এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > সভা করার অনুমতি দিচ্ছে না পুলিশ-প্রশাসন, সংগঠন বাড়াতে নতুন ভাবনায় গেরুয়া শিবির

সভা করার অনুমতি দিচ্ছে না পুলিশ-প্রশাসন, সংগঠন বাড়াতে নতুন ভাবনায় গেরুয়া শিবির

দীর্ঘদিন ধরেই এরাজ্যে পুলিশ প্রশাসনকে ব্যাবহার করে শাসকদল তৃনমূল কংগ্রেস তাঁদের সভা, সমিতিতে বাধা সৃষ্টি করছে বলে অভিযোগ করে আসছে বিজেপি।আর তাই এবারে লোকসভা নির্বাচনের আগে আলিপুরদুয়ার জেলায় সাংগঠনিক শক্তি বাড়াতে  বিভিন্ন বাড়ির ছাদ বা মাটির দাওয়াতে বসে বৈঠকে করছেন বিজেপি নেতারা৷ জানা যায়, স্থানীয় ভাষায় এই বৈঠককে বলা হয় ‘খুলি’ বৈঠক।আর প্রতিদিনই জেলার বিভিন্ন প্রান্তে এ ধরনের বৈঠক করছেন বিজেপি নেতারা। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত বিধানসভা নির্বাচনে এই জেলার মাদারিহাট আসনটি জয় পেয়েছিল বিজেপি৷

এমনকী কদিন আগে হয়ে যাওয়া পঞ্চায়েত নির্বাচনেও জেলার বেশ কয়েকটি গ্রাম পঞ্চায়েত, একটি পঞ্চায়েত সমিতি ও একটি জেলা পরিষদের নিজেদের দখলে রাখে বিজেপি। জেলা নেতৃত্বের সাংগঠনিক জোরে এই ফলাফলের জন্য রাজ্য নেতৃত্বের তরফে তাঁরা প্রশংসাও কুড়িয়েছে। আর সেই রাজ্যের নির্দেশ মতই আগামী লোকসভা নির্বাচনে এই আলিপুরদুয়ার জেলায় দলের সাফল্য ধরে রাখতে মরিয়া বিজেপি নেতারা এখন থেকেই জোরকদমে তাঁদের প্রস্তুতিও শুরু করে দিয়েছেন৷ তবে এই খুলি বৈঠক প্রসঙ্গে আলিপুরদুয়ার জেলা বিজেপির সাধারণ সম্পাদক জয়ন্ত রায় বলেন, ‘‘জেলার কোথাও পুলিশ প্রশাসনের তরফে আমাদের কোনও সভা-সমাবেশ, এমনকী মিছিল করার অনুমতিও দেওয়া হচ্ছে না৷ কিন্তু তা বলে তো আমাদের নেতা-কর্মীরা চুপ করে বসে থাকতে পারেন না৷ তাই বাড়ির উঠোন বা কারও বাড়ির ঘরকে বেছে নিয়েই লোকসভা নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে বৈঠক চলছে৷’

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

জানা গেছে, এই খুলি বৈঠকগুলি সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধিতেও যথেষ্টই সাহায্য করছে৷ কারন, জেলার বিভিন্ন প্রান্তে প্রতিদিন হওয়া এই বৈঠকগুলির মধ্য দিয়ে কেউ কেউ দল বদল করে বিজেপিতে যোগও দিলেও তা বাড়ির উঠোন বা চারদেওয়ালের মধ্যে  সীমাবদ্ধ থাকায়, বাইরে খুব বেশি হইচইও হচ্ছে না৷ যার ফলে দল বদল করা ওই মানুষগুলিকে শাসকদলের টার্গেটেও পড়তে হচ্ছেনা বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ। তবে বিজেপির এধরণের বৈঠককে বিন্দুমাত্র গুরুত্ব দিতে রাজি নয় শাসক দল তৃনমূল কংগ্রেস৷

এ প্রসঙ্গে এদিন আলিপুরদুয়ার  জেলার তৃনমূল সভাপতি মোহন শর্মা বলেন, ‘‘বিজেপি যে নিজেদের সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধির চেষ্টা না করে চুপ করে বসে থাকবে তা আমরা বিশ্বাস করিনা৷ কিন্তু আমাদের নেতা-কর্মীরাও বসে নেই৷ তারা প্রতিনিয়ত মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে জনসংযোগ করছেন৷ মানুষের সমস্যা নিয়ে আলোচনা করে তাদের পাশে থাকছেন৷ ফলে বিজেপি কোনও কোনও বাড়িতে গিয়ে খুলি বৈঠক করলেও, এই জেলার মানুষকে তারা পাশে পাবে না৷’’ সব মিলিয়ে এই খুলি বৈঠক করে শেষপর্যন্ত আলিপুরদুয়ার লোকসভা আসন আদৌ নিজেদের দখলে পারবে কি না গেরুয়া শিবিরের নেতারা! সেদিকেই তাকিয়ে রাজনৈতিক মহল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!