এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > তৃণমূল সিদ্ধান্ত নিতে না নিতেই,ফের মুকুল-সব্যসাচী বৈঠক,জল্পনা তুঙ্গে

তৃণমূল সিদ্ধান্ত নিতে না নিতেই,ফের মুকুল-সব্যসাচী বৈঠক,জল্পনা তুঙ্গে

লুচি আর আলুর দমই রাজনৈতিক জীবনে বড় বিপদ ডেকে এনেছিল। হঠাৎই এক সন্ধ্যায় বিজেপি নেতা মুকুল রায় বিধাননগরের মেয়র তথা রাজারহাট নিউটাউনের তৃণমূল বিধায়ক সব্যসাচী দত্তর বাড়িতে চলে যায়। আর তারপরই সেখান থেকে বেরিয়ে এসে মুকুলবাবু বলেন, “সৌজন্য সাক্ষাৎ। ও আমার ছোট ভাইয়ের মত। এমনি কথা বলতে এসেছি। লুচি খেলাম, তরকারি খেলাম, মিষ্টি খেলাম।” তবে মুখে যতই আলোচনা না হোক বলে জানান না কেন মুকুল রায়, দুজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের মধ্যে যে রাজনীতি নিয়ে আলোচনা হবেই সেই ব্যাপারে প্রথম থেকেই নিশ্চিত ছিল বিশেষজ্ঞরা।

আর এরপরই বিধাননগরের তৃণমূল বিধায়ক সব্যসাচী দত্ত সমস্ত জল্পনার অবসান ঘটিয়ে স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দেন, তিনি তৃণমূলেই আছেন এবং তৃণমূলেই থাকবেন। কিন্তু এরপরও বিভিন্ন সময় তার বিভিন্ন মন্তব্য দলকে চরম অস্বস্তিতে ফেলেছে। সম্প্রতি বিদ্যুৎভবনে কর্মীদের বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্থিত হয়ে রাজ্যের বিদ্যুৎমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তার মন্তব্য খুব একটা ভালো চোখে নেয়নি তৃণমূল। এমনকি দলের উদ্দেশ্যেও সেইখানে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিতে দেখা গেছে সেই সব্যসাচী দত্তকে।

আর এরপরই সব্যসাচী বাবুর বিরুদ্ধে তৃণমূল কড়া পদক্ষেপ নিতে পারে বলে বিভিন্ন মহলে জল্পনা ছড়ায়। সেইমতো গতকাল তৃণমূল ভবনে এই বিধাননগরের মেয়র বাদে সমস্ত কাউন্সিলরকে ডেকে সব্যসাচী দত্তের প্রভাব কিছুটা কমিয়ে মেয়রের পদ দেখভালের জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয় তারই বিরুদ্ধ গোষ্ঠীর নেতা তথা বিধাননগর পৌরসভা ডেপুটি মেয়র তাপস চট্টোপাধ্যায়কে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আর এই ঘটনার পরই বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের সঙ্গে বৈঠক করতে দেখা গেল তৃণমূল বিধায়ক তথা বিধাননগর পৌরসভার মেয়র সব্যসাচী দত্তকে। যা নিয়ে এখন রাজনৈতিক মহলে ব্যাপক জল্পনা ছড়িয়েছে। জানা গেছে, বিধান নগরের সুইমিংপুলে গতকাল রাতে একটি বৈঠকে বসেছিলেন সব্যসাচী দত্ত এবং মুকুল রায়।

অনেকে বলছেন, অবশেষে সমস্ত জল্পনার অবসান হতে চলেছে। সোমবারই বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন সব্যসাচী দত্ত। কিন্তু সত্যিই কি তাহলে এবার যবনিকার পতন হবে! দলের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন বিস্ফোরক মন্তব্য করে আসা সব্যসাচী দত্ত কি তাহলে এবার গলায় গেরুয়া উত্তরীয় পড়বেন!

বিশেষজ্ঞদের অনেকে বলছেন, গতকাল তৃণমূল ভবনে বিধাননগর পৌরসভার সমস্ত কাউন্সিলরদের বৈঠকে ডাকা হলেও সব্যসাচী দত্তকে সেই বৈঠকে না ডাকা এবং তার প্রভাব কমিয়ে সেই মেয়র পদের দায়িত্ব দেখভালের জন্য তার বিরুদ্ধ গোষ্ঠীর নেতা তাপস চট্টোপাধ্যায়কে দায়িত্ব দেওয়া খুব একটা ভালো ভাবে মেনে নিতে পারেননি রাজারহাট নিউটাউনের এই তৃণমূল বিধায়ক। আর তাই এদিন রাতেই বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের সঙ্গে বৈঠক করে তার দল তৃণমূল কংগ্রেসকে বার্তা দিতে চাইলেন বলে মনে করছে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।

যদিও বা সব্যসাচী দত্তের বিজেপিতে যোগ দেওয়া নিয়ে নানা জল্পনা ছড়ালেও সেই ব্যাপারে বিজেপি নেতা মুকুল রায় বলেন, “এটা একদম সৌজন্য সাক্ষাৎ। এর মধ্যে রাজনীতি করার কিছু নেই।” অন্যদিকে এই ব্যাপারে একটি টু শব্দও করেননি সেই সব্যসাচী দত্ত। সব মিলিয়ে এখন বিধাননগরের সুইমিংপুলে মুকুল রায় এবং সব্যসাচী দত্তের বৈঠকের পর সব্যসাচী দত্তের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ ঠিক কোন পথে মোড় নেয়, সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

Top
error: Content is protected !!