এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > ব্রিগেডের পরের দিনই চিন্তা বাড়িয়ে শুভেন্দুর গড় থেকে ঘাসফুল শিবির ছাড়লো কয়েক হাজার কর্মী সমর্থক

ব্রিগেডের পরের দিনই চিন্তা বাড়িয়ে শুভেন্দুর গড় থেকে ঘাসফুল শিবির ছাড়লো কয়েক হাজার কর্মী সমর্থক


গতকালকেই তৃণমূলের ব্রিগেড সমাবেশ হয় আর তার পরের দিন অর্থাৎ আজ তৃণমূলের ঘুম উড়িয়ে ঘাসফুল শিবির ছেড়ে কয়েক হাজার কর্মী সমর্থক কংগ্রেসে যোগদান করলেন। যা নিয়ে রীতিমতো অস্বস্তি বেড়েছে শাসকদলের।

জানা যাচ্ছে বহরমপুরে জেলা কংগ্রেস কার্যালয়ে একটি সভা হয়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরী, রানীনগরের বিধায়ক ফিরোজা বেগম সহ জেলা কংগ্রেস নেতৃত্ব ও কর্মী সদস্যরা।সেখানেই অধীর রঞ্জন চৌধুরীর হাত ধরে তৃণমূল ছেড়ে কংগ্রেসে যোগদান করল বেলডাঙ্গা এস আর এফ কলেজের তৃণমূল ছাত্র পরিষদের বহু সদস্য এবং রানীনগর ২ নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির প্রাক্তন সভাপতি, পঞ্চায়েত প্রধান, মালিবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রাক্তন প্রধান সহ বেশ কয়েকজন প্রাক্তন পঞ্চায়েত সদস্য সহ কয়েক হাজার কর্মী সমর্থক। যা নিয়ে চিন্তা বাড়লো তৃণমূলের মুর্শিদাবাদের পর্যবেক্ষক শুভেন্দু অধিকারীর।

 

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এদিন কংগ্রেসে যোগদান প্রসঙ্গে অধীর চৌধুরী বলেন ‘রিভার সুইং শুরু হয়ে গিয়েছে। তা ব্রিগেড করে বা প্রশাসন দিয়ে থামানো যাবে না। এই যোগদান এই জেলায় চলতে থাকবে। এবং লোকসভা নির্বাচনের আগে এই মুর্শিদাবাদ জেলায় তৃণমূলে কেউ থাকবে না, শুধু কয়েকটা চোর এবং লুটেরা ছাড়া আর জেলার সাধারণ মানুষ থাকবে না।

পাশাপাশি এও দাবি করেন যে, তৃণমূলের প্রতি মানুষের মোহভঙ্গ শুরু হয়েছে এটি পদ্মার ভাঙনের মতো রূপ নেবে। সারা রাজ্যে কি হবে জানি না তবে এই জেলায় তৃণমূল তছনছ হয়ে যাবে। এই জেলার ক্ষত মুখ্যমন্ত্রীকে তাড়িয়ে নিয়ে যাবে। এই জেলায় কংগ্রেস একটিও আসনও শাসক দলকে পেতে দেবে না’।

শুভেন্দু অধিকারী অধীরের ঘর ভাঙার খেলায় মেতেছিলেন, অধীর চৌধুরীকে আক্রমণ জানাতে এতটুকুও পিছপা হন না। সেই অধীর চৌধুরী আস্তে আস্তে ফের ঘুরে দাঁড়াচ্ছেন তাও তৃণমূলের ঘর ভেঙে। এই নিয়ে চিন্তা বাড়াবে ঘাসফুল শিবিরের অন্যতম শক্তিশালী নেতার বলেই মত রাজনৈতিক মহলের। এই নিয়ে এখনো পর্যন্ত তৃণমূল বা শুভেন্দু অধিকারীর কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!