এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > দিদি-মোদী মেরুকরণে ক্রমশ ঝাঁঝ হারাচ্ছে বামফ্রন্ট? কার্যত মেনে নিচ্ছেন সেলিম-সূর্য্যকান্তরা

দিদি-মোদী মেরুকরণে ক্রমশ ঝাঁঝ হারাচ্ছে বামফ্রন্ট? কার্যত মেনে নিচ্ছেন সেলিম-সূর্য্যকান্তরা

বিগত পঞ্চায়েত নির্বাচনে রাজ্যের শাসকদল তৃনমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে ব্যাপক সন্ত্রাসের অভিযোগ তুলে পথে নেমেছিল রাজ্যের বাম দলগুলি। তারপর নির্বাচনী ফলাফলে এরাজ্যের বামেদের সংগঠনে ধস নেমেছে। কিন্তু এখন শাসকদলের সন্ত্রাস অপেক্ষা নিজেদের সংগঠন বাচাতে কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদী ও রাজ্যের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলের মত শক্তিধর জোড়া বিপদের বিরুদ্ধে কিভাবে লড়াই করা যায়, এখন সেই আলোচনায় চলছে বঙ্গ আলিমুদ্দিন স্ট্রীটে।

রবিবার দলের প্রতিষ্টাতা নেতা মুজাফ্ফর আহমেদের 130 তম জন্মদিবসে বিমান বসু থেকে সূর্য্যকান্ত মিশ্র, মহম্মদ সেলিমের মত নেতারা বিভিন্ন ঘটলাবলী তুলে ধরে কর্মীদের কাছে একটি কথার বলার চেষ্টা করলেন যে “দিল্লীর মোদী আর বাংলার দিদির মধ্যে কথায় আর কাজে কোনো পার্থক্য নেই।” এদিনের মহাজাতি সদনে দলের প্রয়াত নেতার জন্মদিবসে সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্য্যকান্ত মিশ্র গোরক্ষার নামে গোটা দেশজুড়ে যে মানব নিধন শুরু হয়েছে এবং রাজ্যে তৃনমূলের আমলে প্রতিবাদ করতে গেলেই যেভাবে সন্ত্রাসের মারমুখী হতে হচ্ছে সেই কথা তুলে ধরেন। এমনকী পঞ্চায়েত নির্বাচনে তাঁদেরয কর্মীদের ভয় দেখিয়ে যেভাবে ঘরছাড়া করা হয়েছে এদিন সেই কথাও উল্লেখ করে তৃনমূলের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন তিনি।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

অসমে নাগরিকপঞ্জী নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রতিবাদ করলেও তিন বছর ধরে সেই অসমেরই লক্ষাধিক বাঙালির নথিপত্র যাচাই না করার জন্যও তৃনমূলকে কটাক্ষ করেন মহম্মদ সেলিম। দেশজুড়ে গনপিটুনিতেও কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে বিধেন এই বাম সাংসদ। এদিন এই সভার সভাপতি তথা সিপিএমের পলিটব্যুরো সদস্য বিমান বসু বলেন, ” মনে রাখতে হবে ধর্মের আগে মানুষ। কিন্তু এটা মানতেই চায় না কেন্দ্রের বিজেপি ও রাজ্যের তৃনমূল সরকার। তাঁরা উভয়েই মেরুকরনের রাজনীতি করছে। বিজেপির মত এখন তৃনমূলও রামনবমী, হনুমান জয়ন্তী ও জন্মাষ্টমী পালন করছে।” সংখ্যালঘুদের জন্য এদের মায়াকান্না লোক দেখানো বলেও অভিহিত করেন তিনি। রাজনৈতিক মহলের মতে, সামনেই 2019 এর লোকসভা। তার আগে নিজেদের ধ্বংসাত্মক সংগঠন ফিরিয়ে আনতে মরিয়া বামফ্রন্ট। আর তাইতো দলের প্রতিষ্টাতা সদস্যের জন্মদিবস মেরুকরন ইস্যুতে কেন্দ্রের বিজেপি ও রাজ্যের তৃনমূল সরকারকে আক্রমন করাই যে তাঁদের এখন মূল লক্ষ তা কর্মীদের বুঝিয়ে দিলেন আলিমুদ্দিন স্ট্রীটের নেতারা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!