এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > কংগ্রেসের পাশে দাঁড়িয়ে ফের মোদিকে তীব্র আক্রমণ মমতার

কংগ্রেসের পাশে দাঁড়িয়ে ফের মোদিকে তীব্র আক্রমণ মমতার

প্রথম ইনিংসের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও ফের সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে কেন্দ্রের ক্ষমতায় এসেছে নরেন্দ্র মোদি নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকার। আর ক্ষমতায় আসার পর থেকেই অতীতের মতই ফের নরেন্দ্র মোদি এবং তার সরকারের বিরুদ্ধে কার্যত অলআউট অ্যাটাকে অবতীর্ণ হয়েছেন তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আর দেশজুড়ে 1975 সালের 25 শে জুন জরুরি অবস্থা যেদিন চালু হয়েছিল, তার 44 বছর পর ফের সেই দিনটির স্মৃতি উস্কে দিয়ে যখন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা গেল বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে, ঠিক তখনই পাল্টা এই ব্যাপারে নরেন্দ্র মোদির ফ্যাসিস্ট শাসনকেই তুলে ধরে কংগ্রেসের পাশে দাঁড়ালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

প্রসঙ্গত, 1975 সালের 25 শে জুন রাত বারোটা বাজার কয়েক মিনিট আগেই তৎকালীন রাষ্ট্রপতি ফারুকউদ্দিন আলী আহমেদ বক্তব্য রাখেন। আর এরপরই ইন্দিরা গান্ধীর নির্দেশে দেশে জরুরি অবস্থা সৃষ্টি হয়। যাকে কালো অধ্যায় হিসেবে দেশের অনেক রাজনীতিবিদ দাবি করেন।

আর সেই ঘটনারই 44 বছর পূর্তিতে নরেন্দ্র মোদী তার টুইটার হ্যান্ডেলে সেই সময়কার একটি ভিডিও তুলে ধরে ইন্দিরা গান্ধীর সমালোচনা এবং জয়প্রকাশ নারায়ণ, এল কে আদবানি এবং অটল বিহারীর মত যে সমস্ত নেতারা সেইসময় আন্দোলন করে জেলে গেছেন, তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন।

পাশাপাশি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং বিজেপির কার্যনির্বাহী সভাপতি জয়প্রকাশ নাড্ডাও গোটা ঘটনার সমালোচনা করেন। আর এরই পাল্টা তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “গত 5 বছর ধরে দেশে সুপার এমারজেন্সী চলছে। ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিয়ে দেশের স্ব-শাসিত প্রতিষ্ঠানগুলোকে বাঁচানোর জন্য লড়াই চালাতে হবে।”

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, দেশে জরুরি অবস্থার সময়ের কথা তুলে ধরে বিজেপি যখন কংগ্রেসকে প্রায় কোণঠাসা করতে চাইছে, ঠিক তখনই কৌশলী পদক্ষেপ নিয়ে বর্তমানে দেশে সুপার ইমার্জেন্সি চলছে বলে সেই বিজেপির বিরুদ্ধে তোপ দেগে পরোক্ষে কংগ্রেসের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলেন তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহলের একাংশ।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!