এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > “বাবা নেতা, ছেলেকে টিকিট” প্রসঙ্গে মুখ খুলে অভিষেক প্রসঙ্গ টেনে কটাক্ষ মুকুলের

“বাবা নেতা, ছেলেকে টিকিট” প্রসঙ্গে মুখ খুলে অভিষেক প্রসঙ্গ টেনে কটাক্ষ মুকুলের

একসময় তৃণমূল নেত্রীর অত্যন্ত বিশ্বাসী এবং আস্থাভাজন ব্যক্তি ছিলেন তিনি। কিন্তু গত 2017 সালে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘুম কেড়ে নিয়ে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান বঙ্গ রাজনীতির চাণক্য মুকুল রায়। আর তারপর থেকেই তৃণমূল নেতারা তাকে কখনও “গদ্দার” আবার কখনও বা “বিশ্বাসঘাতক” শব্দ বন্ধনীতে আবদ্ধ করেছিল।

তবে তিনি অবশ্য লক্ষ্যে অবিচল থেকে 2019 এর লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় বিজেপিকে ভালো ফল করিয়ে প্রাক্তন নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রাক্তন দল তৃণমূলের ভরাডুবি ঘটাতে সমর্থ হয়েছেন। পাশাপাশি লোকসভায় বিজেপির ভালো ফলাফল হওয়ার পরই তৃণমূলের ঘর ভেঙে নিজের পুত্র তথা বিধায়ক শুভ্রাংশু রায় সহ একাধিক শাসকদলের জনপ্রতিনিধিদের পদ্মফুলের পতাকা হাতে ধরিয়েছেন মুকুল রায়।

এদিকে দলের ভাঙ্গন ও খারাপ ফলাফলে কিছুটা হতাশ হওয়া তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গতকাল নজরুল মঞ্চের সমস্ত কাউন্সিলরদের নিয়ে একটি বৈঠক ডেকেছিলেন। আর সেখানেই নাম না করে এই মুকুল রায় এবং তার পুত্র শুভ্রাংশু রায়ের বিরুদ্ধে আক্রমণ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

 

তিনি বলেন, “বাবা নেতা, তাই ছেলেকে টিকিট দেওয়া হয়েছিল। আমরা এর জন্য অনেককেই টিকিট দিতে পারিনি। এটা আমাদের ভুল হয়েছিল। ভবিষ্যতে এটা ভেবে দেখতে হবে।” আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন মুকুল রায়ের উদ্দেশ্যে এহেন আক্রমণ করছেন, ঠিক তখনই পাল্টা এই ব্যাপারে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তার ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সম্পর্কে মন্তব্য করে রাজ্য রাজনীতিতে শোরগোল তুলে দিলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়।

এদিন তিনি বলেন, “পিসির দল করতে বলে ভাইপো কিভাবে মালিক হয়ে গেল! শুভ্রাংশুর যোগ্যতা নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই। ওর যা যোগ্যতা রয়েছে তা তৃণমূলের 2 থেকে 4 জনের বেশি আর কারওর নেই।” রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, দলের কাউন্সিলরদের বৈঠকে নাম না করে হলেও মুকুল রায় এবং শুভ্রাংশু রায়কে কটাক্ষ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর এবার সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের উত্থান নিয়ে কটাক্ষ করে অনেকটা চাপে ফেলে দিলেন মুকুল রায় বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞদের একাংশ।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!