এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > মমতা-মোদীর সাক্ষাতে রুষ্ট সংখ্যালঘু? নয়া তত্ত্ব খাড়া করলেন রাজ্যের হেভিওয়েট মন্ত্রী!

মমতা-মোদীর সাক্ষাতে রুষ্ট সংখ্যালঘু? নয়া তত্ত্ব খাড়া করলেন রাজ্যের হেভিওয়েট মন্ত্রী!

 

2019 সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি 18 আসন পেয়েছিল এবং তৃণমূল পেয়েছিল 22 টি আসন। আর তৃণমূলের এই 22 টি আসন পাওয়ার পেছনে সহায় হয়েছিল যে রাজ্যের সংখ্যালঘুদের ভোটব্যাংক, তা বুঝতে বাকি নেই কারোরই। ফলে সেদিক থেকে সংখ্যালঘুরা যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তৃণমূল কংগ্রেসের বড় সম্পদ, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকেরা।

কিন্তু সেই সংখ্যালঘুদের ভোটও যদি তৃণমূলের দিক থেকে সরে যেতে শুরু করে, তাহলে তা নিঃসন্দেহে দলের কাছে চিন্তার কারন হবে। তবে এরকমই একটি চিন্তার কারন তৈরি হয়েছিল তৃণমূলের অন্দরমহলে। কেননা সম্প্রতি রাজ্যে এসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আর কলকাতা সফরের সময়ে তার সঙ্গে রাজভবনে দেখা করতে গিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তারপরেই বাম এবং কংগ্রেসের তরফে প্রশ্ন তোলা হয়েছিল, বিজেপি এবং তৃণমূলের মধ্যে সমঝোতা প্রক্রিয়া সম্পন্ন হল।

কিন্তু এই নরেন্দ্র মোদি এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বৈঠকের ফলে সংখ্যালঘু সমাজ যেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ভুল না বোঝে, তার জন্য এবার আসলে নামলেন রাজ্যের হেভিওয়েট মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী। সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার জমিয়ত উলামায়ে হিন্দের রাজ্য সভাপতি তথা রাজ্যের মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী বলেন, “যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় বাধ্যবাধকতা মেনে সৌজন্যের খাতিরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন।”

তিনি আরও বলেন, “অত্যন্ত খোলামেলা আবহে আমাদের আলোচনা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর বৈঠকের বিভ্রান্তির প্রসঙ্গটিও সেই আলোচনায় উঠে এসেছে। সেই সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্পষ্ট বলেছেন, বিরোধীরা এই বিষয়ে বিভ্রান্তি তৈরি করতে চাইছে। উনি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে রাজ্যের দাবি দাওয়ার কথা তুলে ধরেছেন। এমনকি এনআরসি যে রাজ্য কার্যকরী হবে না, তাও মোদিকে জানিয়ে দিয়েছেন।” আর সিদ্দিকুল্লা চৌধুরীর এই কথা থেকেই স্পষ্ট যে, তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দূত হিসেবে সংখ্যালঘু সমাজের মধ্যে যাতে নরেন্দ্র মোদি এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই বৈঠককে কেন্দ্র করে কোনো দ্বিধা দ্বন্দ্ব তৈরি না হয়, তা মেটাতেই ময়দানে নেমেছেন।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

শুধু তাই নয়, তৃণমূল কংগ্রেস যে এনআরসি বিরোধী, তা প্রমাণ করতে আগামী 23 থেকে 25 জানুয়ারি মৌলালির রামলীলা ময়দানে টানা তিনদিন ধরে জমিয়ত উলামায়ে হিন্দ এনআরসি বিরোধী ধরনা কর্মসূচি করবে বলেও জানিয়েছেন সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নরেন্দ্র মোদী-মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মধ্যেকার যে বৈঠক সাম্প্রতিককালে হয়েছে, তা নিঃসন্দেহে নানা মহলে নানা গুঞ্জনের সৃষ্টি করেছিল।

কেননা নাগরিকত্ব সংশোধনী ইস্যুতে এমনিতেই কেন্দ্রের সঙ্গে আদায়-কাঁচকলায় সম্পর্ক তৈরি করেছিল রাজ্যের শাসক দল। তাই এই পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর রাজ্যে আসার সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তার সাথে বৈঠক নিয়ে যে কথাই বলা হোক না কেন, ভেতরে ভেতরে কি হল! তা নিয়ে অনেকের মনেই ধন্দ তৈরি হয়েছিল। আর সেই সমস্ত জটিলতাকে মেটাতেই সিদ্দিকুল্লা চৌধুরীকে ময়দানে নামিয়ে সংখ্যালঘু সমাজের সমর্থন নিজেদের দিকেই রাখবার চেষ্টা করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলে মত ওয়াকিবহাল মহলের।

আপনার মতামত জানান -
Top