এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ভুয়ো CBI পরিচয়ে মুখ্যমন্ত্রীর ভাইকেই অপহরণ খোদ কলকাতার বুকে! শুরু তীব্র চাঞ্চল্য!

ভুয়ো CBI পরিচয়ে মুখ্যমন্ত্রীর ভাইকেই অপহরণ খোদ কলকাতার বুকে! শুরু তীব্র চাঞ্চল্য!



গোটা উত্তর-পূর্ব ভারত সহ প্রায় সমগ্র দেশেই যখন সদ্য আইন হওয়া আইনে পরিণত হওয়া সিএবি নিয়ে যখন অশান্তির আগুন – ঠিক তখনই এক চাঞ্চল্যকর ঘটনা সামনে এল। খোদ কলকাতার বুকে, নিউটাউনের একটি ফ্ল্যাট থেকে অপহরণ করা হল মণিপুরের মুখ‌্যমন্ত্রীর ভাই টংব্রান লুখৈ সিং ও তাঁর এক সহযোগীকে। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে ভুয়ো সিবিআই অফিসার পরিচয় দিয়ে এই অপহরণ কান্ড ঘটানো হয়েছে।

এমনকি অপহরণের পর – ১৫ লাখ টাকা মুক্তিপণও চাওয়া হয়েছিল অপহরণকারীদের তরফে। যে ঘটনায় রীতিমত শোরগোল পরে যায় শহর জুড়ে। পরে অবশ্য বিধাননগর পুলিশের তত্‍পরতায় গতকাল বিকেলেই অপহৃতদের হদিশ মেলে। নিউটাউন থানার পুলিশ, পার্ক সার্কাস থেকে এই উদ্ধারকার্য চালিয়েছে বলে জানা গেছে। একইসঙ্গে গ্রেফতার করা হয় বিনোদ রাও, মহম্মদ রিয়াজ আলি, ইদ্রিশ আলি, নিকি খুমাল্লাম বাম সিং ও খৈরুল রহমানকে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এখানেই শেষ নয়, বেনিয়াপুকুর ও পার্ক স্ট্রিট থানা এলাকার বিভিন্ন জায়গা থেকে পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়। এরা প্রত্যেকেই কলকাতা-সহ এরাজ্যের বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা বলে পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে। অপহরণকারী ও তাদের সাহায্যকারী হিসাবে যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের কাছ থেকে নগদ টাকা, একটি গাড়ি ও তিনটি নকল অস্ত্র উদ্ধার হয়েছে। এই নকল অস্ত্র দেখিয়েই মুখ্যমন্ত্রীর ভাইকে অপহরণ করা হয়েছিল বলে পুলিশের দাবি।

সূত্রের খবর, গতকাল দুপুরে মনিপুরের মুখ্যমন্ত্রীর ভাইয়ের ফ্ল্যাটে ৫ জন নিজেদের সিবিআই অফিসার পরিচয় দিয়ে ঢুকে পরে। সম্পত্তির হিসাব চাওয়ার পাশাপাশি নকল অস্ত্র দিয়ে ভয় দেখানো শুরু হয়, সিবিআইয়ের কায়দায় ফ্ল্যাটে তল্লাশিও চালানো হয়। আর তারপরেই মণিপুরের মুখ‌্যমন্ত্রীর ভাই টংব্রান লুখৈ সিং ও তাঁর এক সহযোগী মৈরাংথেম শান্তা সিংকে গ্রেপ্তারির নাম অপহরণ করা হয়। এরপরেই ১৫ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ চেয়ে পরিবারের কাছে ফোন এলে, পরিবারের তরফে নিউটাউন থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। পুলিশ তদন্তে নেমে সিসিটিভি ফুটেজ দেখে এই অপহরণ কাণ্ডের কিনারা করে ও অপরাধীদের গ্রেপ্তার করে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!