এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > প্রাক্তন নেত্রীকে নিয়ে ‘চিন্তা’ বাড়ছে মুকুল রায়ের? কারণ জানলে চমকে যাবেন!

প্রাক্তন নেত্রীকে নিয়ে ‘চিন্তা’ বাড়ছে মুকুল রায়ের? কারণ জানলে চমকে যাবেন!

বাংলায় বর্তমানে রাজনৈতিকভাবে যুযুধান দুই প্রতিপক্ষের নাম তৃণমূল কংগ্রেস ও ভারতীয় জনতা পার্টি। রাজনৈতিক এই যুদ্ধে – সংখ্যাতত্ত্বের বিচারে তৃণমূল এগিয়ে থাকলেও, মনস্তত্ত্বের বিচারে এগিয়ে গেছে বিজেপি বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। কারণ হিসাবে তাঁরা জানাচ্ছেন – বিজেপির ঘরে যা যাচ্ছে, তা আখেরে তৃণমূলের ঘরে ধ্বস নামিয়ে। ফলে বিজেপির তীব্র উত্থানের পাশাপাশি তৃণমূলের নিম্নগামী গ্রাফ বেশি করে চোখে পড়ছে।

আর বিজেপি বনাম তৃণমূলের এই রাজনৈতিক লড়াই আরও জমে গেছে, একে একে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পুরোনো সৈনিকরা গেরুয়া শিবিরে নাম লেখানোয়। শুরুটা হয়েছিল মুকুল রায়কে দিয়ে – তারপর একে একে শঙ্কুদেব পণ্ডা, অর্জুন সিং, সৌমিত্র খাঁ, নিশীথ প্রামানিক হয়ে তালিকাটা দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হয়েছে। সবথেকে বড় কথা, দল ছাড়ার পর এইসব নেতাদের সবাইকেই ‘আবর্জনা’, ‘উচ্ছ্বিষ্ট’ বলে তীব্র আক্রমন করেছিল তৃণমূল কংগ্রেস।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

কিন্তু, রাজনৈতিক লড়াইয়ে এঁদের সবার কাছেই কার্যত ধরাশায়ী হয়ে আরও চাপ বেড়েছে শাসকদলের। আর সেই চাপ আরও বাড়াতে, সময় পেলেই একদা তৃণমূল নেত্রীর ‘পুরোনো সৈনিকরা’ তীব্র বাক্যবানে বিদ্ধ করেন প্রাক্তন নেত্রী ও দলকে! আর এবার সেই একই ফর্মুলায় আবারো প্রাক্তন নেত্রীকে নিয়ে ‘দুশ্চিন্তা’ প্রকাশ করলেন হেভিওয়েট বিজেপি নেতা মুকুল রায়। গতকাল, শহীদ দিবসের বক্তৃতায়, বিজেপিকে ‘ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে’ বুঝে নেওয়ার কথা পুনরায় বলেন।

সেই কথার রেশ ধরেই এদিন পাল্টা দিলেন মুকুলবাবু। তিনি বলেন, বিজেপিকে তিনি ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে বুঝে নেবেন তা কয়েক বছর ধরেই বলছেন। লোকসভা নির্বাচনে জনাদেশের পর মনে হয়েছিল এবার সম্বিত ফিরবে, কিন্তু তা ফেরেনি বলেই দেখছি। আসলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কোথাও হারতে চান না বলেই এমন বলেন। ফলে দুশ্চিন্তা হচ্ছে – কেননা, একবছরের মধ্যেই বিধানসভা নির্বাচন হবে। আর তারপর এই দলটাই তো উঠে যাবে! এদিন, তৃণমূলের আইনজীবী কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়ের তর্কাতর্কি প্রসঙ্গেও মুকুলবাবু বলেন, অন্য কোথাও হলে কল্যান বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা হত!

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!