এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > তৃণমূলের নতুন ভরসার মুখ মহুয়া মৈত্র! উপনির্বাচনে বাজিমাত করেই পরের লক্ষ্যে ঝাঁপালো তাঁর টিম

তৃণমূলের নতুন ভরসার মুখ মহুয়া মৈত্র! উপনির্বাচনে বাজিমাত করেই পরের লক্ষ্যে ঝাঁপালো তাঁর টিম

নিজস্ব স্টাইলে ভোট করা তার অভ্যাসের মধ্যেই পড়ে। লোকসভা নির্বাচনের পর গোটা তৃণমূল দল প্রশান্ত কিশোরের কর্পোরেট স্টাইলে রাজনীতি করার চেষ্টা করলেও, বহুদিন আগে থেকেই মহুয়া মৈত্র সেই স্টাইল অবলম্বন করে এসেছেন। 2016 সালে করিমপুর বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের জয় নিশ্চিত করেছিলেন মহুয়া মৈত্র। সেই সময় কর্পোরেট স্টাইলে নিজের নির্বাচনে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন তিনি।

বেশ কিছু যুবক যুবতীদের এনে ওয়ার রুম তৈরি করে নিজের ভোট সেখান থেকেই পরিচালনা করেছিলেন মহুয়া মৈত্র যার ফলে বিধায়ক হয়েছিলেন তিনি। পরবর্তীতে 2019 এর লোকসভা নির্বাচনে এই মহুয়াদেবী কৃষ্ণনগর লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের টিকিটে দাঁড়ালে সেই ওয়াররুমের উপর ভরসা করেই লড়াই করতে দেখা গিয়েছিল তাকে। যেখানে নিজের জয় নিশ্চিত করেছিলেন তিনি। আর সাংসদ হওয়ার পর তার ছেড়ে যাওয়া করিমপুর বিধানসভা উপনির্বাচনে প্রার্থী বিমলেন্দু সিংহ রায়কে জেতাতে মূল সারথি ছিলেন এই মহুয়া মৈত্র।

ওয়ার রুমে কর্পোরেট স্টাইলে বেশ কিছু যুবক যুবতীদের নিয়ে গোটা করিমপুর জুড়ে প্রস্তুতিপর্বে নজর রেখেছিলেন তিনি। করিমপুরের সাথে কালিয়াগঞ্জ এবং খড়গপুর উপনির্বাচনে তৃণমূলকে জেতাতে সেখানে হেভিওয়েট নেতাদের প্রচারে দেখা গেলেও, বিমলেন্দুবাবুর প্রচারে তেমন কোনো হেভিওয়েট নেতাকে দেখা যায়নি। এক্ষেত্রে সংগঠনের ওপর বেশি গুরুত্ব দেওয়ার কথা বলে এখানে বড়মাপের কোনো নেতার দরকার নেই বলে বারেবারে জানিয়ে দিয়েছেন মহুয়া মৈত্র।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

যার ফলে অনেকে তার আত্মপ্রত্যয় নিয়ে প্রশ্ন করেছিলেন। তবে অবশেষে নিজের সিদ্ধান্তে অটল থেকে এবারও দলকে পাস মার্কস পাইয়ে দিলেন তিনি। সূত্রের খবর, করিমপুরের আনন্দপল্লীতে বিধায়ক কার্যালয়ে ওয়ার রুম তৈরি করেছিলেন মহুয়া মৈত্র। যেখান থেকেই ঠিক হচ্ছিল বিমলেন্দু সিংহ রায়কে জেতানোর জন্য সমস্ত ব্লুপ্রিন্ট। জানা যায়, 25 থেকে 30 জন যুবক যুবতী সকাল 9 টা থেকে রাত 10 টা পর্যন্ত সেখানে কাজ করতেন। তবে করতেন বলা ভুল।

ইতিমধ্যেই বিধানসভা উপনির্বাচন সমাপ্ত হয়েছে। ফলপ্রকাশও হয়েছে। জয়লাভ করেছেন তৃণমূল প্রার্থী বিমলেন্দু সিংহ রায়। কিন্তু এখনও সেই ওয়ার রুমে নিযুক্ত থাকা যুবক-যুবতীদের কাজ শেষ হয়নি। কেন? এখন আবার কি কাজ? জানা গেছে, বিধানসভা উপনির্বাচনে বুথ পিছু কত ভোট বৃদ্ধি পেল, তার ক্যালকুলেশন করার কাজ করছেন এখানকার কর্মীরা। কোন বুথে কম, কোন বুথে বেশি, তা ধরে ধরে পর্যালোচনা করার কাজে ব্যস্ত রয়েছেন তারা।

আর সেই সমস্ত করেই তার রিপোর্ট মহুয়া মৈত্রের হাতে তুলে দেওয়া হবে বলে খবর। এদিন এই প্রসঙ্গে ওয়ার রুমের এক তরুণ তৃণমূল কর্মী রাজেশ সরকার বলেন, “আমাদের কাজ এখনও শেষ হয়নি। বুথের ভোট কমা বারার হিসেব কষা হচ্ছে। গত লোকসভা ভোটের সঙ্গে ফলাফলে তুল্যমূল্য বিচার করে রিপোর্ট হচ্ছে। এই রিপোর্ট আমরা মহুয়াদির হাতে তুলে দেব।”

বিশ্লেষকরা বলছেন, 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনকে টার্গেট করে এখন থেকেই সংগঠনকে শক্তিশালী করতে চান মহুয়া মৈত্র। আর তাইতো বিধানসভা উপনির্বাচনের ফলাফল পর্যালোচনা করে যে জায়গায় ভোট কমেছে, তার রিপোর্ট দেখে সেখানে মেরামতি করতে উদ্যোগী হবেন তিনি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!