এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > মোদী দেশে “ব্যর্থ” হলেও বাংলায় মমতার হাত ধরে আর্থিক অগ্রগতি ও কর্মসংস্থান – তৃণমূলের ইশতেহারে দেশকে পথ দেখানোর কথা

মোদী দেশে “ব্যর্থ” হলেও বাংলায় মমতার হাত ধরে আর্থিক অগ্রগতি ও কর্মসংস্থান – তৃণমূলের ইশতেহারে দেশকে পথ দেখানোর কথা

বাংলায় যখন আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে গেরুয়া ঝড় তোলার পরিকল্পনা করছে বিজেপি, ঠিক তখনই ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় সেই বিজেপির বিরুদ্ধে স্লোগান তুলে তৃনমূলের কর্মী-সমর্থকরা আওয়াজ তুলতে শুরু করেছেন, “এগিয়ে বাংলা, পিছিয়ে দেশ, মোদির জন্য ভারত শেষ।”

আর তাই এবার নিজেদের ইশতেহারেও বিগত 7 থেকে 8 বছর রাজ্যের বর্তমান তৃণমূল সরকার সাধারণ মানুষের উন্নয়নে ঠিক কি কি কাজ করেছে তার বিস্তারিত বিবরণ নিজেদের ইশতেহারের তুলে ধরতে চাইছে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। সূত্রের খবর, আজ আনুষ্ঠানিক ভাবে তৃণমূলের ইশতেহার প্রকাশ করার কথা রয়েছে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। আর তৃনমূলের এই ইশতেহারে ঠিক কি কি কথা থাকতে পারে এখন তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে তৈরি হয়েছে জল্পনা।

জানা গেছে, বিগত বাম সরকারের আমলে রাজ্যে বিপুল পরিমাণ দেনা থাকা সত্ত্বেও সেই দেনা শোধ করে সাধারণ মানুষের উন্নয়নে তৃণমূল সরকার যে যে কাজ করেছে তা সাধারণ মানুষের কাছে তুলে ধরেই আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে নিজেদের বৈতরণী পার হতে চাইছে ঘাসফুল শিবির। পাশাপাশি দেশের অন্যান্য রাজ্য এবং কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের থেকেও বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে যে বাংলা এগিয়ে রয়েছে নিজেদের ইশতেহারে সেই সমস্ত তথ্যও তুলে ধরতে পারে তৃণমূল।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

রাজ্যের শাসক দলের দাবি, গত 2014 সালে কেন্দ্রের মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর যে সমস্ত প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, তার একটাও তারা পালন করেনি। উল্টে সাধারণ মানুষের মূল্যবৃদ্ধিতে নাভিশ্বাস উঠতে শুরু করেছে। নোট বাতিলের জেরে অনেক মানুষ কর্মচ্যুত হয়েছেন। তবে এক্ষেত্রে বাংলায় শিল্পক্ষেত্রে বৃদ্ধির গড় জাতীয় আয়ের থেকে 194 শতাংশ বেশি এবং অন্যদিকে পরিষেবা ক্ষেত্রে বৃদ্ধির গড় জাতীয় গড়ের থেকে 26 শতাংশ এবং কৃষি ও সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে বৃদ্ধির গড় জাতীয় গড়ের থেকে 247 শতাংশ বেশি বলে নিজেদের ইশতেহারে উল্লেখ করতে পারে তৃনমূল।

পাশাপাশি ক্ষুদ্র এবং মাঝারি শিল্পের ওপর জোর দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে অনেক মানুষ নিজেদের কাজ পেয়েছেন বলেও বাংলাকে গোটা দেশের সামনে তুলে আনতে চাইছে তৃনমূল বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞরা। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেশের প্রধানমন্ত্রীর মসনদে বসানো এবং তৃণমূল কংগ্রেসকে সারাদেশে নির্ণায়ক শক্তি রূপে স্থাপন করার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছেন রাজ্যের শাসকদলের নেতা মন্ত্রীরা।

আর তাই তো নিজেদের সাত থেকে আট বছরে তৃণমূল সরকার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে রাজ্যে ঠিক কি কি কাজ করেছে সেই তথ্য তুলে ধরে সারা ভারতের কাছে নিজেদের সাফল্য তুলে ধরতে চাইছে ঘাসফুল শিবির বলে মত ওয়াকিবহাল মহলের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!