এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > “মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো” হচ্ছে দলীয় কর্মীদের! জল্পনা বাড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী সাক্ষাতে তিন হেভিওয়েট

“মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো” হচ্ছে দলীয় কর্মীদের! জল্পনা বাড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী সাক্ষাতে তিন হেভিওয়েট

রাজনৈতিকভাবে তার সঙ্গে দ্বিমত থাকলেও পশ্চিমবঙ্গ সরকারের প্রশাসনিক প্রধান হিসেবে নিজেদের দলের পক্ষে দলের কর্মীদের উপরে হওয়া প্রশাসনিক অত্যাচারের বিরুদ্ধে মুখ্যমন্ত্রীর শরণাপন্ন হলেন পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশ কংগ্রেস কমিটি এবং কংগ্রেসের বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান। মুর্শিদাবাদ জেলায় কংগ্রেস কর্মীদের কে মিথ্যে মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে বলে এদিন মুখ্যমন্ত্রীর কাছে দরবার করেন কংগ্রেস নেতা তথা পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিধানসভার বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান।

লোকসভা নির্বাচনের পরে কিছুদিন বিরতি ছিল কিন্তু নির্দিষ্ট দিন অতিবাহিত হওয়ার পর ফের কংগ্রেসের দলীয় কর্মীদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে বলে অভিযোগ নিয়ে এবার সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দ্বারস্থ হলো ভারতবর্ষের জাতীয় কংগ্রেস।পাশাপাশি বহরমপুর পৌরসভায় কর্মরত সাফাই কর্মীদের বেতন বন্ধ হয়ে যাওয়া নিয়ে তাদের যে প্রতিবাদ আন্দোলন চলছে তার জের কাটাতেও রাজ্য সরকারের হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন কংগ্রেসের পরিষদীয় দল।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

উল্লেখ্য গত শুক্রবার বিধানসভায় মুখ্যমন্ত্রী ঘরে গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করেন বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান সহ, বিরোধীদলের সচেতক মনোজ চক্রবর্তী এবং কংগ্রেসের পরিষদীয় দলের নেতা নেপাল মাহাতো।তাঁরা মুখ্যমন্ত্রীর কাছে অভিযোগ করেন মুর্শিদাবাদে কংগ্রেস কর্মীদের উপরে ভিত্তিহীন নানা অছিলায় জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা দিচ্ছে পুলিশ। রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মাদক চালানো ধারা দেওয়া হচ্ছে ,এর আগে সংশ্লিষ্ট জেলার জেলা পরিষদ সভাধিপতি এবং পৌরসভার অনেক কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে এরকম ধারা প্রয়োগ করে তাদেরকে ফাঁসি দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন কংগ্রেসের ঐ পরিষদীয় দল। এছাড়া পুলিশের এই পক্ষপাতদুষ্ট আচরণের বিরুদ্ধে মুখ্যমন্ত্রী হস্তক্ষেপ দাবি করে পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিনিধি দল।

উল্লেখ্য গত বৃহস্পতিবার লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভায় কংগ্রেসের বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নানকে পুলিশের ধরপাকড়ের কথা জানিয়ে সে বিষয়ে বিধানসভায় সক্রিয় হওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন। আর এর পরেই এই দিন মুখ্যমন্ত্রীর সাক্ষাৎ চেয়ে ছিলেন বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান।

মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের সময় পশ্চিমবঙ্গের বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান বলেন মুর্শিদাবাদ জেলায় কংগ্রেস কর্মীদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে যেহেতু সে সমস্ত কংগ্রেসী নেতারা শাসক দলের কাছে আত্মসমর্পণ করেনি তাই এই বিষয়ে কি তাদের অপরাধ বলে গণ্য করা হচ্ছে? যদিও ব্যাপারটা শুনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান এমন হওয়ার কথা নয়।

কিন্তু কংগ্রেস নেতারা জানিয়েছেন আমরা মৌখিকভাবে কিছু ঘটনা জানিয়েছি কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী নির্দিষ্ট উদাহরণ চেয়েছেন। আমরা সেই উদাহরণ সহ বিশদ বিবরণ মুখ্যমন্ত্রী কাছে পাঠিয়ে দেবো। এইদিন কংগ্রেসের পরিষদীয় দলের সচেতক মনোজ বাবু বলেন, বহরমপুর পৌরসভায় সাফাই কর্মীরা বেতন না পেয়ে ধর্মঘটে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যার কারণে সংশ্লিষ্ট পৌরসভায় অচলাবস্থা তৈরি হয়েছে যানিয়ে এদিন বিধানসভায় পয়েন্ট অফ ইনফরমেশন এর মাধ্যমে সরব হন মনোজবাবু। তারপরে ও একবার এই বিষয় নিয়ে বিধানসভায় সরব হন মুর্শিদাবাদের বিধায়ক।

পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পুরো এবং নগর উন্নয়ন দপ্তরের দ্রুত হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার দাবি জানিয়েছেন মনোজবাবু সবকিছু মিলিয়ে পশ্চিমবাংলার বিরোধীদলের মুখ্যমন্ত্রী কাছে রাজনৈতিক সমস্যা সংক্রান্ত বিষয়ে হস্তক্ষেপ চাওয়া এবং মুখ্যমন্ত্রীর জন্য সাক্ষাৎকার রীতিমতো জল্পনা ছড়াচ্ছে রাজনৈতিক মহলে। তাই আগামী দিনে পশ্চিমবাংলার রাজনৈতিক স্বরূপ কী হয় তাই নিয়েই জল্পনা বাড়ছে বিশেষজ্ঞদের একাংশের মনে.

আপনার মতামত জানান -
Top