এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > দেশের যুবসমাজের জন্য প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ যোজনা, শুরু হতে চলেছে ২৯ শে আগস্ট

দেশের যুবসমাজের জন্য প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ যোজনা, শুরু হতে চলেছে ২৯ শে আগস্ট

কেন্দ্রীয় সরকার আগামী ২৯ শে আগস্ট ‘ক্রীড়া দিবস’ উপলক্ষে ‘ফিট ইন্ডিয়া স্কিম’ শুরু করতে চলেছে। যেখানে ভারতের প্রাচীনতম ক্রীড়া থেকে শুরু করে আধুনিকতম ক্রীড়া – সবকিছু নিয়েই বিশেষ প্রচার করে দেশের যুবসমাজকে সচেতন করা হবে। ‘ফিট হোগা ইন্ডিয়া, তভি হিট হোগা ইন্ডিয়া’ – প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তাঁর ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠান থেকেই এই কথা জানিয়েছেন। ফলে, মনে করা হচ্ছে, কেন্দ্রীয় সরকার আগামী ২৯ শে আগস্ট ‘ফিট ইন্ডিয়া স্কিম’ শুরু করতে চলেছে।

গত বছরের ২৫ শে মার্চের ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, জীবনে খেলাধুলার গুরুত্ব ব্যাখ্যা করে দেশবাসীকে খেলাধুলায় উৎসাহ দেওয়ার পাশাপাশি, একে জনপ্রিয় করে তোলার জন্যও আবেদন করেছিলেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে, কেন্দ্রীয় সরকার ‘ক্রীড়া দিবস’ উপলক্ষে আগামী ২৯ শে আগস্ট ‘ফিট ইন্ডিয়া স্কিম’ শুরু করতে যাচ্ছে, যেখানে দেশের প্রাচীনতম ক্রীড়া থেকে শুরু করে আধুনিকতম ক্রীড়া সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করা হবে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

কেন্দ্রীয় সরকারের ‘ফিট ইন্ডিয়া স্কিমের’ আওতায় মানুষ নিয়মিত দৌড়ঝাঁপের মাধ্যমে জীবনে রোগ-ব্যাধি এড়িয়ে চলতে পারবে এবং স্বাস্থ্যকর জীবন যাপনে সচেতন হবে বলে কেন্দ্র সরকার মনে করছে। প্রতিদিন সামান্য খেলাধুলার মাধ্যমেই কীভাবে সহজে ফিট যায় তা জানানো হবে। সবথেকে বড় কথা যোগা শিক্ষকদেরও এই প্রকল্পের আওতায় রাখা হবে। একই সঙ্গে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিভিন্ন আসন সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখানো হবে, যাতে তাঁর থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে আরও বেশি করে মানুষ ফিট ইন্ডিয়া স্কিমের সাথে যুক্ত হন এবং দেশের ‘ফিটনেস’ বাড়াতে সাহায্য করে।

এদিকে, মনে করা হচ্ছে, যোগ শিক্ষক সহ অন্যান্য খেলার সঙ্গে যুক্ত কোচেদের এই প্রকল্পের আওতায় বড়সড় দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে। বিশেষ করে স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের খেলাধুলা ও ফিটনেস সম্পর্কে আগ্রহী করতে। ফলে, সেদিক থেকে দেখতে গেলে প্রধানমন্ত্রীর এই নতুন যোজনার ফলে, যুবসমাজের কাছে চাকরির নতুন পথ খুলে যেতে পারে। এমনকি, ফিটনেস বাড়াতে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোও যুব-কোচেদের কাজে লাগাতে পারে, নিজেদের কর্মীদের ফিটনেস বাড়াতে। সবমিলিয়ে, নতুন কর্মসংস্থানের দরজা খুলে যেতে চলেছে দেশের যুবসমাজের কাছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট মহল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!