এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > নদীয়া বিজেপিতে বড়সড় সাংগঠনিক পরিবর্তন! দ্বন্দ্ব এড়িয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর আশায় দলের কর্মীরা

নদীয়া বিজেপিতে বড়সড় সাংগঠনিক পরিবর্তন! দ্বন্দ্ব এড়িয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর আশায় দলের কর্মীরা



 

গত লোকসভা নির্বাচনে সারা রাজ্যে বিজেপি ভালো ফল করলেও, সদ্যসমাপ্ত রাজ্যের তিন বিধানসভা উপনির্বাচনে বিজেপির পরাজয় তাদের সাংগঠনিক দুর্বলতাকে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে। লোকসভায় নরেন্দ্র মোদির উপর ভরসা করে বাংলায় বিজেপি 18 আসন পেলেও, বিধানসভায় যে তা হবে না, তা পরোতে পরোতে উপলব্ধি করেছে গেরুয়া শিবির।

আর তারপরই সাংগঠনিক ভিত্তিকে শক্তিশালী করার দিকে নজর দিতে শুরু করে পদ্ম শিবিরের নেতৃত্ব। ইতিমধ্যেই একাধিক জেলার সভাপতি পরিবর্তন করে দিয়েছে রাজ্য বিজেপি। আর এবার নদীয়ার 2 সাংগঠনিক জেলাতেই সভাপতি পদে বদল আনল তারা। সূত্রের খবর, বিজেপির নদিয়া উত্তর সাংগঠনিক জেলার সভাপতি পদের দায়িত্বে থাকা মহাদেব সরকারকে সরিয়ে তার জায়গায় আনা হল আশুতোষ পালকে।

জানা যায়, গত 2018 সালের জানুয়ারি মাসে এই নদিয়া উত্তর সাংগঠনিক জেলার সভাপতি পদের দায়িত্ব পান মহাদেববাবু। কিন্তু লোকসভায় কিছুটা সাফল্য পাওয়ার পর তিনি নদীয়া জেলায় সংগঠনের শ্রীবৃদ্ধি করতে অপারগ ছিলেন। ফলে দলের নেতাকর্মীদের মনে তার সম্পর্কে ক্ষোভ জন্মাতে শুরু করেছিল।

আর এবার করিমপুর বিধানসভা উপনির্বাচনে বিজেপি প্রার্থী রেকর্ড ভোটে পরাজিত হওয়ার পর মহাদেব সরকারকে সরিয়ে তার জায়গায় আশুতোষ পালকে আনল ভারতীয় জনতা পার্টি। তাহলে কি তাকে তার ব্যর্থতার জন্যই দলের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হল! এদিন এই প্রসঙ্গে মহাদেব সরকার বলেন, “আমি যতটা পেরেছি, ভালোভাবে দলটা চালিয়ে এসেছে। পঞ্চায়েত ভোটে তার প্রমাণও দিয়েছি। তবে দল যা মনে করেছে, তা শিরোধার্য। নতুন সভাপতিকে অনেক শুভেচ্ছা।”

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত সভাপতি আশুতোষ পাল বলেন, “আগের সভাপতি ভালোভাবেই কাজ করেছেন আমাদের দলের এটা রুটিন ব্যাপার। আমি চেষ্টা করব, দলকে আরও শক্তিশালী করবার।” এদিকে নদিয়া উত্তরের পাশাপাশি নদীয়া দক্ষিণ সাংগঠনিক জেলার সভাপতি পদেও বদল এনেছে ভারতীয় জনতা পার্টি।

জানা গেছে, এতদিন নদীয়া দক্ষিণ সাংগঠনিক জেলা সভাপতি ছিলেন মানবেন্দ্র রায়। তবে তার জায়গায় নতুন সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন অশোক চক্রবর্তী। বস্তুত, দীর্ঘদিন ধরেই এই নদীয়া দক্ষিণের প্রাক্তন জেলা সভাপতি মানবেন্দ্র রায়ের সঙ্গে রানাঘাট লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকারের দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে এসেছে। ফলে সেদিক থেকে দলের শৃঙ্খলা রক্ষা করবার জন্য মানবেন্দ্রবাবুকে সরিয়ে অশোক চক্রবর্তীকে দায়িত্ব দিয়ে বিজেপি নিজেদের সংগঠনকে শক্তিশালী করতে চাইছে বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

যদিও বা এই প্রসঙ্গে মানবেন্দ্রবাবু বলেন, “জেলা সভাপতি পরিবর্তনের বিষয়টি আমি ভাসাভাসা শুনেছি। এখনও পরিষ্কার নয়।” অন্যদিকে নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত জেলা সভাপতি অশোক চক্রবর্তী বলেন, “সবার সহযোগিতা নিয়ে কাজ করতে চাই। আগামী দিনগুলিতে জয়ের লক্ষ্যে ঝাঁপিয়ে পড়ব।” সব মিলিয়ে দলের সংগঠনকে শক্তিশালী করতে এবং শৃঙ্খলা আনতে এবার নদীয়ায় 2 সভাপতি পরিবর্তন করে চমক দিল ভারতীয় জনতা পার্টি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!