এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বাংলাকে চূড়ান্ত বঞ্চনা! সাড়ে ৩ বছরে মাত্র সাড়ে ৫২ কিমি রাস্তা করে দিল মোদী সরকার

বাংলাকে চূড়ান্ত বঞ্চনা! সাড়ে ৩ বছরে মাত্র সাড়ে ৫২ কিমি রাস্তা করে দিল মোদী সরকার

রাজ্যওয়ারির তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের স্থান একেবারে নিচে। এদিন রাজ্যসভায় জাতীয় সড়ক ও সড়ক পরিবহন মন্ত্রী নিতিন গড়করি জানান, মোদী ক্ষমতায় আসার পর মহারাষ্ট্রে রাস্তা তৈরী হয়েছে সবথেকে বেশি ১১ হাজার ৪৪৫.৩ কিলোমিটার, গুজরাটে ১ হাজার ৪৬৩ কিলোমিটার এবং পশ্চিমবঙ্গে তা নেমে দাড়িয়েছে ৫২.৫ কিলোমিটার। এদিন রাজ্যসভায় তৃণমূল সাংসদ মানস ভূঁইয়া অভিযোগের সুরে জানান, ”এটা বঞ্চনার চূড়ান্ত। ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কে সমস্যা ছিল। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তার অনেকটাই মিটিয়ে এনেছেন। কিন্তু কোলাঘাটে ৪১ নম্বর ও উত্তরবঙ্গে ৩১ ও ৩৫ নম্বর জাতীয় সড়কের কাজ কেন এগোচ্ছে না? রেলের ক্ষেত্রেও বঞ্চনা করা হচ্ছে। মেট্রোয় বরাদ্দ উল্টে কমছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নিজের রাজ্যে অকাতরে টাকা ঢালছেন, সড়ক উন্নয়নে পাশে থাকছেন গুজরাতের।” ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক পথ কলকাতা ও উত্তর-পূর্বের সড়কপথে একটি মাত্র যোগসূত্র হওয়ায় এটি রাজ্যের অত্যন্ত ব্যস্ততম রাস্তা। বাম জামানায় এই সড়কের সমস্যা সমাধানের জন্য রাস্তাটি ৪ লেন করার পরিকল্পনা নেওয়া হলেও জমির অভাবে তা কার্যকরী হয়নি। বাংলায় ২০১৫-‘১৬ তে ৪৬ কিলোমিটার এবং চলতি বছরে ৬.৫ কিলোমিটার রাস্তা তৈরী করা হলেও গত ২০১৪-‘১৫ তে এবং ২০১৬-‘১৭ সালে কোনো রাস্তাই তৈরী হয়নি বলে সরকারী তথ্য সূত্র থেকে জানা গেছে। অবশ্য এই নিয়ে কেন্দ্রের অভিযোগ আবার রাজ্যের দিকে। তাদের মতে জবরদখল হওয়া জমি উদ্ধার করতে না পারা, মামলার জট, ঠিকাদার সংস্থার কাজ ছেড়ে চলে যাওয়া- এমন বিভিন্ন কারণে পশ্চিমবঙ্গে এক দশক ধরে আটকে রয়েছে জাতীয় সড়ক সম্প্রসারণের কাজ।অবশ্য এই নিয়ে কেন্দ্রের অভিযোগ আবার রাজ্যের দিকে। তাদের মতে জবরদখল হওয়া জমি উদ্ধার করতে না পারা, মামলার জট, ঠিকাদার সংস্থার কাজ ছেড়ে চলে যাওয়া- এমন বিভিন্ন কারণে পশ্চিমবঙ্গে এক দশক ধরে আটকে রয়েছে জাতীয় সড়ক সম্প্রসারণের কাজ।অন্যদিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ক্ষমতায় আসার পরে জমি সংক্রান্ত সমস্যা পুরোপুরি মিটেছে বলে দাবি নবান্ন সূত্রের কিন্তু তাও সড়ক সমস্যায় স্বস্তি মিলছে না রাজ্যের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!