এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > মোদিকে “চোর” বলে এবার নতুন তত্ত্ব নিয়ে আদালতের সামনে রাহুল গান্ধী!

মোদিকে “চোর” বলে এবার নতুন তত্ত্ব নিয়ে আদালতের সামনে রাহুল গান্ধী!

লোকসভায় বিগত দিনে আস্থা ভোট চলাকালীন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে জড়িয়ে ধরেছিলেন কংগ্রেস অধ্যক্ষ রাহুল গান্ধী। সেদিন নিজের মোদী আলিঙ্গনের প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে রাহুল গান্ধী জানিয়েছিলেন, কংগ্রেস ভালোবাসার মাধ্যমে সকলকে জয় করতে চায়। যদিও পরবর্তীতে নরেন্দ্র মোদি রাহুল গান্ধীর বক্তব্যকে নিজের মতো করে খণ্ডন করেন।

লোকসভা নির্বাচনের সময় যথেষ্ট আত্মপ্রত্যয়ী ভাবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে নিশানা করেন প্রাক্তন কংগ্রেস অধ্যক্ষ। রাফেল থেকে শুরু করে নীরব মোদী থেকে ললিত মোদী, একাধিক ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীকে আক্রমণ শানাতে দেখা যায় কংগ্রেস সাংসদ তথা তদানীন্তন সর্বভারতীয় কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীকে। ভারতবর্ষের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে রাহুল গান্ধীর আলটপকা মন্তব্য নতুন কিছু নয় বলেই মনে করেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের একাংশ।

কিন্তু লোকসভা নির্বাচনের সময় গত 13 এপ্রিল কর্ণাটকের একটি এলাকায় সভাতে সম্মোহিত করতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে আক্রমণ শানিয়ে উত্তেজিত রাহুল মন্তব্য করে বসেন, “নীরব মোদির হিরে কেলেঙ্কারি ললিত মোদীর আইপিএল কেলেঙ্কারি এবং নরেন্দ্র মোদির রাফায়েল কেলেঙ্কারি। সব চোরেদের পদবী মোদি হয়।” আর সর্বভারতীয় কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতির এই মন্তব্যের জেরেই জোর জল্পনা সৃষ্টি হয় রাজনৈতিক মহলের মধ্যে। এই মন্তব্যকে একদিকে যেমন তীব্র সমালোচনা করেন ভারতীয় জনতা পার্টির নেতা-নেত্রীরা, অন্যদিকে তেমনই সুরাটের আদালতে মামলা ঠুকে দেন বিজেপি বিধায়ক পুর্নেশ মোদি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

বিশেষত ওই মন্তব্যের মাধ্যমে মোদি সম্প্রদায়কে অপমানিত করা হয়েছে বলে আদালতের কাছে অভিযোগ করেন উল্লেখিত বিধায়ক। আর আজ সুরাট আদালতে এই মামলার শুনানি ছিল। সূত্রের খবর, আজকের এই শুনানিতে রাহুল গান্ধী সশরীরে উপস্থিত ছিলেন না। তবুও বিদেশ থেকে দেশে ফেরার পরে আদালতে নিজেকে হাজিরা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি। আদালতের বিচারকের সামনে রাহুল গান্ধী জানান, “আমি কোনো ভুল কথা বলিনি। আমি শুধু বলেছিলাম, সব চোরেদের পদবী মোদি।”

আদালত সূত্রে জানা গেছে, প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতির কথা রেকর্ড করা হয়েছে। এদিন আদালতে রাহুলের আইনজীবী আগামী দিনে তার সশরীরে হাজিরা দেওয়া থেকে নিষ্কৃতি প্রার্থনা করেন। জানা গেছে, আগামী 10 ডিসেম্বর এই মামলার পরবর্তী শুনানি। সেদিন রাহুল গান্ধীর করা আবেদন নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবে মহামান্য আদালত। ওইদিন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীকে সশরীরে আদালতে হাজিরা দিতে হবে না।

এদিন রাহুলের আদালতে হাজিরাকে কেন্দ্র করে কংগ্রেস কর্মী সমর্থকদের উদ্দীপনা ছিল যথেষ্ট। প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতিকে স্বাগত জানাতে আদালত চত্বরে জমায়েত হয়েছিলেন অনেক দলীয় কর্মী সমর্থকরা। নিজের টুইটার হ্যান্ডেল থেকে কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধী তাদেরকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। এখন রাজনৈতিক মহলের দেখার বিষয়, আগামী দিনে এই মামলা কোন দিকে মোড় নেয় এবং তার প্রভাব দেশীয় রাজনীতিতে কিরকম ভাবে পড়ে! সেদিকেই বিশেষ লক্ষ্য থাকবে বিশেষজ্ঞদের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!