এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > কালীঘাটের উন্নয়ন নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত – আজ থেকেই শুরু হচ্ছে বিশেষ পদক্ষেপ – জানুন বিস্তারিত

কালীঘাটের উন্নয়ন নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত – আজ থেকেই শুরু হচ্ছে বিশেষ পদক্ষেপ – জানুন বিস্তারিত

এবার কালীঘাট মন্দিরের সংস্কার ও সৌন্দর্যের জন্য নেওয়া হল এক বিশেষ পদক্ষেপ। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে কালীঘাট মন্দিরের ভেতরের সংস্কার এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে সেই কালীঘাট মন্দির চত্বর এলাকার সৌন্দর্যায়ন ও স্কাইওয়াকের কাজে নামতে চলেছে কলকাতা পৌরসভা। আর তাই কালীঘাট মন্দিরের ভেতরে অবস্থিত ৮৩ টি দোকান অস্থায়ীভাবে সরানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এই ব্যাপারে গতকাল কালীঘাট মন্দির সংলগ্ন কমিউনিটি হলে একটি উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে উপস্থিত ছিলেন কলকাতা পৌরসভার দুই মেয়র পারিষদ সদস্য দেবাশীষ কুমার ও বৈশ্বানর চট্টোপাধ্যায়, বিধায়ক তথা রাজ্যের বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়, ৮ নম্বর বরোর চেয়ারম্যান সন্দীপরঞ্জন বক্সি, ডিজি সঞ্জয় ভৌমিক সহ কালীঘাট মন্দির এলাকার হকার এবং বিভিন্ন স্টলের প্রতিনিধিরা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না – তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

জানা গেছে, এদিনের এই বৈঠকেই প্রাথমিকভাবে একটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে, চলতি মাসের মধ্যেই এই ৮৩ জন দোকানদারকে কালীঘাট টেম্পল রোডে অস্থায়ী স্টল তৈরি করে দেওয়া হবে। পাশাপাশি আগামী জানুয়ারি মাস থেকেই কালীঘাট মন্দিরের সংস্কারের কাজও শুরু করে দেওয়া হবে বলে খবর। তবে, শুধু দোকানদারদের সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারই নয়, এদিনের এই বৈঠকে মন্দিরের সামনে পার্কিং ও সৌন্দর্যায়নের ব্যাপারেও বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে বলে জানা গেছে।

সূত্রের খবর, মূল মন্দিরের সামনে যাতে কোনরূপ নোংরা আবর্জনা না থাকে এবং যানবাহন দাঁড়িয়ে না থাকে – সেজন্য মন্দির চত্বর এলাকায় একটি মাল্টিলেভেল পার্কিং তৈরির পরিকল্পনা নেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি এই বৈঠক থেকেই দুধপুকুরের সৌন্দর্যায়ন ও কালীঘাট মন্দিরের তিনটি প্রবেশপথ তৈরীর রূপরেখাও তৈরি করা হয়। আর এই সমস্ত ব্যাপারে কালীঘাট মন্দিরের উন্নয়নের কাজের পরামর্শদাতা সংস্থা রাইটসকে দ্রুত ডিপিআর তৈরি করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলেও জানা গেছে।

এদিন এই প্রসঙ্গে বৈঠকে উপস্থিত কলকাতা পৌরসভার মেয়র পারিষদ দেবাশিস কুমার সংবাদমাধ্যমকে বলেন, “চলতি মাসের মধ্যেই যাবতীয় স্থানান্তরের কাজ শেষ হবে। কালীঘাট মন্দির সংস্কার এবং স্কাইওয়াকের কাজ দ্রুত শুরু করে সম্পাদন করতে হবে। কারন মুখ্যমন্ত্রী চাইছেন, এই কাজটির যেন বেশি দেরি না হয়”। সব মিলিয়ে, মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ আসতেই এবার কালীঘাট মন্দিরের উন্নয়নের জন্যও তৎপর হয়ে গেল কলকাতা পৌরসভা – দক্ষিণেশ্বরের পর শহরের আরেকটি দর্শনীয় স্থান নব কলেবর পেতে চলেছে বলে মনে করা হচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!