এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > ৩৭০ ধারা অবলুপ্তির ‘ম্যাজিকে’ বিরোধীদের ছত্রখান করে দিলেন মোদী-শাহরা

৩৭০ ধারা অবলুপ্তির ‘ম্যাজিকে’ বিরোধীদের ছত্রখান করে দিলেন মোদী-শাহরা


যে ধারা ২ থেকে ৬ মাসের জন্য তৈরী হয়েছিল, রাজনীতির পাকে চক্রে তা অবলুপ্ত করতে লেগে গেল ৬৯ বছর। কাশ্মীরের ৩৭০ নম্বর ধারা বিলোপ করে কেন্দ্র সরকার সঠিক করেছে না ‘ঐতিহাসিক ভুল’ – তাই নিয়েই এখন সরগরম জাতীয় রাজনীতির অঙ্গন। আর শুধু জাতীয় রাজনীতিই বা বলা হবে কেন, এই নিয়ে সরগরম আন্তর্জাতিক আঙিনাও।

তবে, নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহরা লোকসভা নির্বাচনের আগে থেকেই বলে আসছিলেন – তাঁরা নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে রাজনীতি করছেন না, তাঁদের রাজনীতি দেশের ‘সঠিক সংস্কার’ করার জন্য। গতকালের ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত যেন সেই ঘোষণাতেই সিলমোহর দিল। আর একই সাথে জিতে নিল বিরোধীদের হৃদয়ও।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

মোদী-শাহর নেতৃত্বাধীন বিজেপি তথা এনডিএ জোটকে লোকসভা ভোটে পরাভূত করতে একজোট হয়েছিলেন বিরোধীরা। কিন্তু, ৩৭০ নম্বর ধারার মত ‘সংবেদনশীল’ ধারা নিয়ে সাহসী পদক্ষেপ নিতেই – বিরোধী শিবিরে বড়সড় ফাটল প্রত্যক্ষ করা গেল। গতকাল সরকারের এই সাহসী সিদ্ধান্তের পরে, কেন্দ্র সরকারের পাশেই দাঁড়াল – একের পর এক হেভিওয়েট বিরোধী দল।

গতকাল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ – কাশ্মীরের ৩৭০ নম্বর ধারা বিলোপের ঘোষণা করতেই, বিরোধী আসন থেকে সমর্থনের হাত বাড়িয়ে দিল মায়াবতীর বিএসপি। একই রকমভাবে সমর্থন জানিয়েছে অরবিন্দ কেজলিওয়ালের আম আদমি পার্টিও। এছাড়াও কেন্দ্রীয় সরকারের সমর্থনে এগিয়ে এসেছে বিজেডি, ওয়াইএসআরসিপি, এআইএডিএমকে, শিবসেনা এবং অসমের বিপিএফ। ফলে, মোদী-শাহর মাস্টারস্ট্রোকে আপাতত ছত্রখান বিরোধী শিবির বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!