এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > গো-বলয়ে ধাক্কার পর এই ইস্যু কি বড়সড় চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াল মোদী-শাহর? বাড়ছে জল্পনা

গো-বলয়ে ধাক্কার পর এই ইস্যু কি বড়সড় চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াল মোদী-শাহর? বাড়ছে জল্পনা

Priyo Bandhu Media

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে অযোধ্যায় রামমন্দির নির্মাণ কি একটি বড়সড় ইস্যু হতে চলেছে রাজনৈতিক দলগুলির কাছে? এই প্রশ্ন যখন ঘুরপাক খাচ্ছে জাতীয় রাজনীতির অলিন্দে, ঠিক তখনই রামমন্দিরের দাবীতে লক্ষাধিক মানুষকে জমায়েত করে সাড়া ফেলে দিল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। মাস খানেক আগেই এই দাবীতে আওয়াজ তুলেছিল এই সংগঠন – কিন্তু, সেভাব প্রভাব ফেলতে পারেনি। কিন্তু কিছুদিন আগের কর্মসূচিতে গোটা দিল্লি শহরই কার্যত স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিলো।

দিল্লির রামলীলা ভবনে আয়োজিত এই সভায় সেদিন রেকর্ড পরিমান ভিড় হয়েছিল বলে দাবি। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌছেছিল যে লালকেল্লার ময়দানেও রামভক্তদের জায়গা দিতে পারেননি আয়োজক সংস্থা। সেদিন দিল্লিতে দেড় লক্ষ মানুষ জমায়েত হয়েছিলেন বলেই দাবী বিশ্ব হিন্দু পরিষদের। অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ প্রসঙ্গে অর্ডিন্যান্স আনার দাবিতে এদিন থেকে পথে নামল ওই হিন্দুত্ত্ববাদী সংগঠন। তবে এতো লোক জমায়েত করার নেপথ্যে আরএসএসের মদত রয়েছে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

উত্তরপ্রদেশের গাজিয়াবাদ থেকে শুরু করে গৌতম বুদ্ধ নগর ও মীরাটের মতো জায়গা থেকে রাম ভক্তদের নিয়ে আসা হয়েছিল বলে দাবি জানানো হয়েছে বিভিন্ন মহল থেকে। সেদিন ভিড় এতটাই নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায় যে লালকেল্লার প্রধান ফটকের সামনে ব্যারিকেড তৈরি করে পরিস্থিতি সামলাতে হয় পুলিশকে – এমনটাই জানা গিয়েছে রাজনৈতিক সূত্রের খবরে। মঙ্গলবার থেকে শুরু হওয়া সংসদের শীতকালীন অধিবেশন, যা কার্যত লোকসভা ভোটের আগে শেষ অধিবেশন, তার আগে রামমন্দির তৈরির দাবীকে ফের একবার নাড়া দিয়ে দিল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

তবে – সেদিনের সমাবেশে গেরুয়া শিবিরের রক্তচাপ বাড়িয়ে, রামমন্দির তৈরিতে সক্রিয়তা না দেখালে বিজপি যে আগামী লোকসভা ভোটে ক্ষমতাচ্যূত হবে সেটা আরো একবার মোদী সরকারকে বুঝিয়ে দিল বিশ্ব হিন্দু পরিষদের কর্মকর্তারা। যা লোকসভা নির্বাচনের আগে রীতিমত অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়াল বিজেপির বলে মহলের। সেদিনের মঞ্চ থেকেই নামোল্লেখ না করেই বিজেপিকে আক্রমণ শানাতে দেখা গেল স্বয়ং আরএসএসের বর্ষীয়ান মুখপাত্র ভাইয়াজি জোশীকে। স্পষ্ট ভাষায় তিনি জানান, ‘যাঁরা ক্ষমতায় আছেন তাঁদের বোঝা উচিত মানুষ কী চাইছেন’।

তিনি আরও বলেন, ‘যাঁরা আজ ক্ষমতায় তাঁরা একসময় রামমন্দির তৈরি করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। তাঁদের বোঝা উচিত আমাদের ভাবাবেগের জায়গাটা। আমরা ভিক্ষে চাইছি না – গোটা দেশ চাইছে রাম রাজ্য’। সেদিন ভাইয়াজি জোশীর সুরেই সুর মিলিয়ে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের অন্যান্য নেতারাও মোদী সরকারকে বুঝিয়ে দিলেন রাম মন্দির ইস্যুতে বিজেপি দ্রুত পদক্ষেপ না নিলে লোকসভা নির্বাচনে তা গেরুয়া শিবিরের বিপক্ষেই যাবে।

তাই এই ইস্যুতে সক্রিয়তা বাড়াক বিজেপি আর রাম মন্দির নির্মাণ করতে অর্ডিন্যান্স তৈরি করুক এমনটাই দাবী তাঁদের। রামভক্তদের রাম মন্দির নির্মানের এই অতি উৎসাহ আগামী দিনে বিজেপিকে বিপদে ফেলতে পারে বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। এমনিতেই, একের পর এক শরিক এনডিএ ছাড়ছে। তার উপর সম্প্রতি, পাঁচ রাজ্যের নির্বাচনে গো-বলয়ে কংগ্রেসের কাছে ধরাশায়ী হয়ে গেছে দীর্ঘদিনের রাজ্যপাট। এই অবস্থায় দীর্ঘদিনের সহমত পোষণকারী সংগঠন নতুন করে রামমন্দির নিয়ে অস্বস্তি বাড়ানোয় – ক্রমশ কপালের ভাঁজ চওড়া হবে নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহের, বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!