এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > মুর্শিদাবাদে বাড়ছে তৃণমূল, পাল্লা দিয়ে বাড়ছে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব – মারামারিতে গড়াগড়ি খেল নেত্রীর ছবি

মুর্শিদাবাদে বাড়ছে তৃণমূল, পাল্লা দিয়ে বাড়ছে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব – মারামারিতে গড়াগড়ি খেল নেত্রীর ছবি

ক্ষমতায় আসার পর এক বেসরকারি সংবাদমাধ্যমের সাক্ষাৎকারে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেছিলেন, “কিছু কিছু জায়গায় বারোধী দলের ক্যাডাররা গিয়ে তৃনমূলের পার্টি অফিস ভাঙচুর করছে।” এমনকী যেসব জায়গায় তাঁর ছবি অপমান করা হয়েছিল সে প্রসঙ্গে তিনি বলেছিলেন,” কারও সামনে যদি কেউ তাঁর মায়ের ছবি পা দিয়ে মুড়িয়ে দেয়, তবে কোন সন্তান সেটি সহ্য করবে! আমার সাথে তৃনমূল কর্মীদের সম্পর্ক এটাই।” কিন্তু বৃহস্পতিবার বহরমপুরের তালবাগানপাড়ায় তৃণমূলের দুই গোষ্টীর সংঘর্ষে সেই নেত্রীর ছবিই মাটিতে লুটোপুটি খেল। সন্তানসম কর্মীরা তখন প্রত্যেকেই নিজ এলাকায় কতৃত্ব ফলানোর জন্য হাতাহাতিতে ব্যাস্ত।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

পুলিশ সূত্রের খবর, রাত সাড়ে 7 টার সময় এক বিশাল বাইকবাহিনী নিয়ে স্থানীয় ক্লাবে আসেন এক তৃনমূল কর্মী। এরপরই ওই তৃনমূল কর্মী ক্লাব তথা তৃনমূল যুবর ভাকূড়ি-1 অঞ্চলের সভাপতি সাবলু শেখকে সেখানে ডেকে গালিগালাজ ও মারধর করেন। ঘনটনাস্থলে মহিলারা গেলেই সেই যুবকের দল এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। জানা গেছে, এলাকায় এ ধরনের অশান্তির প্রতিবাদে স্থানীয় মহিলারা এদিন সকালে ঝাটা হাতে বিক্ষোভ দেখানোর পাশাপাশি এই ঘটনায় অভিযুক্ত সাবির শেখকে গ্রেপ্তারেরও দাবি জানায়। এদিকে তাঁর ওপর এভাবে হামলার জন্য সাবলু শেখ বলেন, “সারাবছর সামাজিক কাজ করছি। আর একজন হুমকি দেখিয়ে এলাকা দখল নেওয়ার চেষ্টা করছে।” অন্যদিকে অভিযুক্ত সাবির শেখ তার বিরুদ্ধে করা সমস্ত অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে বলেছেন.” দীর্ঘদিন ধরেই তৃনমূল করি। বুধবার এই ক্লাবের কিছু ছেলে আমার সঙ্গে অভব্য আচরন করায় সেই কথা দলের জেলা সভাপতির ছেলে সপ্তঋষিকে জানালে তাঁর পরামর্শ মতই ঝামেলা মেটানোর উদ্দেশ্যেই এখানে যাই।” অন্যদিকে এলাকাবাসীর সাথে ঝামেলা মিটিয়ে নেওয়ার জন্য সাবিরকে বলেছিলেন বলে জানান জেলা সভাপতির ছেলে সপ্তঋষি। আর জেলা তৃনমূল সভাপতিকে ফোন করা হলেও তিনি কোনো ফোন না ধরায় জেলা তৃনমূলের মুখপাত্র অশোক দাস এ ব্যাপারে পুলিশের কোর্টেই সমস্ত বল ঠেলে দেন। এ প্রসঙ্গে বহরমপুর থানার আইসি বলেন, ” দুপক্ষই অভিযোগ জানিয়েছে। খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।” রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের ধারনা, একদা কংগ্রেস গড় মুর্শিদাবাদে দলীয় সংগঠন বৃদ্ধি পাওয়ায় আত্মতুষ্টিতে ভুগেই তৃনমূলের এই গোষ্টীকোন্দল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!