এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মেদিনীপুর > নন্দীগ্রামবাসীর জন্য বড়সড় সুখবর ঘোষণা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের

নন্দীগ্রামবাসীর জন্য বড়সড় সুখবর ঘোষণা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের

এককালে জঙ্গলমহলের মানুষের ঘুম ভাঙত গুলির শব্দে। কিন্তু তৃনমূল সরকার ক্ষমতায় আসার পরে সেই জঙ্গলমহলের শান্তি ফিরেছে। বন্ধ হয়েছে মাওবাদীদের উপদ্রব। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের জঙ্গলমহল থাকলেও দিনকে দিন অগ্নীগর্ভ হয়ে উঠছে কাশ্মীর সীমান্ত। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই জঙ্গলমহলকে শান্ত করলেও কেন কেন্দ্রের বিজেপি সরকার কাশ্মীরকে শান্ত করতে পারছে না?

বৃহস্পতিবার ঝাড়গ্রামে এসে সেই প্রশ্নই তুলে কেন্দ্রকে কটাক্ষ করলেন রাজ্যের ক্রেতাসুরক্ষা মন্ত্রী সাধন পান্ডে। সূত্রের খবর, এদিন ঝাড়গ্রাম শহরের পুরানো শ্মশান কালী মন্দিরের কাছে উপভোক্তা বিষয়ক দপ্তরের একটি শাখা অফিস উদ্বোধন করে সাধন পান্ডে বলেন, “ছত্তিশগঢ়ে মাওবাদীদের গুলি করে হত্যা করা হয়। কিন্তু আমাদের রাজ্যে মাওবাদীদের ভালোবাসা দিয়ে সমাজের মূলস্রোতে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী যেভাবে জঙ্গলমহলের সমস্যা মোকাবিলা করেছেন কেন্দ্ররও সেইভাবে কাশ্মীর সমস্যা সমাধান করা উচিত।”

এদিন ঝাড়গ্রামের খেলাধূলা ও শিক্ষার উন্নয়নে রাজ্য সরকারের কর্মকান্ডের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন তিনি। অন্যদিকে ক্রেতা সুরক্ষা দপ্তরের অফিস উদ্বোধন করার পাশাপাশি এদিন ঝাড়গ্রাম শহর ও সাঁকরাইলের দুটি ব্লকের কর্মতীর্থের সূচনা করেন সাধন পান্ডে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এদিনের এই অনুষ্টানে মন্ত্রী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, রামকৃষ্ন মিশনের ঝাড়গ্রাম শাখার সম্পাদক স্বামী শুভকরানন্দজি, ঝাড়গ্রামের সাংসদ উমা সোরেন, বিধায়ক চূড়ামনি মাহাতো, জেলাশাসক আয়েষা রানি এ, পুলিশ সুপার রাঠোর অমিতকুমার ভরত সহ অনেকেই।  সূত্রের খবর, এই কর্মতীর্থ তৈরি করতে খরচ হয়েছে প্রায় 4 কোটি টাকা। মোট 44 টি স্টলে এখানকার স্বনির্ভর গোষ্টীর সদস্যরা আচার, শালপাতার তৈরি থালা, বাটি, বাঁশের জিনিস, মধু এবং বিভিন্ন হস্তশিল্পের জিনিস পাওয়া যাবে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!