এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > দিল্লিতে যোগদান পর্ব বন্ধ নিয়ে একি বললেন মুকুল রায়! জেনে নিন

দিল্লিতে যোগদান পর্ব বন্ধ নিয়ে একি বললেন মুকুল রায়! জেনে নিন

লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় 42 এ 42 এ শ্লোগান তুলেও 22 এ আটকে যেতে হয়েছে তাদের। যার প্রথম এবং প্রধান কারণ রাজ্যে বিজেপির উত্থান। এবার গেরুয়া শিবির বাংলায় 18 টা আসন দখল করেছে। আর এরপর থেকেই দিকে দিকে তৃণমূল ভেঙে বিভিন্ন নেতাকর্মী বিজেপিতে যোগদান করতে শুরু করেন।

তবে এই যোগদান পর্ব জেলা বা রাজ্য অপেক্ষা, দিল্লিতে বিজেপির সদর দপ্তরে গিয়েই অধিকাংশ মাত্রায় সম্পন্ন হতে দেখা যায়। কিন্তু দিল্লিতে মুকুল রায় এবং কৈলাস বিজয়বর্গীয়রা একের পর এক নেতাকর্মীদের যোগদান করালেও দলে বেনোজল ঢুকছে বলে সরব হন রাজ্য বিজেপির একাংশ।

শুধু তাই নয়, সম্প্রতি যে সমস্ত কাউন্সিলার এবং নেতাকর্মীদের মুকুল রায় গেরুয়া শিবিরে যোগদান করতে শুরু করেছিলেন, তারা ফের তৃণমূলে ফিরতে শুরু করেছেন। আর এই পরিস্থিতিতে কিছুটা হলেও ব্যাকফুটে চলে গিয়েছে বিজেপি। আর তাই এবার বিজেপি নেতৃত্বর পক্ষ থেকে এই দলবদলের ব্যাপারে কড়া অবস্থান নেওয়া হয়েছে।

সূত্রের খবর, সম্প্রতি বিজেপির পক্ষ থেকে একটি নির্দেশিকা জারি করে জানানো হয় যে, পশ্চিমবঙ্গে বিজেপিতে যোগদান করতে হলে আগে রাজ্য নেতৃত্বের অনুমোদন নিতে হবে। দিল্লিতে গিয়ে আর যোগদান করা চলবে না।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

এদিন এই প্রসঙ্গে রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সুব্রত চট্টোপাধ্যায় বলেন, “রাজ্য স্তরের কোনো নেতা বিধায়ক ও সাংসদ দলবদল করতে চাইলে রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের অনুমোদন প্রয়োজন। জেলা পর্যায়ে দলবদল করলে জেলা নেতৃত্বের অনুমতি নিতে হবে।” অনেকে বলছেন, আসলে রাজ্য বিজেপির এই সিদ্ধান্ত আসলে বিজেপি নেতা মুকুল রায়েরই বিরুদ্ধাচরণ করা। কেননা এই মুকুল রায়ের হাত ধরে দিল্লিতে গিয়ে তৃণমূল ছেড়ে আসা নেতাকর্মীরা বিজেপির পতাকা নিজেদের হাতে তুলে নিয়েছিলেন।

এমনকি এক্ষেত্রে দলবদল হওয়া সত্ত্বেও বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব তার কিছুই জানে না বলে অভিযোগ উঠেছিল সেই মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে। আর এই পরিস্থিতিতে এবার দলকে স্বচ্ছ ভাবমূর্তিতে পরিণত করতে রাজ্য এবং জেলা নেতৃত্বকে জানিয়েই যাতে এই দলবদল প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়, তার জন্য দিল্লি অপেক্ষা এই রাজ্যতেই গোটা প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করতে নির্দেশিকা জারি করল গেরুয়া শিবির। কিন্তু এই ব্যাপারে ঠিক কী বলছে বিজেপি নেতা মুকুল রায়!

সূত্রের খবর, মঙ্গলবার দমদম বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে মুকুল রায় বলেন, “দল যখন চাইছে রাজ্য নেতৃত্বের অনুমোদন নিয়ে দলবদল করানো হবে, এবার থেকে সেটাই হবে। দলবদল রাজ্য দপ্তরেই হবে। দলের নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করব।” কিন্তু এক্ষেত্রে মুকুল রায় অভিমানী নাকি স্বাচ্ছন্দ্যভাবেই তার মত পোষণ করলেন, তা নিয়ে কিছুটা হলেও প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!