এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > মুখোমুখি হতে চলেছেন মোদী-মমতা, জোর  শোরগোল রাজ্যে-কেন্দ্রে

মুখোমুখি হতে চলেছেন মোদী-মমতা, জোর  শোরগোল রাজ্যে-কেন্দ্রে

লোকসভা নির্বাচনে তারা একে অপরের প্রধান প্রতিপক্ষ ছিলেন। বাংলায় গেরুয়া ঝড় তোলার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী প্রচারে আসলে এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করলে পাল্টা তৃণমূল নেত্রী তরফে সেই প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে নানা কটূক্তি করা হয়। যা নিয়ে উত্তাল হয়ে ওঠে রাজ্য রাজনীতি।

একজন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর পক্ষ থেকে একজন প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে এই ধরনের ভাষা প্রয়োগ করা উচিত নয় বলেও দাবি করেন অনেকে। তবে এবার নির্বাচনে তিক্ত সম্পর্ক হলেও অবশেষে মুখোমুখি হতে চলেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

সূত্রের খবর, আগামী 15 জুন নয়াদিল্লিতে নীতি আয়োগের বৈঠক অনুষ্ঠিত হচ্ছে। যে বৈঠকে পৌরহিত্য করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আর এখানেই দেশের সমস্ত রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মুখ্যমন্ত্রী, রাজ্যপাল এবং লেফটেন্যান্ট গভর্নরদের ডাকা হয়েছে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই এই বৈঠকে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও উপস্থিত থাকতে পারেন। আর সেখানেই মুখ্যমন্ত্রী এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির লোকসভা নির্বাচনের পর প্রথম দেখা হতে পারে বলে জল্পনার সৃষ্টি হয়েছে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

প্রসঙ্গত, কেন্দ্রে দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী পদে নরেন্দ্র মোদি শপথ নেওয়ার অনুষ্ঠানে দেশের সমস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এবং রাজ্যপালদের আমন্ত্রণ জানানোর পাশাপাশি বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়। প্রথমে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেই অনুষ্ঠানে যাওয়ার কথা জানালেও পরবর্তীতে বিজেপি এই শপথ অনুষ্ঠানকে ঘিরে রাজনীতি করছে বলে সেই অনুষ্ঠানে যোগদান করেননি তিনি।

যা নিয়ে অনেকেই বলেন, রাজ্যের উন্নয়নের স্বার্থে মুখ্যমন্ত্রীর প্রধানমন্ত্রীর এই শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে না যাওয়া অত্যন্ত ভুল সিদ্ধান্ত। এতে ভবিষ্যতে রাজ্যের উন্নয়ন ব্যাহত হতে পারে। তবে এবার কেন্দ্রের দ্বিতীয় মোদি সরকারের প্রথম নীতি আয়োগের বৈঠকে আগামী 15 ই জুন দিল্লিতে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উপস্থিত হলে লোকসভা নির্বাচনের পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সাথে তার প্রথম মুখোমুখি বৈঠক হতে পারে বলে জানা গেছে। আর এই বৈঠকেই কেন্দ্র বনাম রাজ্যের সম্পর্কে কোনোরূপ বরফ গলে কিনা এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!