এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নারদ-নারদ, মেয়র-জেলাশাসকের অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে সরগরম শিলিগুড়ি, আটকে প্রকল্প

নারদ-নারদ, মেয়র-জেলাশাসকের অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে সরগরম শিলিগুড়ি, আটকে প্রকল্প

দীর্ঘদিন ধরেই বাম পরিচালিত শিলিগুড়ি পৌরসভায় ঠিকমতো উন্নয়নের কাজে অর্থ দিচ্ছে না বলে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন সেই পুরসভার মেয়র তথা বাম বিধায়ক অশোক ভট্টাচার্য। এবার সেই অশোক ভট্টাচার্যর সাথেই জেলাশাসক জয়শী দাশগুপ্তের তরজা এক নতুন আকার নিল। জানা গেছে, প্রকল্পের সঠিক কাগজপত্র দেখাতে না পারায় সমস্ত টাকা আটকে দিয়েছেন জেলাশাসক।

আর এইখানেই তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন শিলিগুড়ি পুরসভার মেয়র তথা বিধায়ক অশোক ভট্টাচার্য। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ডাম্পিং গ্রাউন্ডের ভেতরের রাস্তা তৈরীর জন্য পুরসভার পক্ষ থেকে এক কোটি টাকার প্রকল্প জমা দিলেও বাস্তবে সেখানে 48 লক্ষ টাকা খরচ হতে পারে বলে মনে করছেন অনেকে।

আর সেই কারণেই জেলাশাসক এই প্রকল্পের টাকা আটকে দেওয়ার পাশাপাশি শিলিগুড়ি সংশোধনাগারের 40 টি সিলিং ফ্যান দেওয়ার প্রকল্প আটকে দিয়েছেন। জানা গেছে সংশোধনাগার কর্তৃপক্ষের তরফে ফ্যান লাগানোর প্রয়োজন নেই বলে জানিয়ে দেয়া হলেও পুরসভা সেই ফ্যান লাগাতে তৎপর হয়েছে। ফলে এইভাবে বাড়তি টাকা খরচ করায় সেই সমস্ত প্রকল্প আটকে দেন জেলার জেলাশাসক জয়সী দাশগুপ্ত।

আরে এতেই তীব্র ক্ষিপ্ত হয়ে সেই শিলিগুড়ি পুরসভার মেয়র অশোক ভট্টাচার্য বলেন, “কুড়ি বছর বিধায়ক ছিলাম। 2008 সালের পর নতুন কোনো নিয়ম হয়েছে নাকি? আসলে এই জেলাশাসক তৃণমূলের হয়ে কাজ করছেন।”

অন্য দিকে বহু দিন পর এবার বিধায়ক এলাকার উন্নয়ন তহবিল ইমপ্লিমেন্টেশন কমিটির বৈঠক আগামী 16 ই নভেম্বর দার্জিলিংয়ের জেলাশাসকের দপ্তরে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। যেখানে দার্জিলিং জেলার সমস্ত বিধায়ককে ডাকার পাশাপাশি এই বাম বিধায়ক অশোক ভট্টাচার্যকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। কিন্তু এই বৈঠকটিতেও তিনি অনুপস্থিত থাকবেন বলে এ দিন স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন অশোকবাবু।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

তিনি বলেন, “এই বৈঠকে গিয়ে আমি জানতে চাইতাম যে, শিলিগুড়ি পুরসভার টাকা আটকে দেওয়া হচ্ছে কেন! কিন্তু আর আমি এই বৈঠকে যাব না। অন্য কোনো প্রতিনিধিকে পাঠাবো।” এদিকে মেয়রের এই জেহাদ ঘোষণা প্রসঙ্গে এদিন জেলাশাসক জয়শী দাশগুপ্ত বলেন, “অশোকবাবু শুধুই অভিযোগ করছেন। প্রয়োজনীয় দিক দেখেই এইসব প্রকল্পের টাকা আটকে দেওয়া হয়েছে।” সব মিলিয়ে এবার মেয়র বনাম জেলাশাসকের দ্বৈরথে শিকেয় উঠতে চলেছে শিলিগুড়ি পুরসভার পরিষেবা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!