এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > গেরুয়া শিবিরে অবশেষে সীলমোহর “মুকুল ফর্মুলাতেই” – বড়সড় স্বস্তি চাণক্যের

গেরুয়া শিবিরে অবশেষে সীলমোহর “মুকুল ফর্মুলাতেই” – বড়সড় স্বস্তি চাণক্যের

তার নামের আগে “চাণক্য” বসার পেছনে অন্য দল থেকে বিভিন্ন জনপ্রতিনিধিদের বানিয়ে আনার কারণ রয়েছে। আর সেই কারণেই তিনি যখন যে দলের থাকুন না কেন সেই দলের নেতা শব্দ যুক্ত হওয়ার আগেও তাকে “চাণক্য মুকুল রায়” বলে সম্বোধন করেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

গত 2011 সালে বাম সরকার বিদায়ের পর তৃণমূল ক্ষমতায় আসলে বিরোধী দল বামেদের একাধিক জনপ্রতিনিধিদের নিজেদের দলে টানতে শুরু করেন তৎকালীন তৃণমূলের সেকেন্ড-ইন-কমান্ড হিসেবে পরিচিত মুকুল রায়। যার ফলে বামেদের অস্তিত্ব কার্যত শূন্য হয়ে যেতে বসেছিল।

অন্যদিকে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের ভিড়ে বহর বাড়তে শুরু করেছিল ঘাসফুল শিবিরের। তবে একদা তৃণমূলের সেকেন্ড-ইন-কমান্ড হিসেবে পরিচিত মুকুল রায় যেভাবে অন্য দল থেকে বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের ভাঙিয়ে তৃণমূলে যোগদান করেছিলেন, সেই মুকুলবাবুই বেশ কিছুদিন হয়ে গেল তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেছেন।

আর মুকুল রায় শিবির বদলানোর সাথে সাথেই তৃণমূলের একাংশ আশঙ্কা প্রকাশ করতে শুরু করেছিল যে, তৃণমূলের আদ্যপ্রান্ত চেনা মুকুল রায় এবার হয়ত ধীরে ধীরে তৃণমূলকে ভাঙতে শুরু করবেন। যেমন ভাবা ঠিক তেমন কাজ। বিজেপিতে যোগদান করার সাথে সাথেই সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে প্রথমে তৃণমূলের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলে বিজেপিকে ভালো ফল করাতে সক্ষম হয়েছেন সেই মুকুল রায়। তবে লোকসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূলের অনেক জেলার অনেক দক্ষ নেতাকে গেরুয়া শিবিরে যোগদান করিয়েছেন তিনি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

পাশাপাশি লোকসভায় বিজেপির ভালো ফলাফল করার পরই দিকে দিকে বিভিন্ন জেলায় তৃণমূলের শেষ কথা বলা নেতারা বিজেপিতে নাম লিখিয়েছিলেন সেই মুকুলবাবুর হাত ধরেই। লাভপুরের মনিরুল ইসলাম থেকে শুরু করে দক্ষিণ দিনাজপুরের বিপ্লব মিত্র, মুকুল রায়ের হাত ধরে বিজেপিতে যোগদান করার পরই দলে বেনোজল ঢুকতে শুরু করেছে বলে মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে ও অন্য দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করার রেওয়াজের বিরোধিতা শুরু করে গেরুয়া শিবিরের একাংশ।

তারপর থেকে সেইভাবে বিজেপিতে দলবদলের প্রক্রিয়া দেখা যায়নি। বেশ কিছুদিন ধরে তা প্রায় স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু সম্প্রতি দু’দিনব্যাপী দুর্গাপুরে বিজেপি চিন্তন বৈঠকে অন্য দল থেকে আসা সবার জন্য বিজেপির দরজা খোলা রয়েছে বলে জানিয়ে দিয়েছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

আর দিলীপ ঘোষের এই বক্তব্যের পরই রাজনৈতিক মহলের একাংশ দাবি করতে শুরু করেছেন, হয়ত এবার মুকুল রায়ের ফর্মুলাকেই মান্যতা দিল গেরুয়া শিবির। আর তাইতো ক্ষমতায় আসতে গেলে যে কর্মী এমনি গজিয়ে পড়বে না, অন্য দল থেকেই যে তাকে ভাঙিয়ে নিয়ে আসতে হবে তা বুঝতে পেরেই বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব সেই দলবদলের প্রক্রিয়াকে সমর্থন করে মুকুল রায়ের রাস্তাকেই বেছে নিলেন। যা অন্য দল থেকে ভাঙিয়ে নিয়ে বিজেপিতে আনার মূল কারিগর হিসেবে মুকুল রায় কিছুটা কোণঠাসা হয়ে গেলেও এবার ফের তিনি সক্রিয় হয়ে উঠে দলের হিরো হয়ে উঠতে চলেছেন বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

Top
error: Content is protected !!