এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > ফেরত চাই পাক অধিকৃত কাশ্মীর – মোদী- শাহের কাছে সংঘ ঘনিষ্ঠদের আবদার ক্রমশ জোরালো হচ্ছে

ফেরত চাই পাক অধিকৃত কাশ্মীর – মোদী- শাহের কাছে সংঘ ঘনিষ্ঠদের আবদার ক্রমশ জোরালো হচ্ছে

দ্বিতীয়বার বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় আসার পরই যেন নিজেদের সমস্ত প্রতিশ্রুতি একে একে পালন করতে শুরু করেছে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার। প্রথমে তিন তালাক, তারপরে মিশন কাশ্মীরকে সমাধান করেছে তারা। রাম মন্দিরের ফয়সালাও খুব তাড়াতাড়ি হয়ে যাওয়ার কথা। আর এবার পাক অধিকৃত কাশ্মীরকে ভারতের সঙ্গে যাতে সংযুক্ত করা হয়, তার জন্য সঙ্ঘ ঘনিষ্ঠ সংগঠন অখিল ভারতীয় সন্ত সমিতি তাদের দাবি জানাতে শুরু করল।

সূত্রের খবর, দিল্লিতে এই সংগঠনের বৈঠকে যে বিষয়গুলি নিয়ে আলোচনা হয়েছিল, তার মধ্যে অন্যতম এই পাক অধিকৃত কাশ্মীর দখল। যেখানে একাধিক সাধুর তরফে প্রস্তাব দেওয়া হয় যে, ভারত এবার পাক অধিকৃত কাশ্মীর এবং আকসাই চীনকে নিজেদের দখলে আনুক। প্রয়োজনে সেনা নামিয়ে যাতে দেশের জমি ফেরানো হয়, তার জন্যেও দাবি জানিয়েছেন সাধুরা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

বিশ্লেষকদের একাংশ বলছেন, কাশ্মীরে 370 ধারা অবলুপ্তির পরই ভারত যে এমন কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারে, তা আগেভাগেই আঁচ করেছিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। যার মধ্যে পাক অধিকৃত কাশ্মীর দখলের আশঙ্কা প্রকাশ করে কিছুদিন আগেই এই ব্যাপারে ভারতের উদ্দেশ্যে হুঁশিয়ারিও দিয়েছিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী।

আর ইমরান খানের এহেন আশঙ্কার মাঝেই এবার সংঘ ঘনিষ্ঠ সংগঠনের তরফে সেই পাক অধিকৃত কাশ্মীরকে ফেরানোর দাবিতে আওয়াজ তোলা হলে তীব্র জল্পনা তৈরি হল। কিন্তু অখিল ভারতীয় সন্ত সমিতি এই দাবি জানালেও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ঠিক কি ভাবছেন, এখন তা নিয়েই শুরু হয়েছে গুঞ্জন।

বিজেপি নেতাদের একাংশের দাবি, ভারত ইতিমধ্যে দু’বার সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের মত অস্ত্রকে ব্যবহার করে ফেলেছে। তাই সেক্ষেত্রে পাঁচ বছর পর নির্বাচনে যাওয়ার আগে পাক অধিকৃত কাশ্মীর অভিযান তাদের কাছে তুরুপের তাস হতে পারে। সব মিলিয়ে এবার সংঘ ঘনিষ্ঠ সংগঠনের পক্ষ থেকে পাক অধিকৃত কাশ্মীর ফেরানোর দাবি তোলা হলে, কেন্দ্রীয় সরকার এই ব্যাপারে ঠিক কি পদক্ষেপ নেয়, সেই দিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!