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে কেন সরব হলেন মুখ্যমন্ত্রী! এখন তা নিয়েই উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন।

বিশ্লেষকদের একাংশ বলছেন, ক্ষমতায় আসার পর থেকেই প্রায় যে কোনো ঘটনাতেই সংবাদমাধ্যমের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে দেখা যেত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। আর এবার কাটমানিতে যখন রাজ্য রাজনীতি উত্তাল হয়ে উঠেছে, যখন দিকে দিকে তৃণমূল নেতাদের ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেছেন সাধারন মানুষ, ঠিক তখনই সংবাদমাধ্যম সেই সত্য খবর পরিবেশন করছে।

আরে এতেই কিছুটা চটে গিয়ে সেই সংবাদমাধ্যমের দিকেও কাটমানি প্রক্রিয়ায় জড়িত থাকার অভিযোগ তুলে সরব হলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলে মত ওয়াকিবহাল মহলের। তবে গণতন্ত্রের অন্যতম স্তম্ভ সংবাদমাধ্যমের দিকে মুখ্যমন্ত্রীর এহেন অভিযোগের তীর সত্যিই বেমানান বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!