এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > ২০১৯ এ কি আমরা মমতা ব্যানার্জিকে প্রধানমন্ত্রী রূপে দেখতে পাব? মুখ্যমন্ত্রী নিজে যা জানালেন

২০১৯ এ কি আমরা মমতা ব্যানার্জিকে প্রধানমন্ত্রী রূপে দেখতে পাব? মুখ্যমন্ত্রী নিজে যা জানালেন

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে হওয়া এক সাক্ষাৎকারে বললেন যে সব আঞ্চলিক দল নিজেদের রাজ্যে জয়ী হয়েছে তাদেরকে নিয়ে যদি ফেডারেল ফ্রন্ট গড়ে তোলা যায় তবেই হিতকর হবে দেশের পক্ষে। তবে সেই আঞ্চলিক দলের মাথা হবেন কে? এমন প্রশ্ন সামনে এলে মমতা ব্যানার্জী কোনো মন্তব্যই করলেন না। ধোঁয়াশায় আপাতত গোটা ব্যাপারটাই। অন্যদিকে নেত্রী আশা করে বসে আছেন ২০১৯ এ তিনি প্রধানমন্ত্রী হবেন। সেকথা নিজে মুখে বলেছেনও।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এদিকে তাঁর বিশ্বাস ২০১৯ এর সাধারণ নির্বাচনে কিছু চমকপ্রদ ফল করবে রাষ্ট্রীয় জনতা পার্টি ডিএমকে, তেলেঙ্গনার টিআরএস এবং অন্ধ্রপ্রদেশের টিডিপি। কর্ণাটকের বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে মন্তব্যে তিনি জানান যে কংগ্রেস বা বিজেপির সংখ্যাগরিষ্ঠতার পাওয়ার সম্ভাবনা কম ওখানে। এরকম অবস্থায় প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এইচডি দেবেগৌড়ার জনতা পার্টি থাকবে সেকুলার কিংমেকারের ভূমিকায়। তবে কংগ্রেসকে খুব ভাবনা চিন্তা করে পা ফেলতে হবে দেবেগৌড়ার সঙ্গে কাজ করতে গেলে। কারণ এ বিষয়ে পরবর্তী পর্যায়ে তাদের সাহায্য আসতে পারে, এমনটাই অনুমানে জানান তিনি।
অন্যদিকে রাহুল গান্ধীর সঙ্গে যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর বনিবনা নেই তাও প্রকাশ্যে উঠে এল তাঁরই আচরণে। জানা গেছে,গুজরাতে কংগ্রেসের ফলাফল ভালো হলেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর তরফ থেকে রাহুলের কাছে যায়নি কোনো অভিনন্দন বার্তা। বরং তিনি পিঠ চাপড়েছেন হার্দিক প্যাটেল ও জিগনেশ মুভানির। এছাড়া রাজনৈতিক সূত্রের খবর থেকে জানা যাচ্ছে সারা দেশে বিজেপি বিরোধী ফ্রন্ট গঠনের উদ্যোগে মেতেছেন নেত্রী। তাঁর দৃঢ় বিশ্বাস বর্তমান যা পরিস্থিতি তাতে কংগ্রেস কখনোই সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে না। তবে এদিন ২০১৯ এর সাধারণ নির্বাচনের পর রাহুল গান্ধীর প্রধাণমন্ত্রী হওয়ার মন্তব্য নিয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান,” রাহুল স্বাধীন ব্যক্তি হিসাবে স্বাধীন মতামত দিয়েছেন।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!