এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > তীব্র ডামাডোল শাসকদলে – দুই শীর্ষনেতার মতানৈক্য, পদ ছাড়তে চান হেভিওয়েট নেতা

তীব্র ডামাডোল শাসকদলে – দুই শীর্ষনেতার মতানৈক্য, পদ ছাড়তে চান হেভিওয়েট নেতা

তীব্র ডামাডোল শাসক দলে, দুই শীর্ষ নেতার মতানৈক্য বিধানসভায়। যার জেরে পথ চল ছাড়তে চাইছেন হেভিওয়েট নেতা। জানা যাচ্ছে বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় এর সঙ্গে পরিষদীয় মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় মতানৈক্য ঘটে যার জেরে বুধবার পথ থেকে অব্যাহতি চান স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। ঘটনার সূত্রপাত হয় এদিন কার্য উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে অধিবেশনের সময় সূচি নির্ধারণ করা নিয়ে। জানা যাচ্ছে আগামী কর্মসূচি স্থির করার আগেই সেদিনের স্থির হওয়া কর্মসূচির কাটছাঁট করতে চাইছিলেন পার্থবাবু। এদিন ওয়েস্ট বেঙ্গল মিউনিসিপ্যাল সার্ভিস কমিশন বিল ছাড়াও এ দিন পুর বিষয়ক অন্য একটি বিল পেশের কথা ছিল।

তার মতো প্রস্তুত ছিলেন সবাই। কিন্তু পার্থবাবু বিলটিকে আগামী ৩০ তারিখে আনার প্রস্তাব দেন যা ঘিরেই মতানৈক্য শুরু হয় তাঁর সাথে বিমান বন্দোপাধ্যায়ের। শুধু বিমানবাবুই নন এই প্রস্তাবে আপত্তি জানান বাম পরিষদীয় নেতা সুজন চক্রবর্তী ও। তিনি জানান, পুর বিষয়ক দু’টি বিলের জন্য তাঁদের দলের বিধায়ক ও শিলিগুড়ির মেয়র ভট্টাচার্য তৈরি হয়ে এতদূর এসেছেন আবার তাঁর পক্ষে কলকাতায় আসা করা সম্ভব নয়। এ দিনই বিল পেশ করা হোক।অন্যদিকে ফিরহাদ হাকিম জানান তিনি দুটি বিলের জন্যই প্রস্তুত।

কিন্তু বাদ সাধেন পার্থবাবু। পার্থবাবু তাঁর বক্তব্যে অনড় থাকায় স্পিকারের সঙ্গে শুরু হয় মতানৈক্য। শুরু হয় কথা কাটাকাটি যদিও সকালের হস্তক্ষেপে তখনকার মতন পরিস্থিতি শান্ত হয়ে যায়। কিন্তু জল যে অনেক দূর গড়িয়েছে তা বোঝা যায় এ দিন যখন স্পিকার এই ঘটনার জেরে পদ থেকে অব্যাহতি চান তখন। প্রসঙ্গত পরিস্থিতি শান্ত হওয়ার পর পার্থবাবু ঘর থেকে বেরিয়ে যান। তবে এই নিয়ে কি হতে চলেছে তা নিয়ে কিন্তু রাজনৈতিক মহল তোলপাড়। জল্পনাও ছড়িয়েছে এই নিয়ে যে কাকে বাছবেন তৃণমূল নেত্রী পার্থবাবুকে নাকি বিমান বাবুকে? এইসব নিয়েই এখন তোলপাড় রাজনৈতিক মহল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!