এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > গুজরাট-হিমাচল ভোটের পর দলীয় বৈঠকে কেঁদে ফেললেন নরেন্দ্র মোদী

গুজরাট-হিমাচল ভোটের পর দলীয় বৈঠকে কেঁদে ফেললেন নরেন্দ্র মোদী

গুজরাট ও হিমাচল প্রদেশ বিধানসভা নির্বাচনে জয়ের পর বিজেপি সাংসদদের সঙ্গে গতকালই ছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর প্রথম বৈঠক। নিজের রাজ্য গুজরাটে কষ্টার্জিত জয়ের ক্ষত ঢাকতে তিনি যে নতুন করে উদ্দীপনার মন্ত্র দেবেন তা আশায় করেছিলেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা আর বাস্তবে হলোও তাই। আর তার সঙ্গে আবেগে রুদ্ধ হয়ে আসা গলায় বারবার চোখে জল এসে গেল তাঁর, দলীয় সাংসদদের সামনেই সবাইকে অবাক করে দিয়ে কেঁদে ফেললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সর্বভারতীয় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ, নরেন্দ্র মোদীর রাজনৈতিক গুরু তথা দলের বরিষ্ঠ নেতা লালকৃষ্ণ আডবানিদের পাশে নিয়ে দলের অগ্রগতি নিয়ে বিভিন্ন রকম আলাপ আলোচনা হয় বলে বিজেপির দলীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে।
তবে দৃঢ় চরিত্রের নরেন্দ্র মোদী, যুবক বয়স থেকে নিজের কঠিন লড়াইয়ের কথা বলতে গিয়ে কেঁদে ফেলবেন – ভাবতে পারেননি অনেকেই। নিজের বক্তব্য রাখতে গিয়ে স্মৃতিমেদুর হয়ে নরেন্দ্র মোদী বারবার তুলে ধরেন – পুরোনো সঙ্গীদের কথা, কি ভাবে গুজরাটে ২৬ টি আসনের ২০ টিতে জেতার পর স্বয়ং অটল বিহারী বাজপেয়ী জড়িয়ে তাঁকে শাবাশি দিয়েছিলেন সেসব কথাও। তবে এই দলীয় বৈঠকে বিভিন্ন সময়ে প্রধানমন্ত্রীর চোখে জল দেখা দেওয়ায় তাঁর বিরোধীরা অনেকেই একে ‘কুম্ভীরাশ্রু’ বলে কটাক্ষ করেন। কিন্তু এব্যাপারে দলীয় নেতারা সম্পূর্ণভাবে তাঁর পাশেই আছেন। যেমন গিরিরাজ সিংহ মন্তব্য করেন, মোদী তো রাহুল গাঁধীর মতো রাজঘরানা থেকে আসেননি, মেহনত করে এই জায়গা অর্জন করেছেন, ফলে তাঁর গলায় আবেগ মানায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেক বিজেপি শীর্ষনেতা আবার রাহুল গান্ধী তথা কংগ্রেসকে কটাক্ষ করে বলেন, অনেকে হাস্যকর ভাবে হারের মধ্যে জয় খুঁজছেন! তবে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের বিশ্লেষণ, আদতে আবেগের আবহে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আগামী নির্বাচনগুলির জন্য দলকে পুনরুজ্জীবিত করে দিলেন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!