এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > লোকসভা ভোটের মুখে মোদী শাহকে বড় ধাক্কা দিয়ে দল ছাড়লেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী

লোকসভা ভোটের মুখে মোদী শাহকে বড় ধাক্কা দিয়ে দল ছাড়লেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী

শিয়রে লোকসভা ভোট। আর এই মুহূর্তে বিজেপির অস্বস্তিকে দ্বিগুণ বাড়িয়ে ফের দলত্যাগ করলেন অরুণাচল প্রদেশের পাঁচবারের মুখ্যমন্ত্রী তথা বিজেপির হেভিওয়েট নেতা গেগং আপাং। জাতীয় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ এবং রাজ্য সভাপতি টাপির গাওকে চিঠি দিয়ে নিজেদের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন তিনি।

শুধু তাই নয়,গতকাল ট্যুইট করেও জানিয়ে দিয়েছেন যে তিনি আর বিজেপিতে থাকতে ইচ্ছুক নন। আপাং এই এই ট্যুইট প্রকাশ্যে আসতেই শোরগোল পড়ে গিয়েছে বিজেপিমহলে। এদিকে পদত্যাগ করার পর গেগং আপাং জানান,তিনি বিজেপির প্রাথমিক সদস্যপদ ছেড়েছেন মাত্র। এখন থেকে তৃণমূলস্তরের সমস্যা সমাধানের জন্যে লড়াই করবেন৷

তবে এটাই আপাং-এর দলবদলের হাতেখড়ি নয়। আগেও একাধিকবার দল পরিবর্তন করার রেকর্ড রয়েছে তাঁর। রাজনৈতিক সূত্রের খবর থেকে জানা গিয়েছে,গেগং আপাং কংগ্রেস প্রার্থী হিসাবে চারবার এবং এবং বিজেপির প্রার্থী হিসাবে একবার অরুণাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন।

 

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

১৯৮০ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত একজন কংগ্রেসী মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে রাজ্য শাসন করেছেন তিনি। তারপর কংগ্রেস ছেড়ে যোগ দেন ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টে। ২০০৭ সালে ফের মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্বে আসেন। এই দফায় তিনি ফের দলবদল করে বিজেপিতে যোগ দেন। এরপর ২০১৪ সালে দ্বিতীয়বার বিজেপির প্রার্থী হয়েই ভোটে লড়ে মুখ্যমন্ত্রীর কুর্সিতে বসেন। এরমাঝে ২০১০ সালে তিনি হাজার কোটি টাকার গণবন্টণ দুর্নীতি মামলায় গ্রেফতারও হয়েছিলেন।

লক্ষ্য করার মতো বিষয় হল, গেগং আপাং হলেন সেই ব্যক্তি যার হাত ধরে উত্তরপূর্ব ভারতের এই রাজ্যটিতে ক্ষমতায় আসে বিজেপি। সুতরাং লোকসভা ভোটের আগে এমন একজন মানুষের বিজেপি-র থেকে সরে যাওয়া শুভ ইঙ্গিত বলে মনে করছেন না মোদী-শাহ। গোবলয়ের রাজ্যগুলির বিধানসভা ভোটে নজিরবিহীন হারের পর রাজস্থান,ছত্তিশগড়,মধ্যপ্রদেশের লাগাম হাতছাড়া হয়েছে বিজেপির। এসব রাজ্যের ক্ষমতায় এসেছে কংগ্রেস।

তাই স্বাভাবিকভাবেই আসন্ন লোকসভা ভোটে বিজেপির নিশানায় রয়েছে উত্তরপূর্ব ভারত। কারণ এদিকের রাজ্যগুলিতে বিজেপির সংগঠন মজবুত। অসম,ত্রিপুরায় ক্ষমতা এখনো বিজেপির আয়ত্ত্বে রয়েছে। এই প্রেক্ষিতে অরুনাচলপ্রদেশের মতো রাজ্য থেকে প্রাক্তন বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী দলত্যাগ করা স্বাভাবিকভাবেই চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ালো মোদী-শাহের কাছে।

একেই বিরোধীদের পাশাপাশি শরিকদলের দলবিদ্বেষী মনোভাব বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বদের ঘুম উড়িয়েছে,তার উপর যদি একে একে হেভিওয়েট নেতারা লোকসভা ভোটের মুখে বিজেপির সঙ্গ ছাড়ে তাহলে নির্বাচনের আগে গেরুয়াশিবিরের দলীয় ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে,এই আশঙ্কায় কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে জাতীয় পদ্মশিবির কর্তাদের,এমনটাই মনে করছেন বিশ্লেষকরা। তবে বিজেপি ছাড়লেও আপাং কোন দলে যোগ দেবেন তা এখনো স্পষ্ট করেননি। তাই এবার তিনি কোন দলের ছত্রছায়ায় আসতে চলেছেন তা নিয়েও বিস্তর চর্চা শুরু হয়েছে রাজনৈতিকমহলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!