এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > খবরের জেরে এবার মিড ডে মিলের মেনুতে এল মুড়ি পেঁয়াজের বদলে ডিম ভাত – জানুন বিস্তারিত

খবরের জেরে এবার মিড ডে মিলের মেনুতে এল মুড়ি পেঁয়াজের বদলে ডিম ভাত – জানুন বিস্তারিত

বিগত কয়েকদিন ধরেই রাজ‍্য রাজনীতি সরগরম মিড ডে মিল কেলেঙ্কারী নিয়ে। একের পর এক স্কুল থেকে উঠে এসেছে মিড ডে মিল নিয়ে নানা তথ্য। কোন স্কুলে দেওয়া হচ্ছে মিড ডে মিলে নুন ভাত, কোন স্কুলে জুটছে মুড়ি বিস্কুট, কোন স্কুলে মুড়ি পেঁয়াজ। তবে এবার খবরের জেরে মিড ডে মিলের মেনু পাল্টাতে বাধ্য হলো বালি অশ্বত্থ তলা প্রাইমারি স্কুল।

মিড ডে মিলে খাবারের কোয়ালিটি যে নিম্নগামী তার প্রকাশ ঘটে কিছুদিন আগেই হুগলী-চুঁচুড়া বাণীমন্দির স্কুলে। সেখানে ছাত্রছাত্রীদের দেওয়া হয়েছিল নুন ভাত। এরপর একের পর এক স্কুল থেকে উঠে আসে মিড ডে মিলের খাবার নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য। গত সোমবার বালি অশ্বত্থতলা স্কুলের অভিভাবকদের থেকে জানা যায় মিড ডে মিলে দেওয়া হয়েছে মুড়ি ও পেঁয়াজ। স্বাভাবিকভাবে বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই শুরু হয় রাজ্য জুড়ে বিতর্ক। মঙ্গলবারে ঐ স্কুল পড়ুয়াদের কপালে সেটুকু খাবারও জোটে না। খবর পেয়ে স্থানীয় বাসিন্দারা ছাত্র-ছাত্রীদের খাবারের ব্যবস্থা করে দেন বলে জানা গেছে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এ নিয়ে বালি অশ্বত্থতলা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জানান, ‘গ্যাস ফুরিয়ে গিয়েছে, সেই কারণেই রান্না করা সম্ভব হয়নি। তাই পড়ুয়াদের কথা চিন্তা করে মুড়ি পেঁয়াজ দেওয়ার ব্যবস্থা করেছিলাম।’ কিন্তু মঙ্গলবার ছাত্র-ছাত্রীদের খাবার যোগায় স্থানীয় বাসিন্দারা। তবে বুধবার ছবি সম্পূর্ণ অন্যরকম। বুধবারে স্কুলের মিড ডে মিলের মেনু অনুযায়ী ছাত্র-ছাত্রীদের পাতে পড়েছে ডিম ভাত। স্কুলের তরফ থেকে বলা হচ্ছে, গ্যাসের সমস্যা মিটে যাওয়ায় তাদের মিড ডে মিলের মেনু পরিবর্তন হয়েছে।

কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে স্কুল কর্তৃপক্ষের তরফে দাবি করা গ্যাসের সমস্যা আগেই কেন মিটিয়ে নেওয়া হয়নি? কেন এভাবে পড়ুয়াদের খালি পেটে থাকতে হলো? এ প্রশ্নের কোনো উত্তর দেননি বালি অশ্বত্থতলা প্রাইমারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক। তবে প্রাথমিক শিক্ষা সংসদ সূত্রে জানা গেছে, এই শিক্ষকের বিরুদ্ধে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মিড ডে মিল নিয়ে একই ঘটনা বারংবার উঠে আসছে রাজ্যজুড়ে। এ নিয়ে সরব সমস্ত বিরোধীদল। ভোটের রাজনীতির দিকে তাকিয়ে অন্তত ছোট ছোট শিশুদের মুখে প্রতিদিন খাবার জুটুক, এটুকুই আশা করে সুস্থ সমাজ।

Top
error: Content is protected !!