এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > এবার মোদির চিন্তা বাড়িয়ে কংগ্রেসের নেতৃত্বে তৈরি হওয়া মহাজোট-এর অংশীদার হতে চলেছেন বিজেপির প্রাক্তন মন্ত্রী

এবার মোদির চিন্তা বাড়িয়ে কংগ্রেসের নেতৃত্বে তৈরি হওয়া মহাজোট-এর অংশীদার হতে চলেছেন বিজেপির প্রাক্তন মন্ত্রী

জল্পনাকে সত্যি করে সপ্তাহখানেক আগেই বিজেপি নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা থেকে ইস্তফা দিলেন মানবসম্পদ উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী উপেন্দ্র কুশওয়াহ। বিহারের মানুষের জন্য কোনো প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেননি মোদী,এই অভিযোগকে সামনে রেখেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভা থেকে ইস্তফা দেন তিনি।

এমনকি এনডিএ জোট থেকেও বেরিয়ে এসেছেন তিনি। খুব স্বাভাবিক বিজেপির নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকার কুশওয়াহর সিদ্ধান্তের ফলে জোর ধাক্কা খেল,বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। তবে ফের বিজেপিকে চাপে ফেলে তিনি এবার কংগ্রেসের নেতৃত্বে তৈরি হওয়া মহাজোটে অংশগ্রহণ করতে চলছেন বলেও গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।

এমনিতেই পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা ভোটে অপ্রত্যাশিত ফলাফলে ভরাডুবি অবস্থা বিজেপির। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে বিরোধীরা বিজেপি আক্রমণে আরো সক্রিয় হয়ে উঠেছে এখন। পাশাপাশি শরিক দলগুলোরও বিজেপি বিরোধী মনোভাব কপালে চিন্তার ভাঁজ ফেলছে মোদি-শাহের।

সম্প্রতি কুশওয়াহা কেন্দ্রের মোদি সরকার এবং বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়েই এনডিএ ছেড়েছেন। তাঁর অভিযোগ ছিল,অভিযোগ, বিহারের মানুষের জন্য কোনও প্রতিশ্রুতি পালন করনেনি নরেন্দ্র মোদী। বিহারকে স্পেশ্যাল প্যাকেজ দেওয়া হবে বলা হয়েছিল। কিন্তু তা দেওয়া হয়নি। ফলে বিহারের অবস্থার একরত্তিও উন্নতি করেনি বিজেপি সরকার। দল ভাঙানোর দায়ে নীতীশ কুমারকেও কাঠগড়ায় তুলেছেন তিনি।

রাজনৈতিক সূত্রের খবর, সম্প্রতি কুশওয়াহা দিল্লির কংগ্রেস নেতা আহমেদ প্যাটেলের সঙ্গে দেখা করে এসেছেন। তাকে কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের অংশীদার হওয়ার জল্পনার ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি এ ব্যাপারে স্পষ্ট করে বলেননি কিছু। তবে জল্পনাকে উস্কে দিয়ে জানালেন,’মহাজোটের অংশ হওয়া অবশ্যই একটি অপশন। তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া এখনও বাকী।’

এদিকে আরএলএসপি-অন্য তিনি নির্বাচিত প্রতিনিধি সাফ কথায় জানিয়েছেন, তাঁরা কোনোভাবেই এনডিএ জোর ছাড়ছেন না। উল্টে সঙ্গ ছাড়ার জন্যে উপেন্দ্র কুশওয়াহাকে তোপ দাগলেন তাঁরা। ব্যক্তিগত স্বার্থেই দলকে সর্বনাশের পথে ঠেলে দিলেন কুশওয়াহা,এমনটাই অভিযোগ তাঁদের। যদিও কুশওয়াহার দাবী অন্য। এনডিএ-কে পাল্টা খোঁচা মেরে বললেন,২০১৪ সালের মন্ত্রী হওয়ার পর দলের নেতা-কর্মীরা যতোটা খুশি হয়েছিলেন,তার থেকে তাঁরা বেশি আনন্দ পেয়েছেন কুশওয়াহা এনডিএ এবং মন্ত্রীত্ব পদ ছাড়ার পর।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

উল্লেখ্য,লোকসভা ভোটের আগে হিন্দি বলয়ের বিধানসভা ভোটে ভালো পারফরমেন্স করে বিজেপিকে এক্সিট পোলে পাঠিয়েছে কংগ্রেস। এই অবস্থায় কংগ্রেসের নেতা-কর্মীদের মনোবল দ্বিগুণ হয়েছে স্বাভাবিকভাবেই। বিজেপির প্রাক্তন মন্ত্রীই যদি লোকসভা ভোটের জন্যে বিজেপির বিরোধীতায় কংগ্রেসের মহাজোটের অংশীদার হয় তাহলে রাহুল বাহিনীর পালে হাওয়া লাগবে,এতে সন্দেহ নেই কোনো। এই প্রেক্ষিতে দাঁড়িয়ে উপেন্দ্র কুশওয়াহার পরবর্তী পদক্ষেপ কী হয় সেদিকেই পাখির চোখ থাকবে রাজনৈতিকমহলের।

Top
error: Content is protected !!