এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > আবাস যোজনা টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পঞ্চায়েত সদস্যের বিরুদ্ধে, তুলকালাম অনুব্রত-গড়ে

আবাস যোজনা টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পঞ্চায়েত সদস্যের বিরুদ্ধে, তুলকালাম অনুব্রত-গড়ে

রাজ্যে দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসনের পক্ষে বারবার সওয়াল করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রশাসনের তরফে মানুষকে পরিষেবার বিষয়ে যাতে দলীয় হস্তক্ষেপ না আসে সেই ব্যাপারে বিভিন্ন জেলার প্রশাসনিক বৈঠকে হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন তিনি। কিন্তু দলনেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রীর এহেন নির্দেশ অমান্য করছেন তার দলের কর্মীরাই। এবার প্রধানমন্ত্রী গৃহ নির্মাণ জোছনায় বাড়ি পাইয়ে দেওয়ার নাম করে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠল খোদ বীরভূমের জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের খাস তালুক মুরারই গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল সদস্যার বিরুদ্ধে।

জানা যায়, মুরারই পঞ্চায়েতের 12 নম্বর সংসদের নির্বাচিত তৃনমূল সদস্য অনিতা রবিদাস এবার কংগ্রেস থেকে তৃণমূলে যোগদান করেছেন। অনেকদিন ধরেই বাড়ি পাইয়ে দেওয়ার নাম করে এলাকাবাসীর কাছে টাকা চাওয়ার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। আর এই পঞ্চায়েত সদস্যার কোপে পড়েছেন এই গ্রামেরই এক মহিলা আলো ভুইমালি।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, তিন বছর আগে এই আলোদেবীর প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার উপভোক্তা তালিকায় নাম উঠলে তিন দফায় তিনি মোট 1 লক্ষ কুড়ি হাজার টাকা পান। আর এই টাকায় বাড়ির কাজ শুরু করলে হঠাৎই দু বার কুড়ি হাজার টাকা করে সেই আলো দেবীর কাছ থেকে তা নিয়ে নেন সেই পঞ্চায়েত সদস্যা অনিতা রবিদাস।এমনকি জব কার্ডও নিয়ে নেওয়া হয় তার। আর এরপর টাকা চাইতে গেলে প্রতিনিয়তই সেই তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্যার হুমকির মুখে পড়তে হতো অসহায় আলোদেবীকে। ফলে কোন উপায় না দেখে গত 26 শে অক্টোবর স্থানীয় বিডিওর কাছে এই ব্যাপারে একটি অভিযোগ দায়ের করেন সেই আলো ভুইমালি সহ গ্রামের বেশ কয়েকজন।

এদিকে তাদের সাথে এই রকম ঘটনা ঘটলেও এতদিন ভয়ে মুখ খুলতে পারেননি তারা বলে এদিন জানান এই গ্রামেরই বাসিন্দা রবি ভুইমালি, জগত ভুইমালি, নমিতা লোহারের মত মানুষেরা। কেন তিনি এরকমটা করলেন? এদিন এই প্রসঙ্গে সেই অনিতা রবিদাস বলেন, “আমার দল আমাকে দুর্নীতি করতে শেখায়নি। বিজেপি আমার নামে মিথ্যা অভিযোগ করছে।”

পাল্টা এই ঘটনায় টপ ডেকেছে বিজেপি বিজেপির জেলা সহ-সভাপতি সুধীর রঞ্জন দাস গোস্বামী বলেন, “পঞ্চায়েত সদস্যার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে মানুষই বিডিওর কাছে গিয়েছে‌ আমাদের দলের কেউ অভিযোগ করতে যায়নি। তাই প্রশাসন যদি ব্যবস্থা না নেয় তাহলে আমরা আন্দোলনে নামবো।” অন্যদিকে অনিতা রবিদাসের এহেন কুকীর্তিতে কড়া শাসকদলও। মানুষের কথা ভেবেই তৃণমূল কংগ্রেস। তাই তদন্তে যদি দলের কেউ জড়িত থাকে তাহলে জেলা নেতৃত্ব যা ব্যবস্থা নেওয়ার নেবে বলে জানান মুরারই 1 ব্লক তৃণমূল সভাপতি বিনয় ঘোষ।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

আর এতসবের পরে সাধারণ মানুষের তরফে পঞ্চায়েত সদস্যের বিরুদ্ধে এহেন অভিযোগ পেয়ে স্থানীয় বিডিও নিশীথ ভাস্কর পাল বলেন, “তদন্ত শুরু হয়েছে। অভিযোগ সত্য প্রমাণিত হলে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা হবে।” সব মিলিয়ে দুর্নীতিতে আপস না করলেও লোকসভা ভোটের আগে প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ তৃণমূল সদস্যার বিরুদ্ধে ওঠায় প্রবল বিপাকে শাসকদল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!