এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মুকুল-শঙ্কুর ‘সুপার খেল’, দিল্লিতে দুপুর দুটোয় চমকে দেওয়া ‘জয়েনিং’ গেরুয়া শিবিরের

মুকুল-শঙ্কুর ‘সুপার খেল’, দিল্লিতে দুপুর দুটোয় চমকে দেওয়া ‘জয়েনিং’ গেরুয়া শিবিরের

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া এক্সক্লুসিভ – লোকসভা নির্বাচনের আগে আবার ‘সুপার খেল’ দেখতে চলেছেন মুকুল রায় ও শঙ্কুদেব পণ্ডা। গেরুয়া শিবির সূত্রের খবর, আজ দুপুর দুটোয় দিল্লিতে ‘চমকে দেওয়ার মত’ এক যোগদান হতে চলেছে। এর আগে, মুকুল রায়ের হাত ধরে একের পর এক তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা ও স্বয়ং তৃণমূল নেত্রীর ঘনিষ্ঠকে গেরুয়া শিবিরে এনে চমকে দিয়েছিলেন মুকুল রায়। সেই যোগদানের ধাক্কা সামলাতে তৃণমূল শিবিরের আইটি সেলকে – ‘আবর্জনা’, ‘উচ্ছিষ্ট’, ‘গদ্দার’ বলে তীব্র আক্রমণের রাস্তায় নামতে হয়েছিল।

কিন্তু, সেইসব কথা যে আর তৃণমূল নেতারা মানছেন না – তা নাকি আজকের যোগদান পর্বেই প্রমান হয়ে যাবে। কলকাতা সংলগ্ন এলাকার এক দোর্দণ্ডপ্রতাপ নেতা, যাঁর গেরুয়া শিবিরে যোগদান আটকাতে আসরে নেমেছিলেন স্বয়ং তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় – দিয়েছিলেন হেভিওয়েট মন্ত্রিত্বের অফার, তিনিও আর থাকছেন না ঘাসফুল শিবিরে। লোকসভা নির্বাচনের আগেই তিনি গেরুয়া শিবিরে পদার্পন করছেন এবং খুব সম্ভবত তাঁর নিজের এলাকাতেই তাঁকে প্রার্থী করতে চলেছে বিজেপি।

হাতের মুঠোয় আরও সহজে প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে যোগ দিন –

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

সবথেকে বড় কথা এই নেতার সঙ্গে মুকুল রায়ের দূরত্ত্ব সর্বজনবিদিত – এমনকি, মুকুল রায় দল ছাড়তেই এই নেতাকেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় দায়িত্ব দিয়েছিলেন মুকুল রায়ের এলাকায় ঘাসফুলের দুর্গ সামলাতে। কিন্তু, সেই তিনিই একরাশ ক্ষোভ নিয়ে দল ছাড়তে চলেছেন। যোগদানের আগে কিছুতেই নাম প্রকাশ করা যাবে না এই শর্তে, এক গেরুয়া শিবিরের নেতার কথায় – এই যোগদানে সেই নেতা ও মুকুল রায়ের মধ্যে সেতুবন্ধনের কাজটি করেছেন যুবনেতা শঙ্কুদেব পণ্ডাই। এই নেতাকে নাকি প্রশাসনিক ক্ষমতা ব্যবহার করে ঘিড়ে রাখা হয়েছিল।

তাই কিছুতেই তিনি দিল্লি পাড়ি দিতে পারছিলেন না – কিন্তু, শঙ্কুদেব পণ্ডা আসরে নেমে ঘুরপথে ঠিক ‘চক্রব্যূহ’ থেকে বার করে নিয়ে গেছেন এই নেতাকে। দিল্লিতেও অবশ্য খুব একটা নিরাপদ নন বিজেপিতে যোগ দিতে চলা এই নেতা – যোগদানের আগে পর্যন্ত তাঁকে গোপন ডেরাতে কার্যত লুকিয়ে রাখা হয়েছে। একই সঙ্গে, নির্বাচন ঘোষণা হয়ে যাওয়ার পরেও বাংলার বাইরেও যেভাবে প্রশাসনকে ব্যবহার করে রাজনৈতিক গতিবিধি আটকানোর চেষ্টা হচ্ছে – তা জানানো হচ্ছে জাতীয় নির্বাচন কমিশনকে। গেরুয়া শিবিরের মতে, বাংলায় যে সুপার এমার্জেন্সি চলছে এইসব ঘটনাতেই তা প্রমাণিত – তবে, এত করেও গেরুয়া শিবিরে যোগদান আটকানো যাচ্ছে না।

Top
error: Content is protected !!