এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > তাঁর তথ্য বিকৃত করা হচ্ছে! সেনা নিয়ে বিতর্কিত সব মন্তব্যের দায় সংবাদমাধ্যমের ওপর চাপালেন তৃণমূল নেত্রী

তাঁর তথ্য বিকৃত করা হচ্ছে! সেনা নিয়ে বিতর্কিত সব মন্তব্যের দায় সংবাদমাধ্যমের ওপর চাপালেন তৃণমূল নেত্রী

গত 14 ই ফেব্রুয়ারি পাক মদদপুষ্ট জঙ্গী সংগঠনের পক্ষ থেকে চালানো নৃশংস হামলায় প্রাণ হারান ভারতের জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলায় থাকা প্রায় 42 জন বীর জওয়ান। আর এই ঘটনার পর যখন গোটা দেশ দাবি করেছিল যে পাকিস্তান এই ঘটনার জন্য দায়ী। তখন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দাবি করেছিলেন যে, তদন্ত না করেনি কাউকে দোষ দেওয়া ঠিক হচ্ছে না। আর এই নিয়েই শুরু হয়েছিল বিতর্ক। আর এই ঘটনার পরই দেশের প্রতিটি রাজনৈতিক দল এই ব্যাপারে রাজনীতি করা হবে না বলে পাকিস্তানের প্রতি বদলার রাস্তায় হাঁটবার জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে দাবি জানায় তখন নাকি তৃণমূল এর বিরোধিতা করেছিল এমনটাই দাবি করা হয়েছিল বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের।

এখানেই শেষ নয়। এর পরে গত 26 শে ফেব্রুয়ারি ভারতবাসীর আবেগকে মান্যতা দিয়ে ভোররাতে ভারতীয় বায়ুসেনা পাকিস্তানের মাটিতে প্রত্যাঘাত এনে সেখানকার একাধিক জঙ্গিঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেয়। আর এই খবর ভারতের আসার সাথে সাথে দেশের মানুষ যখন কিছুটা হলেও আশাবাদী হতে শুরু করেছিল, ঠিক তখনই তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মন্তব্য করেন যে, “আদৌ ভারতীয় বায়ুসেনা সেই পাকিস্তানের মাটিতে হামলা এনেছে কিনা? আর যদি এনে থাকে তাহলে সেই ব্যাপারে প্রকৃত প্রমাণ পেশ করুক কেন্দ্রীয় সরকার।” যা নিয়ে সেই তৃনমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা শুরু হয় গোটা দেশজুড়ে।

সূত্রের খবর, মঙ্গলবার রাজ্য সরকারের সদর দপ্তর নবান্ন থেকে বেরোনোর সময় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “জওয়ানদের রক্তের বিনিময়ে কেউ ভোটে জিতে আসবে এটা আমরা মেনে নেব না। সেনারা দেশের জন্য লড়াই করে, কিন্তু মোদী প্রধানমন্ত্রী পদের লজ্জা। আমরা দেশের পক্ষে, সেনার পক্ষে, মানুষের পক্ষে থাকলেও মোদিবাবুর বিরুদ্ধে।”

অন্যদিকে গত 14 ই ফেব্রুয়ারি জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ঘটা পাক মদতপুষ্ট জঙ্গী সংগঠনের পক্ষ থেকে চালানো নৃশংস হামলায় আগাম খবর থাকা সত্ত্বেও কেন কেন্দ্রীয় সরকার এই ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি তা নিয়েও এদিন কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা যায় বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

আর এরপরই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “আমার বক্তব্যের ভুল ব্যাখ্যা করছে জাতীয় সংবাদমাধ্যম। দেশের মানুষ প্রকৃত তথ্য জানতে পারছে না। একজন সাধারন মানুষ হিসেবে আমার কথা বলার অধিকার আছে। বিজেপি পার্টিটাকে মোদী ও অমিত শাহ প্রাইভেট কোম্পানিতে পরিণত করেছে। ওরা সবাইকে ভয় দেখাচ্ছে। মোদীবাবুর এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমি বলবই। আর তাতে যদি আমার কিছু হয়ত হবে। আমি ভয় পাই না। ওরা আমাকে যা ইচ্ছে শাস্তি দিতে পারে। আমি বাংলায় জন্মগ্রহণ করেছি। আমি ‌একজন ভারতবাসী। এটা আমার গর্ব।”

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, পাকিস্তানের মাটিতে ভারতীয় বায়ুসেনা আদৌ প্রত্যাঘাত এনেছে কি না এবং তারা সাফল্য পেয়েছে কিনা তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করতে দেখা গিয়েছিল তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। আর নিজের এহেন মন্তব্যের পরই দেশজুড়ে সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন তিনি। আর তাই এই ব্যাপারে কিছুটা ড্যামেজ কন্ট্রোল করতে গিয়ে তিনি “ভয় পান না” বলে জানিয়ে দিয়ে ফের নিজের বক্তব্যে অনড় থাকার মরিয়া চেষ্টা করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!