এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > ইলামবাজারে বনমহোৎসব পালনে হাজির একাধিক তৃণমূল শীর্ষনেতা, ইঙ্গিত নতুন সমীকরণের?

ইলামবাজারে বনমহোৎসব পালনে হাজির একাধিক তৃণমূল শীর্ষনেতা, ইঙ্গিত নতুন সমীকরণের?

গতকাল বীরভূমের ইলামবাজারে রাজ্য সরকারের বন দপ্তরের উদ্যোগে বনমহোৎসব পালন করা হল বেশ জাঁকজমকের সাথে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলার দুই মন্ত্রী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায় ও চন্দ্রনাথ সিনহা, ছিলেন জেলার অন্যতম সাংসদ শতাব্দী রায় এবং জেলা পরিষদের বিদায়ী সভাধিপতি বিকাশ রায়চৌধুরী। উপস্থিত বন বিভাগের কর্মকর্তা ও স্থানীয় অধিবাসীদের হাতে গাছের চারা তুলে দেওয়া হয়। ‘গ্লোবাল ওয়ার্মিং’ এবং তার প্রতিকারে স্থানীয়সূত্রে বেশি করে গাছ লাগানোর উপরেই জোড় দেন সকলে।

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

তবে এদিনের অনুষ্ঠানে সাংসদ শতাব্দী রায় ও জেলা পরিষদের বিদায়ী সভাধিপতি বিকাশ রায়চৌধুরীর যোগদান বিশেষ মাত্রা যোগ করে। কিছুদিন ধরেই জেলা জুড়ে জল্পনা চলছিল এই দুজনের সঙ্গেই জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডলের বেশ কিছুটা দূরত্ত্ব তৈরী হয়েছে। একদিকে আগামী লোকসভা নির্বাচনে শতাব্দীদেবীকে টিকিট দিতে নারাজ অনুব্রতবাবু, অন্যদিকে সেই লোকসভা নির্বাচনের দিকে লক্ষ্য রেখে সংগঠনের গুরুত্ত্বপূর্ন পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে বিকাশবাবুকে।

যদিও এই নিয়ে সরকারিভাবে কোথাও মুখ খোলেননি অনুব্রতবাবু নিজে। কিন্তু গতকালের অনুষ্ঠানে অনুব্রতবাবুর ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত দুই মন্ত্রীর সঙ্গে শতাব্দীদেবী ও বিকাশবাবুর উপস্থিতির পর জেলায় নতুন জল্পনা মান-অভিমানের পালা কি তাহলে শেষ? নতুন করে জোড়া লাগতে চলেছে সম্পর্ক? নাকি সব কিছুই আগের মতো একই আছে – অনুব্রতবাবুর সঙ্গে শতাব্দীদেবী বা বিকাশবাবুর দূরত্ত্ব তৈরী হওয়ার কথা নেহাতই কষ্টকল্পনা ছিল? উত্তরটা বোধহয় পাওয়া যাবে লোকসভা নির্বাচনের সময়েই।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!