এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া > মুখ্যমন্ত্রীর সাধের জঙ্গলমহলে দাঁড়িয়ে মহা-চ্যালেঞ্জ মুকুল রায়ের – জানুন বিস্তারিত

মুখ্যমন্ত্রীর সাধের জঙ্গলমহলে দাঁড়িয়ে মহা-চ্যালেঞ্জ মুকুল রায়ের – জানুন বিস্তারিত


কার্ত্তিক গুহ, ঝাড়গ্রাম:- একদা রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের অঘোষিত দুনম্বর নেতা মুকুল রায় ঘাসফুল শিবির ছেড়ে গেরুয়া শিবিরে নাম লেখানোর পর থেকেই তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বোচ্চ নেত্রী তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে রীতিমত চ্যালেঞ্জের সামনে ফেলে দিয়েছেন। আর এবার মুখ্যমন্ত্রীর সাধের জঙ্গলমহলে দাঁড়িয়েই তাঁকে ছুঁড়ে দিলেন মহা-চ্যালেঞ্জ।

আজ ঝাড়গ্রামে দলীয় সভায় দাঁড়িয়ে মুকুল রায় বলেন, মমতা ব্যানার্জী আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে ভারতবর্ষের প্রধানমন্ত্রী হবেন বলছেন। ওনাকে চ্যালেঞ্জ করছি, পশ্চিমবাংলার বাইরে কোন রাজ্যে ভোটে দাঁড়িয়ে জামানাত রাখতে পারলে, রাজনীতি করা ছেরে দেবো! আজ সকাল থেকেই মুকুল রায়ের সভা ঘিরে ঝাড়গ্রামে গেরুয়া শিবিরের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে ছিল তীব্র উদ্দীপনা।

আর সেখানে এসে এমনই মন্তব্য করায় স্বাভাবিকভাবেই উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন উপস্থিত জনতা। এছাড়াও মুকুলবাবু আরও বলেন যে, ঝাড়গ্রাম লোকসভায় এবার তৃণমূল পরাজিত হবে আর ভারতীয় জনতা পার্টির প্রার্থী বিপুল ভোটে জিতবে। আপনারা জানেন যে বাংলায় গনতন্ত্র নেই, আমাদের প্রস্তাবিত গনতন্ত্র বাঁচাও যাত্রা নিয়ে রাজ্য সরকার এফিডেফিট করে হাইকোর্টে বলছে বাংলায় আইনশৃঙ্খলা নেই।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এরপরেই মুকুলবাবু প্রশ্ন তুলে দেন, স্বাভাবিকভাবেই এই সরকারের কোন নৈতিক অধিকার নেই আর রাজ্যে ক্ষমতায় থাকার। তিনি আশ্বস্ত করেন, এই মামলার সুপ্রিমকোর্টে দ্রুত শুনানি হবে – সুতরাং গনতন্ত্র বাঁচাও যাত্রা হবেই | আর, গনতন্ত্র বাঁচাও যাত্রার মধ্যে দিয়েই তৃণমূলের কফিনের শেষ পেরেকটা পোঁতা হবে | মুকুল রায়ের প্রতিটি বক্তব্যের পরেই রীতিমত করতালির ঝড় ওঠে উপস্থিত জনতার মধ্যে।

অন্যদিকে, ঝাড়গ্রামে বিজেপির জেলা পার্টি অফিসে গিয়েও রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসকে এক প্রকার হুঁশিয়ারি দিলেন গেরুয়া শিবিরের এই হেভিওয়েট নেতা। একইসাথে, ঝাড়গ্রাম লোকসভা আসনে যে বিজেপি জিতবেই সে কথাও স্পষ্ট করে দিলেন ঝাড়গ্রাম জেলা সভাপতি সুখময় শৎপতিকে পাশে বসিয়ে। এরপরে, তিনি ঝাড়গ্রাম লোকসভা আসনের সমস্ত নেতা কর্মীদের নিয়ে একটি বৈঠকে করেন।

মুকুলবাবুর সভার পরে স্থানীয় বিজেপি নেতা-কর্মীদের বক্তব্য, তৃণমূল সুপ্রিমোকে যেভাবে তাঁর ‘স্বঘোষিত-গড়’ থেকে মুকুলবাবু চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে রাজ্যের বাইরে যে কোন লোকসভা আসনে জিতে আশার কড়া বার্তা দিলেন -তাতে আগামীদিনে এলাকায় শাসকদলের সঙ্গে লড়াই করার নতুন উদ্দীপনা পাওয়া গেল। প্রসঙ্গত, আজকের এই কর্মীসভায় মুকুলবাবু ছাড়া উপস্থিত ছিলেন ঝাড়গ্রাম জেলার জেলা সভাপতি সুখময় শৎপতি, জেলার দুই সম্পাদক অবনী ঘোষ ও সঞ্জিত মাহাত এবং জেলার বিভিন্ন শীর্ষনেতৃত্ব ও কয়েক হাজার কর্মী |

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!