এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > নবান্নে ছুটলেন সিপিআইএম নেতা, মন্ত্রীর সাথে বৈঠক-জোট না যোগদান, তোলপাড় রাজনৈতিকমহল

নবান্নে ছুটলেন সিপিআইএম নেতা, মন্ত্রীর সাথে বৈঠক-জোট না যোগদান, তোলপাড় রাজনৈতিকমহল

সিপিএম কে সরিয়ে ২০১১ সালে ক্ষমতায় এসেছিল তৃণমূল। তৎকালীন তৃণমূলের সঙ্গে সিপিআইএমের সম্পর্ক ছিল সাপে-নেউলে যা 2016 বিধানসভা ভোটের সময় পর্যন্ত বিদ্যমান ছিল। কিন্তু এরপর গঙ্গা দিয়ে অনেক জল বয়ে গেছে। রাজ্যে ক্রমশ বিজেপির উত্থান হয়েছে আর যার জেরে বর্তমানে রাজ্যের প্রধান বিরোধী দলে পরিণত হয়েছে বিজেপি।

লোকসভা ভোটের পর চিত্রটা আরো পরিষ্কার হয়ে গেছে সিপিআইএম ও কংগ্রেসকে উড়িয়ে তৃণমূলের সঙ্গে টক্কর দিয়ে রাজ্যের ১৮ টি আসন দখল করেছে বিজেপি। আর এর পরেই নড়েচড়ে বসেছে রাজ্যের শাসক দল। যদিও লোকসভা ভোটের আগে থেকেই বিজেপির রাজ্যে উত্থানের আভাস পেয়েই সিপিআইএমকে বারবার একজোট হয়ে লড়াই করার ডাক দিয়েছিল তৃণমূল।

কিন্তু তাতে কি খুব একটা লাভ হয়নি সিপিআইএম নিজেদের সর্বশক্তি দিয়ে একাই লড়েছে লোকসভা ভোটে। বারবার সিপিআইএম এর তরফ থেকে দাবি করা হয়েছে তৃণমূলের সঙ্গে কোনোভাবেই একজোট হবে না লাল শিবির কিন্তু এদিন অন্য চিত্র ধরা পরল। বর্ষিয়ান নেতাসিপিআইএম নেতা রবীনদেবকে নবান্নে ডেকে পাঠালেন তৃণমূলের মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। আর ডাকা মাত্রই এদিন সব ফেলে নবান্নে ছুটলেন রবীনবাবু। আর এই ঘটনা ঘিরেই তোলপাড় রাজনৈতিকমহল।

ঘটনা সামনে আসার পর অনেক রকম প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছিল তবে কি এবার রবিন বাবু লাল জামা ছেড়ে সবুজ জামা পড়লেন? নাকি বিজেপিকে আটকাতে এবার সিপিআইএমের সঙ্গে জোট করছে তৃণমূল ?এমন অনেক কিছু। তবে জল্পনার মাঝেই পাওয়া গেল আসল খবর।

জানা যাচ্ছে এ বছরই সিপিএম শতবর্ষ পূর্ণ হচ্ছে। কমিউনিস্ট পার্টির শতবর্ষ উদযাপন শুরু হচ্ছে এই বৃহস্পতিবার। যার জন্য রাজ্য সরকারের কাছে নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে সভা করার অনুমতি চেয়েছিল সিপিআইএম। কিন্তু তা না পেয়ে আলিপুরের উত্তীর্ণ প্রেক্ষাগৃহে অনুষ্ঠান করার পরিকল্পনা নেয় সিপিআইএম। আর এরই মধ্যে তৃণমূলের মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস সিপিএমকে সুখবর দেওয়ার জন্য রাজ্য সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য রবীন দেবকে ডেকে পাঠান আরো ডাক পাওয়া মাত্রই নবান্নে উপস্থিত হন রবীনবাবু। আর এইখানেই প্রশ্ন কেন তৃণমূলের মন্ত্রী রবীনবাবুকে ডেকে পাঠালেন আর ডাকা মাত্রই কেন তিনি হাজির হলেন. কাজটি ইমেইল এর মাধ্যমেও তো সারা যেত। তবে কি অন্য কোনো সমীকরণ কাজ করছে?
যদিও এই নিয়ে চুপ দুই শিবিরই।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

সূর্যকান্ত মিশ্র বলেন, নেতাজি ইন্ডোর পাওয়া যাচ্ছে না বলেই আমরা আলিপুরের উত্তীর্ণ  প্রেক্ষাগৃহ ঠিক করেছিলাম। এখন সরকার নেতাজি ইন্ডোরে অনুষ্ঠানের অনুমতি দেওয়ায় অন্ষ্ঠান স্থল পরিবর্তন হচ্ছে ।

তৃণমূলের তরফ থেকে বলা হয়েছে সম্প্রতি বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি নেতাজি ইন্ডোরে সভা করে গেলেন। এই মুহূর্তে রাজ্যে বিজেপিই তৃণমূলের প্রধান বিরোধী। তাই তাঁদের যখন সভা করার অনুমতি দেওয়া হল, তখন সিপিএমকে দেওয়া হবে না কেন? এই সরকার সকলকে দেখে।

যদি রাজনৈতিক মহল এ বিষয়টি খুব একটা ভালো চোখে দেখছেন না তাদের মত যতই সিপিআইএম মুখে বলুক তারা তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়ছে তৃণমূলের সঙ্গে কোনোভাবেই জোট করবো না কিন্তু ভিতরে ভিতরে কোথাও তৃণমূলের পাশেই থাকতে চলেছে সিপিআইএম। এই বিষয়টা কি খানিকটা একবার ডাকলেই যাইবার মতন হয়ে গেল প্রশ্ন উঠেছে সব মহলে।

আপনার মতামত জানান -
Top