এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > “মুখ্যমন্ত্রী গঙ্গাসাগর পাপস্খলনের জন্য গেছেন” কটাক্ষ দিলীপ ঘোষের

“মুখ্যমন্ত্রী গঙ্গাসাগর পাপস্খলনের জন্য গেছেন” কটাক্ষ দিলীপ ঘোষের

গত ২৬ ডিসেম্বর দক্ষিন ২৪পরগনা সফরে গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী।তবে এই সময় পাহাড়ে পর্যটন মেলায় অংশগ্রহণ করার পরিকল্পনা থাকলেও তা বাতিল করা হয় নিরাপত্তাজনিত কারণে। তার পরিপ্রেক্ষিতে গঙ্গাসাগর সফরে যান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার সেই সফরকে লক্ষ্য করেই বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলিপ ঘোষ দাবি করেছেন,” মুখ্যমন্ত্রী গঙ্গাসাগর পাপস্খলনের জন্য গেছেন।” তিনি আরও বলেন,তৃনমূলের নেতাদের পাহাড়ে যাওয়ার সাহস নেই।হিম্মত নেই।”
শিলিগুড়িতে গিয়ে এমনটাই দাবি করেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। পাহাড়ে চলছে তিস্তা রঙ্গিত উৎসব। এই পর্যটন উৎসবে প্রতিবারের মতোই এবারেও মুখ্যমন্ত্রীর যাওয়ার কথা ছিল । কিন্তু তা বাতিল করায় বিরোধীদের কটাক্ষ তৃনমূল নেত্রীকে। কিন্তু পাপস্খলন করার কথা কেন বললেন দিলিপবাবু ? তাঁর মতে বিজেপির প্রোহিন্দু রাজনীতির জন্য দেশজুড়ে যেভাবে মানুষ বিজেপিতে আসছেন ,তা দেখে তৃনমূল নেত্রী গঙ্গাসাগর সফরে গেছেন।যাতে তিনি তৃনমূল কর্মী সমর্থকদের কাছে প্রহিন্দু বার্তা দিতে পারেন। যদিও এই বিষয়কে রাজ্য সভাপতি “পাপস্খলন” বলে বিশ্লেষণ দাবি করেছেন।
শৈলশহরের অশান্তির কালো মেঘ এখনও যে রয়েছে তা মুখ্যমন্ত্রীর সফর বাতিল আরও স্পষ্ট করে দিল। নিরাপত্তাজনিত কারণে বাতিল করা হলেও ইতিমধ্যে পাহাড়ের পর্যটন শিল্প তার মুলস্রোতে ফিরেছে। এ বিষয়ে দিলীপ বাবু আরও বলেন,”মুখ্যমন্ত্রী নিজে বলেছিলেন পাহাড়ে যাবেন।সেখানে না গিয়ে তিনি গঙ্গাসাগরে যাওয়ায় আমার মনে হয় পাপস্খলনের জন্য গেছেন। ওনার এক নেতা ব্রাহ্মণ ভোজন করাচ্ছেন।রাহুল গান্ধী মন্দিরে যাচ্ছেন।”
মুখ্যমন্ত্রীর সফর নিয়ে এই ভাষায় দিলীপ বাবুর মন্ত্যব্য তৃনমূল নেত্রীর উত্তরের আসায় তাঁর দল।প্রথমে মুকুল রায়,এবার দিলীপ ঘোষ একেরপর এক বিরোধীদের আক্রমণের প্রতিআক্রমন নেত্রীর কাছ থেকে পাওয়া যায়নি । এর প্রতিআক্রমনে তাঁর পাল্টা জবাব কি হয় ?তাই দেখার ।
তবে এদিন রাজ্যের যুবক খুনের প্রসঙ্গেও দিলিপবাবু বলেন,”যেই রাজ্যে খুন হচ্ছে সেই রাজ্যের উচিত নিরাপত্তা দেওয়া।পশ্চিমবঙ্গেও প্রতিদিন এরকম খুনের ঘটনা ঘটছে।” রাজ্যে কর্মসংস্থান প্রসঙ্গে তিনি বলেন,”রাজ্যে একটা শ্রমিকের কাজ হচ্ছে না ।ভিন রাজ্যে যেতে হচ্ছে।মুখ্যমন্ত্রী সবাইকে বলেছেন রাজ্যে আসতে।যারা রাজ্যে আছে তারাই খেতে পাচ্ছেনা।রাজ্যে চায়ের দোকান ,চপের দোকান এত হচ্ছে ।কিন্তু তা খাবে কে?” উল্লেখ্য ,সম্প্রতি রাজ্যের অর্থ মন্ত্রী অমিত মিত্র এক তথ্য প্রকাশ করে বলেছেন রাজ্যে শিল্পগুলিতে মোট কর্মসংস্থান প্রায় ১৭৭০০০০।তাহলে বিরোধীদের এই অভিযোগ কেন?তা নিয়েও জল্পনা অব্যাহত।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!