এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > মমতা দিদি মিষ্টি পাঠান, নিজে পছন্দ করে কুর্তা দেন – প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্যের তীব্র পতিক্রিয়া দিলেন অভিষেক সহ তৃণমূল

মমতা দিদি মিষ্টি পাঠান, নিজে পছন্দ করে কুর্তা দেন – প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্যের তীব্র পতিক্রিয়া দিলেন অভিষেক সহ তৃণমূল

লোকসভা নির্বাচনের দামামা বাজার সাথে সাথেই দেশে শাসক বনাম বিরোধীর বাকযুদ্ধ চরমে উঠতে শুরু করেছে। ইতিমধ্যেই কেন্দ্রের বর্তমান শাসক দল বিজেপিকে কেন্দ্র থেকে হটিয়ে দিতে চেয়ে মরিয়া হয়ে উঠে উঠেছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুধু তাই নয় তার দল এবং তিনি দাবি করেছেন যে বাংলা থেকে ৪২ সে ৪২ টি আসন জিতে তৃণমূলই কেন্দ্রে সরকার গড়বে। আর তাই বার বার দাবি করেছেন যে তৃণমূলের প্রদাহন শত্রু হলেন মোদী। আর সেকথা বার বার তাঁর ও তাঁর দলের নেতা নেত্রীদের মন্তব্য থেকেই প্রমাণিত।

কিন্তু সব হিসাব গন্ডগোল করে এদিন বোমা ফাটিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। যা ঘিরে শুরু হয়েছে তুমুল বিতর্ক।কি বলেছিলেন প্রাধানমন্ত্রী ? এদিন প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন ৭, লোক কল্যাণ মার্গের বাড়ির বারান্দায় অক্ষয়ের সঙ্গে আলোচনায় মোদী বেশ কয়েকটি অজানা কথা জানান। তার মধ্যে অন্যতম হলো মমতা দিদি মিষ্টি পাঠান, নিজে পছন্দ করে কুর্তা দেন। মোদী এদিন বলেন যে, বিরোধী শিবির হলেও, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর জন্য কুর্তা বেছে দিয়ে , সেই কুর্তা মোদীকে পাঠান। সাথেই নেত্রীর মহানুভবতার কথা তুলে ধরে জানান যে, একবার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর আলোচনা হচ্ছিল মিষ্টি নিয়ে। সেই আড্ডায় ছিলেন মমতাও। মোদীর মিষ্টি প্রীতির কথা জানতে পেরে মমতাও মিষ্টি পাঠান মোদীকে মাঝে মধ্যে।

আর এই নিয়েই শুরু হয়েছিল তুমুল বিতর্ক। যার বিরুদ্ধে এত অভিযোগ করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দেশে পরিবর্তন আনতে চাইছেন যিনি ঘোষিত শত্রু, সেই মানুষটিকে কুর্তা পাঠাচ্ছেন, মিষ্টি পাঠাচ্ছেন, এগুলো কি ?

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আর এই নিয়ে প্রথমে তৃণমূলের তরফ থেকে কোনো প্রতিক্রিয়া না পাওয়া গেলেও এবার সরব হয়েছেন তারা। এদিন এই নিয়ে মুখ খোলেন তৃণমূলের বর্তমান ২ নং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন তিনি প্রধানমন্ত্রীর দাবিকে সরাসরি অস্বীকার করেন।
তিনি বলেন যে, “মমতা দিদি মিষ্টি পাঠান, নিজে পছন্দ করে কুর্তা দেন”- তাহলে এই উপহারের কথা বাংলার সভায় বলেননি কেন মোদী।কেন অক্ষয় কুমারের কাছে বলছেন। দিল্লিতে বসে খালি মিথ্যা কথা। সাথেই বলেন যে, অক্ষয়কুমারকে নরেন্দ্র মোদী কী বলেছেন, তার জন্য তিনি জবাবদিহি করবেন কেন?। যদি পাঠিয়ে থাকেন, তাহলে তা আগে বলেনি কেন?।

সাথেই প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে দাবি করেন যে, দিল্লি থেকে মিথ্যা কথা বলছেন, আর বাংলায় এসে আরেক কথা বলছেন মোদী। নরেন্দ্র মোদী বলছেন ভারতের অখণ্ডতা রক্ষা করতে চান, কিন্তু অমিত শাহ বলছেন দার্জিলিং ভাগ করতে চান। ভারতে যত বিচ্ছিন্নতাবাদী শক্তি আছে সবার সঙ্গে হাত মেলাচ্ছে বিজেপি। এই দ্বিচারিতা সিপিএম-এর আমলে দেখা যেত, আর এই আমলে দেখা যাচ্ছে। তারা একই মুদ্রার এপিঠ, ওপিঠ বলে মন্তব্য করেছেন অভিষেক।

অন্যদিকে এই দাবি সরাসরি খণ্ডন করেননি তৃণমূলের জাতীয় মুখপত্র ডেরেক ও ব্রায়েনও। তাঁর দাবি এটাও মোদির একটা চমক। তিনি দাবি করেন যে , মিষ্টি মিষ্টি কথা বলে গিমিক করছেন প্রধানমন্ত্রী। সরাসররি বিতর্কসভায় যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। তবে সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর দাবি খণ্ডন করেননি তিনি।

ফলে বেশ জমে উঠেছে ভোটের রাজনীতি তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এদিকে এই নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-এর কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

Top
error: Content is protected !!