এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মমতা না অভিষেক! দুই জেলার তৃণমূল বিধায়করা চরম আতান্তরে! জানুন বিস্তারিত

মমতা না অভিষেক! দুই জেলার তৃণমূল বিধায়করা চরম আতান্তরে! জানুন বিস্তারিত

2019 এর লোকসভা বিপর্যয় এর লোকসভা ভোটে বিপর্যয়ের পর তৃণমূল কংগ্রেস শরণাপন্ন হয় ভোট কৌঁশলী প্রশান্ত কিশোরের। পরিকল্পনামাফিক রাজ্যজুড়ে শুরু হয় তৃণমূলের ‘দিদিকে বল’ জনসংযোগ কর্মসূচি। এই কর্মসূচি রূপায়ণ করতে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে পশ্চিমবঙ্গে প্রতিটা জায়গায় নেতা-মন্ত্রী, বিধায়ক, সাংসদ থেকে শুরু করে স্থানীয় কর্মীরা প্রত্যেকেই পথে নেমে জনসংযোগের কাজ শুরু করেছেন ইতিমধ্যে। এবার সেই জনসংযোগ কর্মসূচির রিভিউ মিটিং এর সময়। কিন্তু রিভিউ মিটিং নিয়েই বিতর্ক শুরু হয়েছে তৃণমূলের অন্দরে।

মঙ্গলবার ক্যামাক স্ট্রীট এর তৃণমূলের একটি অফিসে নদীয়ার 17 জন ও পূর্ব বর্ধমানের 14 জন তৃণমূল বিধায়ককে ‘দিদিকে বল’ জনসংযোগ কর্মসূচির রিভিউ বৈঠকে ডাকা হয়েছে। অন্যদিকে আবার এই দিনই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিধানসভা অধিবেশনের দ্বিতীয় পর্বে ডেঙ্গু নিয়ে বক্তব্য রাখবেন বলে জানা গেছে। এই পরিস্থিতিতে দুই জেলার বিধায়করা পড়েছেন আতান্তরে। ‘দিদিকে বল’ রিভিউ মিটিং এ উপস্থিত থাকবেন তৃণমূল যুব নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও ‘দিদিকে বল’ মস্তিষ্কপ্রসূত যার, সেই প্রশান্ত কিশোর।

তবে বিধানসভার অধিবেশন ছেড়ে এই মুহূর্তে কোন বিধায়ক রিভিউ মিটিংয়ে যেতে রাজি নন বলে জানা গেছে। এ সম্পর্কে তাঁরা দলীয় উচ্চ নেতৃত্বকে তাঁদের মতামত জানিয়েছেন বলেও সূত্রের খবর। ‘দিদিকে বল’ কর্মসূচি শুরু হয়েছিল সাধারণ মানুষের অভাব অভিযোগ শোনা এবং স্থানীয় নেতাদের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের ক্ষোভ সম্পর্কে জ্ঞাত হওয়ার জন্য। সেই উদ্দেশ্যে বিধায়করা পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটি জায়গায় ঘুরে ঘুরে জনসংযোগ করেছেন। এমনকি গ্রামবাসীদের বাড়িতে রাত্রি যাপনও করেছেন। এবার সেই ব্যাপারে সম্পূর্ণ রিপোর্ট নেওয়ার জন্য রিভিউ মিটিং ডাকা হয়েছে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রশান্ত কিশোরের উপস্থিতিতে।

অন্যদিকে, রাজ্যে ডেঙ্গু মহামারি আকার ধারণ করেছে। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকজন ডেঙ্গুর শিকার হয়ে মৃত্যুর মুখে পতিত হয়েছেন। রাজ্যে ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ে মঙ্গলবার বিধানসভা অধিবেশনের দ্বিতীয় পর্বে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বক্তব্য রাখবেন বলে জানা গেছে। খুব স্বাভাবিকভাবেই কোন বিধায়কই বিধানসভার অধিবেশন চলাকালীন অন্য কোথাও যেতে পারবেন না। তার ওপরে মুখ্যমন্ত্রী বক্তব্য রাখার জন্য দুই জেলার বিধায়করা কোথাও যেতেও চাইছেন না। ইতিমধ্যে তাঁরা তাঁদের অসুবিধার কথা দলীয় নেতৃত্বকে জানিয়েছেন।

দুই জেলার বিধায়করা যে আতান্তরে পড়েছেন তা থেকে বেরোনোর এখনো পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি বলে জানা গেছে। অন্যদিকে, তৃণমূল নেতৃত্বের পক্ষ থেকেও এ ব্যপারে কোনো প্রতিক্রিয়া জানানো হয়নি এখনো পর্যন্ত। এদিকে, রাজনৈতিক মহলে প্রশ্ন উঠেছে যখন মুখ্যমন্ত্রী বিধানসভা অধিবেশনে বক্তব্য রাখবেন, তখন একইদিনে কিভাবে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ‘দিদিকে বল’ রিভিউ মিটিং এর ব্যবস্থা করলেন? এই প্রশ্নের উত্তর অবশ্য এখনও অধরা। তবে বিধায়কদের আপত্তির কারণ হেতু দলীয় নেতৃত্ব কি সিদ্ধান্ত নেয়, সে দিকেই লক্ষ্য রাখছেন দুই জেলার বিধায়করা।

আপনার মতামত জানান -
ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!