এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > মৌসম নুর-এর কংগ্রেস ও তৃনমূলকে একজোট হয়ে বোর্ড গঠন করার আবেদন নিয়ে মুখ খুললেন পার্থ

মৌসম নুর-এর কংগ্রেস ও তৃনমূলকে একজোট হয়ে বোর্ড গঠন করার আবেদন নিয়ে মুখ খুললেন পার্থ

দেশজুড়ে বিজেপিকে সরাতে কংগ্রেস,তৃনমূল সহ একাধিক বিরোধী দলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বিরোধী মহাজোট তৈরি হলেও রাজ্যে সেই তৃনমূলের সাথে অহিনকুল সম্পর্ক প্রদেশ কংগ্রেসের অধীর চৌধুরী-আব্দুল মান্নানদের। কিন্তু বিজেপিকে ঠেকাতে রাজ্যের শাসকদল তৃনমূলের সাথে জোট গড়া ছাড়া আর যে কোনোই উপায় নেই তা বহুদিন আগেই উপলব্ধি করেছিলেন মালদহের গনি পরিবারের দুই কংগ্রেস সাংসদ আবু হাসেম খান চৌধুরী এবং মৌসম বেনজির নুরেরা।

আর তাই প্রদেশের বিরোধীতা সত্তেও সেই মালদহের ত্রিশঙ্কু পঞ্চায়েতগুলিতে শাসকদল তৃনমূলের সাথে আসন সমঝোতা করে যৌথভাবে বোর্ডও গড়েছে কংগ্রেস। তবে শুধু বোর্ড গড়াই নয়, ভবিষ্যতেও যাতে রাজ্যে তৃনমূলের সাথে কংগ্রেসের সাথে এই সমঝোতা বজায় থাকে তার জন্য একটি ইঙ্গিতও দিয়েছেন মালদহের কংগ্রেস সভানেত্রী মৌসম বেনজির নুর।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বেশ কিছুদিন আগে রাজ্য বিধানসভায় বিরোধী দল কংগ্রেসকে কটাক্ষ করে তৃনমূল সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, “দিল্লিতে আমাদের সাথে আপনাদের নেতারা সমঝোতা করছে আর আপনারা রাজ্যে আমাদের সরকারের বিরোধীতা করছেন।” এবারে সেই কংগ্রেসেরই বাংলার সাংসদ মৌসম বেনজির নুর তৃনমূলের প্রতি এহেন প্রস্তাব দেওয়ায় তৃনমূল কি আদৌ সেই প্রস্তাবে সাড়া দেবে?

এদিন নজরুল মঞ্চে এক অনুষ্টানে যোগ দিয়ে তৃনমূল মহাসচিব তথা রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, “এটা তো আগে থেকেই করা যেত। এখন যদি করতে চায় তাহলে করুক।” পাশাপাশি পঞ্চায়েত নির্বাচনে রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বাম, কংগ্রেস এবং বিজেপির জোট নিয়েও এদিন কটাক্ষ করেন তিনি। পাশাপাশি সম্প্রতি নোবেল জয়ী অর্থনীতিবিদ অর্মত্য সেন দেশ থেকে বিজেপিকে সরাতে বিরোধী জোটের কথা উল্লেখ করলে এদিন সেই ব্যাপারেও মুখ খোলেন তৃনমূল মহাসচিব।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এই ব্যাপারে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, “অর্মত্য সেন বুঝেছেন তাই বলেছেন। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই কথা আগে বহুবার বলেছেন। তাই 2019 এ বিজেপিকে ফিনিশ করাই সকলের মূল লক্ষ হওয়া উচিত।” রাজনৈতিক মহলের মতে, বিজেপিকে সরাতে এখন রাজ্যে তৃনমূলের কাছাকাছি যেতে কংগ্রেসের ডালু, মৌসমেরা ইঙ্গিত দিলেও পাকাপাকিভাবে সেই কাজ যে শুরুকরে দেওয়া উচিত এদিন নিজের বক্তব্যে সেই কথাই তুলে ধরলেন তৃনমূল মহাসচিব তথা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

Top
error: Content is protected !!