এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > ২৩ সে মে কি মুকুল রায়েরও ভাগ্যপরীক্ষা? কি চলছে রাজনৈতিকমহলে

২৩ সে মে কি মুকুল রায়েরও ভাগ্যপরীক্ষা? কি চলছে রাজনৈতিকমহলে

তৃণমূলের সেকেন্ড-ইন-কমান্ড থাকার সময় শাসক দলের অন্দরে তাঁকেই “ভোট ম্যানেজার” বলে অভিহিত করত সকলে। তবে বেশ কিছুদিন হয়ে গেল সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একদা ছায়াসঙ্গী মুকুল রায় তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেছেন। আর বিজেপিতে যাওয়ার পর থেকেই একের পর এক শাসকদলে ভাঙ্গন ধরিয়ে হেভিওয়েট তৃণমূল নেতাদের হাতে গেরুয়া শিবিরের ধরিয়ে দিয়েছেন তিনি। আর বঙ্গ রাজনীতির চাণক্য বলে পরিচিত মুকুল রায়ের কৌশল দেখে এবার লোকসভা নির্বাচনের বৈতরণী পার করার জন্য বাংলায় তার ওপরই ভরসা রেখেছে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব।

বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ অপেক্ষা মুকুল রায়কেই লোকসভা নির্বাচনের নির্বাচনী কমিটির মাথায় রেখেছে দল। যার কারণ হিসেবে অনেকেই বলছেন, তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে আসার পর যেভাবে গেরুয়া শিবিরের উত্থান বাংলায় বৃদ্ধি করেছেন মুকুল রায়, তাতে কিছুটা হলেও সেই মুকুলবাবুর উপর খুশি বিজেপির নরেন্দ্র মোদী- অমিত শাহরা।

আর তাই সেই একদা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছায়াসঙ্গী মুকুলকেই নির্বাচনী কমিটির দায়িত্ব দিয়ে বাংলায় পদ্মফুল ফোটানোর যেমন চেষ্টা করছেন গেরুয়া শিবিরের নেতারা, ঠিক তেমনি তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে এসে বর্তমান দলের জন্য কতটা নিজের প্রাণ বিসর্জন করতে পারেন মুকুলবাবু তাও পরখ করে দিতে চাইছেন তারা বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহলের একাংশ।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

প্রসঙ্গত, এবারে বাংলার 42 টি লোকসভা আসনের মধ্যে প্রায় 22 থেকে 23 টি আসন নিজেদের দখলে রাখার জন্য রাজ্য নেতৃত্বকে টার্গেট বেঁধে দিয়েছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। ইতিমধ্যেই বাংলায় তৃতীয় দফার ভোট সম্পন্ন হয়েছে। বাকি আছে আরও চার চারটি দফার। আর প্রথম দুই দফার পর সেই দুই দফায় পাঁচটি আসনেই বিজেপি জিতবে বলে আত্মবিশ্বাসের সুর শোনা গেছে মুকুল রায়ের গলায়। কিন্তু বাস্তবে আদৌ কি তাই হবে? মুকুলবাবুর ওপর বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব যে দায়িত্ব দিয়েছেন, তা কি পালন করতে পারবেন বঙ্গ রাজনীতির এই চাণক্য!

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের একাংশ বলছেন, মুকুল রায় বিজেপিতে আসবার পর গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে অনেকটাই সাফল্য পেয়েছে বিজেপি। আর এবার সব থেকে বড় লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় পদ্ম ফোটানোর জন্য সেই মুকুল রায়কে দায়িত্ব দিলে তিনি যদি তার টার্গেট পূরণ করতে পারেন, তাহলে বিজেপিতে যে মুকুলবাবুর গ্রহণযোগ্যতা আরও অনেকাংশেই বেড়ে যাবে সেই ব্যাপারে একপ্রকার নিশ্চিত সেই মুকুল অনুগামীরা।

আর যদি এমনটা না হয় তাহলে কি হবে? যদি মুকুল রায় বাংলায় পদ্ম ফোটাতে অতটা সক্ষম না হন, তাহলে তার ওপর বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব যে ভরসা করেছিল তাতে অনেকটাই জল পড়ে যেতে পারে বলে মনে করছে সমালোচকদের একাংশ। কিন্তু মুকুল অনুগামীদের বক্তব্য, “দাদা মাঝেমধ্যেই বলেন, ক্রিজে থাকলেই রান পাওয়া যাবে। রাজনীতিটা ক্রিজের মত। দাদা মাঠেই রয়েছেন। সময় মতো সব কিছুর জবাব পাবেন।” তবে কি হবে? মুকুলের ভাগ্য খুলবে কিনা! তা দেখবার জন্য অপেক্ষা করতেই হবে আগামী 23 মে ভোটবাক্স খোলা পর্যন্ত।যদিও এ সবই জল্পনা কেননা মুকুল রায় বার বার দাবি করেছেন যে তিনি বিজেপি একজন কর্মী ছাড়া কিছু নয়। তবুও প্রশ্ন উঠছে রাজনৈতিকমহলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!