এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > কলেজে কলেজে ছাত্রভোট নিয়ে নবান্ন থেকে বড়সড় ঘোষণা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের

কলেজে কলেজে ছাত্রভোট নিয়ে নবান্ন থেকে বড়সড় ঘোষণা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের

অনেকদিন ধরেই রাজ্যের কলেজগুলিতে ছাত্র সংসদ নির্বাচন বন্ধ রয়েছে। যার ফলে শাসকদলের ছাত্র সংগঠন তৃণমূল ছাত্র পরিষদ বাদে বিরোধী ছাত্র সংগঠনগুলো কলেজগুলিতে ছাত্র সংসদ নির্বাচন করার দাবি অনেকদিন আগে থেকেই জানিয়ে আসছে। কিন্তু সেইভাবে সরকারের তরফ থেকে এই ব্যাপারে সবুজসংকেত না পাওয়ায় বিরোধী ছাত্র সংগঠনগুলো তীব্র প্রতিবাদে গর্জে উঠেছিল।

এমনকি সদ্য রাজ্যের দায়িত্ব নিয়ে নতুন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকারও সেই কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ নির্বাচন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় উষ্মা প্রকাশ করেছিলেন। তবে এবার ছাত্রভোট নিয়ে নিজের মতামত জানিয়ে দিলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। সূত্রের খবর, শুক্রবার নবান্নে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতৃত্বের সঙ্গে তিনি দীর্ঘ বৈঠক করেন।

আর এরপরই ছাত্রভোট প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “শুধু কলেজবিহীন বিশ্ববিদ্যালয় নয়, রাজ্যের সমস্ত কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা দপ্তর ছাত্র সংসদ নির্বাচন করতে চায়। কিন্তু তার আগে পুলিশ প্রশাসনের তরফে রিপোর্ট নেওয়া হবে। কলেজবিহীন বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ছাত্র ভোটের বিজ্ঞপ্তি ইতিমধ্যেই জারি হয়েছে। পরের ধাপে রাজ্যের অন্য বিশ্ববিদ্যালয় এবং কলেজেও ভোট করা হবে। কিন্তু কোন কলেজের পরীক্ষা কোন সময় থাকবে, কোথায় ভোট করার উপযুক্ত সময় আছে, তা প্রশাসনের কাছ থেকে রিপোর্ট নিয়ে ঠিক করা হবে।”

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশ বলছেন, দীর্ঘদিন ধরে কলেজগুলোতে নির্বাচন না হওয়ায় এখন সেই নির্বাচন করতে গেলে কিছুটা সাবধানী হয়ে পা ফেলতে চাইছে রাজ্য সরকার। কেননা বিভিন্ন জায়গায় তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দলে জর্জরিত হয়ে গেছে। পাশাপাশি কোনো কোনো কলেজে আবার মাথাচাড়া দিয়েছে রাজ্যের বিরোধীশক্তি বিজেপির ছাত্রসংগঠন অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ।

সেদিক থেকে সমস্ত কলেজের অভ্যন্তরীণ বিষয় বুঝে নিয়ে যাতে শান্তিপূর্ণভাবে সেই নির্বাচন করা যায়, তার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিতে চাইছেন শিক্ষামন্ত্রী বলে মত রাজনৈতিক মহলের। অন্যদিকে শুক্রবার নবান্নে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠক করে আগামী 14 অথবা 15 নভেম্বর নেতাজি ইন্ডোরে ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের পক্ষ থেকে যে কর্মশালা করা হবে, সেই নিয়েও দলের ছাত্র সংগঠনের নেতৃত্ব দের সঙ্গে কথা বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী।

এদিন পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, “ছাত্র-যুবদের মধ্যে থেকে নতুন নেতৃত্ব নিয়ে আসতে হবে, সেই প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ব্যাপক হারে জনসংযোগ যেমন করা হচ্ছে, তেমনই দুর্বল জায়গাগুলো চিহ্নিত করা হচ্ছে।” বিশেষজ্ঞরা বলছেন, লোকসভা নির্বাচনের পর বিজেপি বাংলায় আঠারোটা আসন পাওয়ার পর থেকেই কলেজ ক্যাম্পাসগুলোতে মাথাচাড়া দিতে শুরু করেছে বিরোধী ছাত্র সংগঠনগুলো। আর সেদিক থেকে অনেকটাই চাপে পড়েছে তৃণমূল ছাত্র পরিষদ।

আর তাই তো এবার নতুন নেতৃত্ব তোলার কথা বলে কলেজ ক্যাম্পাসে ধীরে ধীরে সংগঠন করার প্রতি আগ্রহ জন্মাচ্ছে এতদিন সংগঠন না করা তৃণমূল ছাত্র পরিষদের। কিন্তু ভালো এবং স্বচ্ছ মুখ যুক্ত ছেলেদের নিয়ে আদৌ সেই সংগঠন কতটা ঠিকমতো করতে পারবে শাসকদলের ছাত্রসংগঠন, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!