এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মেদিনীপুর > খুঁটি পুজো করেও দুর্ঘটনা এড়াতে পারেনি বিজেপি, তবুও একইপথে হাঁটতে চায় তৃণমূল

খুঁটি পুজো করেও দুর্ঘটনা এড়াতে পারেনি বিজেপি, তবুও একইপথে হাঁটতে চায় তৃণমূল

চলতি মাসে রাজ্যের মেদিনীপুর জেলায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পৌরহিত্যে একটি কৃষক জনসভার আয়োজন করা হয়। প্রথা অনুসারে সভা করতে যাওয়ার আগে বিজেপির জেলা নেতারা সভার খুঁটি পুজো করেছিলন। কিন্তু ভাগ্যের এমনই পরিহাস যে বিপর্যয় এড়ানো যায়নি। এবার প্রধানমন্ত্রীর জনসভার পালটা সভা করতে চলেছে যুব তৃণমূল কংগ্রেসও। সভাস্থল একই অর্থাৎ  মেদিনীপুর কলেজ ময়দান। সেই উপলক্ষ্যে জেলার যুব তৃণমূল কংগ্রেস নেতারা আচার অনুষ্ঠান মেনে পুরোহিত ডেকে যজ্ঞ না করে নিজেরাই নারকেল ফাটিয়ে সভার খুঁটি পুজো করল।

এই জনসভার বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ২১ শে জুলাই শহীদ দিবসের মঞ্চেই ঘোষণা করেছিলেন। আগামী ২৮ শে জুলাই মেদিনীপুর কলেজ ময়দানে সেই সভা করতে চলেছে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব। ঐ সভায় উপস্থিত থাকছেন তৃণমূলের সাংসদ সুব্রত বক্সী, পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী, তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়, যুব তৃণমূলের সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সহ অন্যান্য রাজ্যের নেতৃত্ব।

প্রধানমন্ত্রীর জনসভার বিপর্য্যের পুনরাবৃত্তি যাতে আবারও না হয় সেইজন্যে মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে এদিন  কলেজ ময়দানে সভার প্রস্তুতি পরিদর্শন করেন তৃণমূল কংগ্রেস দলের জেলা নেতৃত্ব। উপস্থিত ছিলেন জেলা সভাপতি অজিত মাইতি, জেলা যুব সভাপতি রমাপ্রসাদ গিরি, দীনেন রায়, গীতা ভুঁইঞা, প্রণব বসু, উত্তরা সিংহ হাজরা, সুদীপ মন্ডল সহ আরোও অনেকে। এদিনই ডেকোরেটরের প্রধান কারিগর সরুবালি মন্ডল নারকেল ফাটিয়ে পুজোর সূচনা করেন । আর মাটিতে মূল খুঁটি পুঁতে দিলেন ডেকোরেটিং সংস্থার মালিক বাবলু রায়। এরপর দিন রাজ্যের পুলিশ প্রশাসনের তরফ থেকে ডিএসপি দেবশ্রী সান্যাল মাঠ পরিদর্শন করেন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

প্রসঙ্গতঃ, বিজেপির ভাঙ্গা মঞ্চ তদন্তের জন্য চারদিন ঐ সভা ময়দান পুলিশি ঘেরাটোপের মধ্যে ছিলো গত শনিবার থেকে সেই প্রহরা উঠিয়ে নেওয়া হয়। এরপর সোমবার বিকেলে মাঠ থেকে সমস্ত পড়ে থাকা জিনিস পত্র সরিয়ে ফেলা হয়। ঐদিনই রাতেই জেলার যুব তৃণমূল কংগ্রেসের আগামী সভা উপলক্ষ্যে বাঁশ ও খুঁটি পড়ে যায়।

আগামী সভার প্রস্তুতি প্রসঙ্গে জেলার যুব তৃণমূলের সভাপতি রমা প্রসাদ গিরি বললেন, ”কোনকিছু শুভকাজ শুরু করার আগে মঙ্গল কামনা করে পুজো করা হিন্দু ধর্মের রীতি। তাই আমরা বিজেপির নকল করে নয়। আমরা আমাদের মতো করেই পুজো করলাম। হাতে আর বেশি সময় নেই। তাই জোর কদমে কাজ তুলতে হবে। ধানমন্ত্রীর কৃষক কল্যাণ সমাবেশের থেকেও বেশি জন সমাগম হবে। ওরা বাইরের রাজ্য থেকে লোক এনে মাঠ ভরিয়েছিল। আর আমরা শুধু পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার লোক নিয়েই মিটিং করব। এবং তা প্রধানমন্ত্রীর সভার থেকে বেশি লোক হবে এটা নিশ্চিত বলতে পারি।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!