এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > সবংয়ে গিয়ে এবার কাঁদলেন মানস ভূঁইয়া, বিরোধীদের তীব্র কটাক্ষ

সবংয়ে গিয়ে এবার কাঁদলেন মানস ভূঁইয়া, বিরোধীদের তীব্র কটাক্ষ

বিধানসভার উপনির্বাচনকে সামনে রেখে এখন সাজোসাজো রব সবং জুড়ে। একদিকে যখন মুকুল রায় দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করছেন, অন্যদিকে তার মাত্র ৬ কিলোমিটার দূরে তৃণমূলের কর্মিসভা করেন দলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সী ও রাজ্যসভার সাংসদ মানস ভূঁইয়া। সূত্রের খবর, এই সভাতে প্রার্থী মানস ভুঁইয়ার স্ত্রী গীতারানি ভুঁইয়া সহ পুরনো ও নতুন তৃণমূলের সমস্ত নেতাই হাজির ছিলেন। সভায় উপস্থিত কয়েকশো কর্মীর সামনে বক্তব্য রাখার সময়ে মানস ভুঁইয়া আবেগতাড়িত হয়ে কেঁদে ফেলেন। তিনি জানান, শেষ মুহূর্তে এক গ্লাস জল চেয়েও পাইনি কংগ্রেসের কাছে। এমন অনেক কষ্টের মুহূর্ত ও অপমান সহ্য করতে হয়েছে কংগ্রেসের দুই জগাই মাধাইয়ের কারণে। সেই মুহূর্তে আমার পাশে দাঁড়িয়েছে তৃণমূল। যে তৃণমূলের উন্নয়ন সারা রাজ্য দেখছে, সেই উন্নয়নের আলো এখানেও ধরে রাখতে তৃণমূলকে জয়ী করুন সবাই এক হয়ে। আজকে নেত্রীর নামে কুত্‍সা করে একশো দশ জন কর্মীকে নিয়ে সভা করতে হাজির হয়েছেন এক নেতা। বিজেপির পতাকা নিয়ে ভাড়াটে সৈনিকের কাজ করছেন। লজ্জা করে না ওদের মেদিনীপুরের বৈপ্লবিক চেতনাতে ধাক্কা দিতে!
অন্যদিকে তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সী জানান, এখানে কোথাও বিভেদ নেই, তৃণমূলের ঐক্যবদ্ধ লড়াইয়ের কাছে বিরোধীরা ফুঁ দিলে উড়ে যাবে। আমার অভিজ্ঞতা থেকে বলছি এই নির্বাচনের পরে আরও একবার বাংলায় বিরোধীরা মাটির তলায় চলে যাবে। লণ্ঠন নিয়ে খুঁজতে হবে ওদের। আপনারা শুধু প্রতিটি বাড়ি গিয়ে মানুষের সঙ্গে কথা বলবেন। নেত্রীর ছবি লাগিয়ে লিফলেট বিলি করুন বাড়িতে বাড়িতে।
কিন্তু মানস বাবুর বক্তব্য সামনে আসতেই নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিজেপি নেতার মন্তব্য, পায়ের তলায় মাটি সরে গেছে তাই চোখের জল দেখিয়ে নাটক করছে! রেজাল্টের দিন আরো চোখের জলে-নাকের জলে হবে। নিজের অপকর্মগুলো ঢাকতে এই নাটক করেও সবং বাঁচাতে পারবেন না তিনি! আর মুকুল রায় যদি ভাড়াটে সৈনিক হন তাহলে মানস ভূঁইয়া নিজে কি?

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!